বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > Neuro Telemedicine: ব্যাপক সাড়া মিলছে নিউরো টেলিমেডিসিনে, ৬০০ জন স্ট্রোকের রোগীর প্রাণ বেঁচেছে
নিউরো টেলিমেডিসিন উপকৃত বহু স্ট্রোকের রোগী। প্রতীকী ছবি (‌সৌজন্য গেটি ইমেজেস)‌ (HT_PRINT)

Neuro Telemedicine: ব্যাপক সাড়া মিলছে নিউরো টেলিমেডিসিনে, ৬০০ জন স্ট্রোকের রোগীর প্রাণ বেঁচেছে

  • এই পরিষেবার সাহায্যে অনেক কম সময়ে তাদের হাসপাতালে পৌঁছে দেওয়া সম্ভব হয়েছিল। কলকাতা বাঙুর ইনস্টিটিউট অফ নিউরোসায়েন্সে জীবন দায়ী ইনজেকশন দিয়ে এই সমস্ত রোগীদের বাঁচানো সম্ভব হয়েছে। স্বাস্থ্য দফতরের মতে, নিউরো টেলিমেডিসিন পরিষেবার ফলে ৯৫ শতাংশ প্রাণ বাঁচানো সম্ভব হয়েছে।

স্ট্রোকের চিকিৎসায় ব্যাপক সারা পাচ্ছে নিউরো টেলিমেডিসিন। করোনা পরিস্থিতির সময় গতবছর ২১ ডিসেম্বর নিউরো টেলিমেডিসিন পরিষেবা শুরু করেছিল রাজ্য সরকার। এখনও পর্যন্ত এই টেলিমেডিসিনের মাধ্যমে ৭০০ জন রোগীকে চিকিৎসা পরিষেবা দেওয়া সম্ভব হয়েছে। যার মধ্যে ৬০০ জনের স্ট্রোকের সমস্যা ছিল। নিউরো টেলিমেডিসিন পরিষেবার ফলে তাদের প্রাণ বেঁচেছে।

স্বাস্থ্য দফতর সূত্রে জানা গিয়েছে, ৬০০ জনের মধ্যে ৬৬ জন রোগীর ইসকিমিক স্ট্রোক বা মস্তিষ্কের শিরায় রক্ত জমাট বাধার ফলে স্ট্রোকের সমস্যা দেখা দিয়েছিল। তবে এই পরিষেবার সাহায্যে অনেক কম সময়ে তাদের হাসপাতালে পৌঁছে দেওয়া সম্ভব হয়েছিল। কলকাতা বাঙুর ইনস্টিটিউট অফ নিউরোসায়েন্সে জীবন দায়ী ইনজেকশন দিয়ে এই সমস্ত রোগীদের বাঁচানো সম্ভব হয়েছে।

স্বাস্থ্য দফতরের মতে, নিউরো টেলিমেডিসিন পরিষেবার ফলে ৯৫ শতাংশ প্রাণ বাঁচানো সম্ভব হয়েছে। রাজ্য সরকারের এই প্রকল্পের দায়িত্বে রয়েছেন বিশিষ্ট নিউরোলজিস্ট ডা. বিমানকান্তি রায়। তিনি বলেন, আগে এই পরিষেবার সঙ্গে ১২ টি হাসপাতাল যুক্ত ছিল পরে আরও ২৯ টি হাসপাতালকে এই পরিষেবার সঙ্গে যুক্ত করা হয়েছে। এরফলে টেলিমেডিসিন পরিষেবার পরিধি বেড়েছে। চিকিৎসকদের মতে, স্ট্রোক হলে রোগীকে দ্রুত হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া খুবই প্রয়োজন। সেক্ষেত্রে দেরি হলে রোগীকে বাঁচানো সম্ভব হয় না। ফলে স্ট্রোকের ক্ষেত্রে সময় খুব মূল্যবান।

ইসকিমিক স্ট্রোকের ক্ষেত্রে রক্ত জমাট বেঁধে যাওয়ার ফলে তা দ্রুত ছাড়ানোর প্রয়োজন রয়েছে। এর জন্য টেনেকটিপ্লেজ ইনজেকশন দেওয়া হয় স্ট্রোকে আক্রান্তদের। চিকিৎসকরা জানাচ্ছেন, বেশিরভাগ ইসকিমিক আক্রান্ত রোগী হাসপাতালে আসছেন ৪ ঘণ্টা পরে। নিউ টেলিমেডিসিনের মাধ্যমে রোগীদের বাঁচানো সম্ভব হচ্ছে। চার ঘণ্টার মধ্যে যাদের হাসপাতালে নিয়ে আসা হচ্ছে তারা দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠছেন।

বন্ধ করুন