বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > করোনা রোগীর মৃতদেহ সৎকারের নামে টাকা কামানোর জের, কলকাতায় সাসপেন্ড ৫
 (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)
 (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)

করোনা রোগীর মৃতদেহ সৎকারের নামে টাকা কামানোর জের, কলকাতায় সাসপেন্ড ৫

  • ডোম ছাড়াও সাসপেন্ড হওয়া কর্মীদের মধ্যে একজন পিস ওয়ার্ল্ডের নিরাপত্তারক্ষী, বাকি ৩ জন পুরনিগমের শববাহী গাড়ির চালক ও খালাসি।

করোনা রোগীর মৃতদেহ সৎকারের নাম করে মোটা টাকা কামানোর অভিযোগ সামনে এল। অভিযোগ পেতেই এবার নড়েচড়ে বসল কলকাতা পুরনিগম। সৎকারের কাজের সঙ্গে যুক্ত একজন ডোম সহ ৫ জনকে সাসপেন্ড করল কলকাতা পুরনিগম। ডোম ছাড়াও সাসপেন্ড হওয়া কর্মীদের মধ্যে একজন পিস ওয়ার্ল্ডের নিরাপত্তারক্ষী, বাকি ৩ জন পুরনিগমের শববাহী গাড়ির চালক ও খালাসি।

পুরনিগম সূত্রে খবর, গত ৮ জুন করোনায় মৃত এক ব্যক্তির পরিবারের কাছ থেকে কিছু টাকা দাবি করেন পিস ওয়ার্ল্ডের নিরাপত্তারক্ষী শম্ভু মণ্ডল।তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ, তিনি মৃতের পরিবারকে বলেছিলেন কিছু টাকা দিতে। খাওয়া দাওয়া করবেন। তার বদলে দেহটি যাতে দ্রুত দাহ করে দেওয়া যায়, সেই ব্যবস্থা করবেন। অভিযোগের তদন্ত করে পুরনিগমের স্বাস্থ্য বিভাগের আধিকারিক ওই নিরাপত্তারক্ষীকে জিজ্ঞাসাবাদ করেন।ঘটনার সত্যতা যাচাইয়ের পর শম্ভু মণ্ডলকে সাসপেন্ড করা হয়।

এরপরেই গত ১৪ মে–র একটি ঘটনা সামনে আসে। কেওড়াতলা মহাশ্মশানে রাজেশ সিংহানিয়া নামে এক ব্যক্তি তাঁর পরিজনের মৃতদেহ দাহ করতে যান। শ্মশানের ডোম আনন্দ মণ্ডল দ্রুত দেহ দাহ করার জন্য ৫ হাজার টাকা নেয়।এই ঘটনার খবর পাওয়ার পরই পুরনিগমের আধিকারিকরা ওই ডোমকে সাসপেন্ড করেন। নিজের দোষ স্বীকার করাই শুধু নয়, ওই ডোম ৫ হাজার টাকা ফেরত দিয়েও দেন।এ

দিন দুপুরে কলকাতা পুরনিগমের কন্ট্রোল রুমে সিরিটি শ্মশান থেকে ফোন করে এক ব্যক্তি জানান, পুরনিগমের শববাহী গাড়ির চালক ও তাঁর সহকর্মীরা মৃতদেহ শ্মশানে নিয়ে আসার জন্য ২৭০০ টাকা চাইছেন। খবর পেয়েই পুরনিগমের আধিকারিকরা শ্মশানে চলে যান। সেখানেই সমীর হালদার, বিশ্বজিৎ নস্কর ও সঞ্জয় রজককে হাতেনাতে ধরে ফেলেন পুরনিগমের আধিকারিকরা।

বন্ধ করুন