বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > বিরল অস্ত্রোপচার, ক্যান্সারের চিকিৎসার পর রোগীর পা কেটে জুড়ে দেওয়া হল
এসএসকেএম হাসপাতাল । ফাইল ছবি। 

বিরল অস্ত্রোপচার, ক্যান্সারের চিকিৎসার পর রোগীর পা কেটে জুড়ে দেওয়া হল

  • পায়ের সমস্যায় ভুগছিলেন মালদার ১৫ বছরের এক কিশোর। মাসখানেক আগে খেলতে গিয়ে পায়ে বল লেগে চোট পেয়েছিল ওই কিশোর।

রোগীর পা কেটে চিকিৎসা করা হল ক্যান্সারের। ক্যান্সার কোষ নষ্ট করার পর আবার জুড়ে দেওয়া হল রোগীর পা। এমনই বিরল অস্ত্রোপচার হল কলকাতার সরকারি হাসপাতালে। চিকিৎসকদের দাবি, আগামী তিন মাসের মধ্যে সুস্থ হয়ে স্বাভাবিক হাঁটাচলা করতে পারবে ওই রোগী। কলকাতার সরকারি হাসপাতালে ক্যান্সারের চিকিৎসায় আগে এই ধরনের হয়নি ফলে এই অস্ত্রোপচারকে নজিরবিহীন বলেই মনে করছেন চিকিৎসকরা।

হাসপাতাল সূত্রে জানা যাচ্ছে, পায়ের সমস্যায় ভুগছিলেন মালদার ১৫ বছরের এক কিশোর। মাসখানেক আগে খেলতে গিয়ে পায়ে বল লেগে চোট পেয়েছিল ওই কিশোর। বল লাগার ফলে ওই অংশে রক্ত জমাট বেধে যায়। তারপর থেকেই তার হাঁটাচলার সমস্যা দেখা দেয়। যন্ত্রণা বাড়লে ওই অংশে পরীক্ষা করে দেখা যায় তার পায়ের ফিমার হাড়ের মজ্জায় ক্যান্সার হয়েছে। এর পরে তাকে চিকিৎসার জন্য শম্ভুনাথ পন্ডিত হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

সেখানে চলে এই জটিল অস্ত্রোপচার। প্রথমে শম্ভুনাথ পণ্ডিত হাসপাতালে হাড়ের সেই অংশ কেটে গ্রিন করিডোর করে নিয়ে যাওয়া হয় এসএসকেএম হাসপাতালে। সেখানে হাড়ে রেডিয়েশন দিয়ে ক্যান্সার কোষগুলি নষ্ট করা হয়। এরপর আবার সেই হাড় শম্ভুনাথ পণ্ডিত হাসপাতালে নিয়ে গিয়ে জুড়ে দেওয়া হয়।

এসএসকেএম হাসপাতালের ডিরেক্টর মণিময় বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘এসএসকেএম হাসপাতালে আগে এই ধরনের অস্ত্রোপচার হয়নি।’ ওই কিশোরের পায়ের হাড়ের প্রায় ১১ ইঞ্চি অংশ কাটা হয়েছিল। মেগা প্রস্থেটিক্সের মাধ্যমে জুড়ে দেওয়া হয়।

বন্ধ করুন