বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > বিজেপির রাজ্য সভাপতির নববর্ষের শুভেচ্ছা নিয়ে বিতর্ক, জোর চর্চা শুরু
দিলীপ ঘোষ। ফাইল ছবি (HT_PRINT)
দিলীপ ঘোষ। ফাইল ছবি (HT_PRINT)

বিজেপির রাজ্য সভাপতির নববর্ষের শুভেচ্ছা নিয়ে বিতর্ক, জোর চর্চা শুরু

  • নববর্ষেও তিনি জুড়ে দিলেন হিন্দুত্বের তকমা। ফেসবুকে নববর্ষের শুভেচ্ছা জানিয়ে একটি পোস্ট করেছেন দিলীপ ঘোষ।

আজ পয়লা বৈশাখ। বাংলার নতুন বছর। আর এই নববর্ষের শুভেচ্ছা জানাতে গিয়েও বিতর্ক উসকে দিলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। নববর্ষেও তিনি জুড়ে দিলেন হিন্দুত্বের তকমা। ফেসবুকে নববর্ষের শুভেচ্ছা জানিয়ে একটি পোস্ট করেছেন দিলীপ ঘোষ। সেখানে লেখা, ‘‌সবাইকে জানাই হিন্দু নববর্ষের শুভেচ্ছা।’‌ ব্যাস, মুহূর্তে বিতর্ক তৈরি হয়ে গেল। প্রশ্ন উঠতে শুরু করল, নববর্ষ কী শুধু হিন্দুদের?‌ তিনি এই বার্তার সঙ্গে একটি ভিডিও আপলোড করেন। এই বিষয়ে দিলীপ ঘোষ জানান, ‘‌আমি বিক্রম সংবৎ অনুসারে হিন্দু নববর্ষের শুভেচ্ছা জানিয়েছি। বাংলা নববর্ষের শুভেচ্ছা জানাইনি।’‌

ফেসবুক পেজে পোস্ট করা ভিডিও বার্তায় দিলীপ ঘোষকে বলতে শোনা গিয়েছে, ‘‌বিশ্বের সবচেয়ে প্রাচীনতম বিক্রম সংবৎ–এর দিন শুরু হচ্ছে। এটা ভারতবর্ষের সংস্কৃতির পরিচায়ক। আমরাই বিশ্বের মধ্যে প্রথম সাল গণনা শুরু করেছিলাম। কলিযুগাব্দ এবং তার পর বিক্রম সংবৎ। এটি ভারতবর্ষের পৌরাণিক এবং ঐতিহাসিকভাবে খুবই গুরুত্বপূর্ণ। ভগবান রামের রাজ্যাভিষেক হয়েছে এই দিনে। তাই সমস্ত ভারতবাসী এবং তথা বিশ্ববাসীকে একজন গর্বিত ভারতীয় হিসাবে হিন্দু নববর্ষের শুভেচ্ছা জানাই।’‌

ভিডিও বার্তার পর প্রশ্ন উঠছে, পয়লা বৈশাখ কি সেই অর্থে কেবলমাত্র হিন্দুদের? আর এটাই কি বিশ্বের সবচেয়ে প্রাচীন সাল গণনার হিসেব? বাংলা পঞ্জিকা মতে পয়লা বৈশাখ ১৫ এপ্রিল। কোনও কোনও রাজ্যে আবার ১৩ বা ১৪ এপ্রিল আঞ্চলিক নববর্ষ পালন শুরু হয়ে গিয়েছে। সৌর বছরের প্রথম দিন হিসাবে দেশের বাকি রাজ্য অসম, কেরল, মণিপুর, নেপাল, ওড়িশা, পাঞ্জাব, তামিলনাড়ু ও ত্রিপুরাতেও নিজেদের নিয়মে পালিত হয় নববর্ষ। যা ভারতীয় সংস্কৃতিরই অঙ্গ। কিন্তু ধর্মীয় যোগসূত্র খুঁজতে চাওয়া নিয়ে বিতর্ক রয়েছে।

এই নববর্ষে মেতে ওঠেন সবাই। এখানে কোন জাত–ধর্মের বিভেদ থাকে না। সেখানে দিলীপ ঘোষের পোস্টের পর প্রশ্ন উঠছে, বিজেপি লাইন মেনেই কি নববর্ষের সঙ্গেও হিন্দুত্বের যোগসূত্র স্থাপন করতে চাইছেন রাজ্য বিজেপি সভাপতি?

বন্ধ করুন