বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > সাদা খাতা জমা দিয়ে পেয়েছে ৫৩, SSC দুর্নীতির ফরেন্সিক রিপোর্ট দেখে হতবাক বিচারপতি

সাদা খাতা জমা দিয়ে পেয়েছে ৫৩, SSC দুর্নীতির ফরেন্সিক রিপোর্ট দেখে হতবাক বিচারপতি

বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়। 

এদিন আদালতে ৪টি ফরেন্সিক রিপোর্ট পেশ করে সিবিআই। SSC-র ডেটা সেন্টার থেকে উদ্ধার হার্ড ডিস্ক থেকে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে তৈরি হয়েছে এই রিপোর্ট। তাতে দেখা যাচ্ছে, গ্রুপ সিতে ৩,৪৮১ জন, গ্রুপ ডিতে ২,৮২৩ জনের নম্বর বদল করা হয়েছে।

SSC নিয়োগ দুর্নীতির তদন্তে ‘সাদা খাতা জমা দেওয়ার মজা’ টের পাওয়া গেল আদালতে CBI-এর জমা দেওয়া ফরেন্সিক রিপোর্টে। রিপোর্টে জানানো হয়েছে, SSC-র ডেটা সেন্টারের ফরেন্সিক পরীক্ষায় উঠে এসেছে চাঞ্চল্যকর তথ্য। সাদা খাতা জমা দেওয়ায় যে ০ পেয়েছিল, তার নম্বর বদলে করে দেওয়া হয়েছে ৫৩। এর পরই বিস্ফোরক মন্তব্য করেন বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়। বলেন, এই সমস্ত প্রার্থীরা যদি নিজে থেকে পদত্যাগ না করেন তাহলে কড়া পদক্ষেপ করবে আদালত। ভবিষ্যতে এই প্রার্থীরা যাতে আর কোনও সরকারি চাকরি করতে না পারেন তার নির্দেশ দেব আমি। একই সঙ্গে এদিন ফের সিবিআইকে সুবীরেশ ভট্টাচার্যকে হেফাজতে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের নির্দেশ দিয়েছেন বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায়।

এদিন আদালতে ৪টি ফরেন্সিক রিপোর্ট পেশ করে সিবিআই। SSC-র ডেটা সেন্টার থেকে উদ্ধার হার্ড ডিস্ক থেকে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে তৈরি হয়েছে এই রিপোর্ট। তাতে দেখা যাচ্ছে, গ্রুপ সিতে ৩,৪৮১ জন, গ্রুপ ডিতে ২,৮২৩ জনের নম্বর বদল করা হয়েছে। একাদশ – দ্বাদশ শিক্ষক নিয়োগে ৯০৭ জনের নম্বর বদল করা হয়েছে। যাদের মধ্যে ৬৩১ জনের নাম প্যানেলে রয়েছে। নবম – দশমে নম্বর বদলানো হয়েছে ৯৫১ জনের। এছাড়া এই সমস্ত প্রার্থীদের উত্তরপত্রের কপি উদ্ধার করেছে CBI. সেখানে দেখা যাচ্ছে কেউ পরীক্ষায় জমা দিয়েছে সাদা OMR শিট, অথচ পর্ষদের সার্ভারে তার প্রাপ্ত নম্বর ৫৩।

এই রিপোর্ট দেখে বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায় বলেন ‘আমি শকড’। এর পর তিনি অযোগ্যভাবে চাকরি প্রাপ্তদের সতর্ক করে বলেন, ‘বেআইনিভাবে চাকরি পাওয়া সমস্ত প্রার্থীরা চাকরি হারাবেন। তাঁরা যদি নিজের থেকে চাকরিতে পদত্যাগ করেন তো ভালো। নইলে আদালত তাদের বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নেবে। এই প্রার্থীরা যাতে আর কোনও দিন কোনও সরকারি না পান তার ব্যবস্থা করব।’

একই সঙ্গে এদিন সুবীরেশ ভট্টাচার্যকে হেফাজতে নিয়ে জেরা করতে সিবিআইকে নির্দেশ দেন বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায়। বলেন, ‘কার নির্দেশে সুবীরেশবাবু নম্বরে কারচুপি করেছেন তা সিবিআইকে জানতে হবে।’ সঙ্গে তিনি বলেন, যারা শূন্য পেয়েও চাকরি করছে তাদের নাম আদালতকে জানাতে হবে সিবিআইয়ের তদন্তকারীদের।

 

বন্ধ করুন