বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > Panchayat Election: এবার বাংলার পঞ্চায়েত নির্বাচন, কেন হোয়াটসঅ্যাপে জোর দিচ্ছে আম আদমি পার্টি?

Panchayat Election: এবার বাংলার পঞ্চায়েত নির্বাচন, কেন হোয়াটসঅ্যাপে জোর দিচ্ছে আম আদমি পার্টি?

অরবিন্দ কেজরিওয়াল।

জেলার প্রতিটি ব্লকে ৪–৫ জনের একটি হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপ করা হয়েছে। এখন বীরভূম থেকে মেদিনীপুর—জেলায় জেলায় চলছে সেই কাজ। এই গ্রুপের দায়িত্ব আপের সদস্য সংখ্যা বৃদ্ধি করা এবং মানুষের অভাব অভিযোগের কথা শোনা। ব্লকের দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তি সমস্ত তথ্য মহকুমায় এবং সেখান থেকে জেলা হয়ে পৌঁছে যাবে কলকাতায়।

এবার বাংলার পঞ্চায়েত নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে একটা জায়গা করতে চায় অরবিন্দ কেজরিওয়ালের আম আদমি পার্টি। ইতিমধ্যেই এই রাজ্যে পার্টি অফিস খুলে ফেলেছে। এমনকী জেলায় জেলায় প্রার্থী দেওয়ার সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত। তবে সবটাই নির্ভর করছে দলের সংগঠনের উপর। মোটামুটি ধরা হয়েছে উত্তরবঙ্গের জেলাগুলিতে প্রার্থী দেবে তারা। আর দক্ষিণবঙ্গে চেষ্টা করা হবে। ত্রিস্তর পঞ্চায়েত নির্বাচনকেই টার্গেট করে আম আদমি পার্টি হোয়াটসঅ্যাপ নম্বর নিয়ে আসছে বলে সূত্রের খবর।

বিষয়টি ঠিক কী ঘটছে?‌ সূত্রের খবর, আম আদমি পার্টি উত্তরবঙ্গের জেলা মালদা, দুই দিনাজপুর–সহ কয়েকটি জায়গায় প্রার্থী দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। আর হোয়াটসঅ্যাপ নম্বরের মাধ্যমে সদস্য সংখ্যা বাড়িয়ে সংগঠন মজবুত করা হবে। তারপর ধীরে ধীরে মুর্শিদাবাদ, নদিয়া, বীরভূম, মেদিনীপুর, বাঁকুড়ার মতো জেলায় আম আদমি পার্টি প্রার্থী দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেবে। ইতিমধ্যেই জেলায় জেলায় শুরু হয়েছে সদস্য সংগ্রহ অভিযান। দিলীপ–শুভেন্দুর গড় দুই মেদিনীপুরে যথেষ্ট সাড়াও পাচ্ছেন আপের নেতৃত্বরা।

আর কী জানা যাচ্ছে?‌ সূত্রের খবর, জেলার প্রতিটি ব্লকে ৪–৫ জনের একটি হোয়াটস অ্যাপ গ্রুপ করা হয়েছে। এখন বীরভূম থেকে মেদিনীপুর—জেলায় জেলায় চলছে সেই কাজ। এই গ্রুপের দায়িত্ব আপের সদস্য সংখ্যা বৃদ্ধি করা এবং মানুষের অভাব অভিযোগের কথা শোনা। তারপর ব্লকের দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তি ব্লকের সমস্ত তথ্য মহকুমায় এবং সেখান থেকে জেলা হয়ে পৌঁছে যাবে কলকাতায়। বেশিরভাগটাই হচ্ছে হোয়াটস অ্যাপে।

ঠিক কী বলছে আপ?‌ নামপ্রকাশে অনিচ্ছে আপের এক শীর্ষনেতার কথায়, ‘এই রাজ্যে আমাদের এখনও কোনও শক্তিশালী সংগঠন নেই। অযথা অন্যদল থেকে আসা কর্মীদের প্রকাশ্যে নিয়ে আসার অর্থ টার্গেটের মুখে ফেলে দেওয়া। তাই বেশিরভাগ প্রক্রিয়াটাই গোপনে করা হচ্ছে। সময় এলেই সবটা প্রকাশ্যে আনা হবে।’ এখন সমগ্র কর্মসূচিকে আরও সন্তর্পণে করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে টিম কেজরিওয়াল।

বন্ধ করুন