রবিবার বিজেপির মঞ্চের সামনে বড় বড় হরফে লেখা, আর নয় অন্যায়।
রবিবার বিজেপির মঞ্চের সামনে বড় বড় হরফে লেখা, আর নয় অন্যায়।

শুরু হল বিজেপির ‘আর নয় অন্যায়’, পুরভোটের মুখে সেই মিস কলেই ফিরলেন দিলীপ ঘোষরা

  • এদিন শাহ বলেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে রাজ্যের মানুষ চিনে ফেলেছেন। ফলে আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনে তাঁর আর রক্ষা নেই।

পুরভোটের মুখে রাজ্যের বিজেপি কর্মীদের চাঙ্গা করতে অমিত শাহের হাত দিয়ে নতুন কর্মসূচির সূচনা করল রাজ্য বিজেপি। ‘আর নয় অন্যায়’ নামে এই কর্মসূচিতে বাড়াবাড়ি গিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকারের অপশাসনের দিকগুলি তুলে ধরবেন বিজেপি কর্মীরা। সঙ্গে একটি নম্বরে মিস কল দিয়ে রাজ্য সরকারের প্রতি নিজের অনাস্থার কথা নথিভুক্ত করতে পারবেন সাধারণ মানুষ।

এদিন শাহ বলেন, আর নয় অন্যায় অভিযানে বাড়াবাড়ি গিয়ে মানুষের কাছে তৃণমূলের অপশাসন সম্পর্কে তথ্য তুলে ধরতে হবে। শত বাধা এলেও থেমে থাকলে চলবে না। এই নিয়ে উপস্থিত জনতাকে হিন্দিতে কয়েকটি স্লোগানও মুখস্ত করান শাহ। পাশাপাশি বলেন, এবার থেকে দিদিকে বলোকে ফোন করে বলবেন ‘আর নয় অন্যায়’।

এদিন শাহ বলেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে রাজ্যের মানুষ চিনে ফেলেছেন। ফলে আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনে তাঁর আর রক্ষা নেই। শাহ বলেন, এবার থেকে রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে নিজের অনাস্থা জানিয়ে মিস কল দিতে পারবে সাধারণ মানুষ। সেজন্য একটি নম্বর প্রকাশ করেন তিনি।

বিশেষজ্ঞদের মতে, ‘দিদিকে বলো’-র মাধ্যমে যখন সরকার ও দলের বিরুদ্ধে জনগণের ক্ষোভ প্রশমণে মরিয়া তৃণমূল তখন ‘আর নয় অন্যায়’-এর মাধ্যমে সেই ক্ষোভকে খুঁচিয়ে তুলতে চায় বিজেপি। যে ক্ষোভের ওপর নির্ভর করে ২০২১-এ পশ্চিমবঙ্গের রাজ্যপাট দখল করতে চায় তারা। তারই সূচনা হল রবিবার। এই কর্মসূচির ফলে পুরভোটে বিজেপির তেমন কোনও লাভ হবে না বলেই মত তাঁদের।



বন্ধ করুন