বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > খাবারের থালা নিয়ে ফেসবুক লাইভে মদন মিত্র, চোখে রোদ চশমায় অন্য মেজাজে
ফুরফুরে মেজাজে দেখা গেল মদন মিত্রকে।
ফুরফুরে মেজাজে দেখা গেল মদন মিত্রকে।

খাবারের থালা নিয়ে ফেসবুক লাইভে মদন মিত্র, চোখে রোদ চশমায় অন্য মেজাজে

  • যিনি এবার নিজের হাতে থালা সাজিয়ে খাবার তুলে দিলেন। সেখানে ছিল মিষ্টি মুখের ব্যবস্থাও।

দলের সুপ্রিমোর ভর্ৎসনার মুখে পড়েছিলেন ফেসবুক লাইভে নানা আলটপকা মন্তব্য করে। সদ্য বাড়িতেও আগুন লেগেছিল। কিন্তু তিনি বরাবরই রঙিন। তাই আবার ফেসবুক লাইভে তাঁকে দেখা গেল। হ্যাঁ, তিনি কামারহাটির বিধায়ক মদন মিত্র। যিনি এবার নিজের হাতে থালা সাজিয়ে খাবার তুলে দিলেন। সেখানে ছিল মিষ্টি মুখের ব্যবস্থাও। এই বিষয়ে মদন মিত্র বলেন, ‘‌বাঙালির হৃদয়ে পান্তুয়া। তাই এই মিষ্টিই বেছে নিয়েছি।’‌ চোখে সেই মানানসই রোদ চশমা। গায়ে ফুল–হাতা শার্ট। তার ওপরে সাদা জ্যাকেট। বুধবার দুপুরে ফের লাইভে এলেন মদন মিত্র। হাজির হয়েছিলেন টালিগঞ্জের পঞ্চাননতলায়। নিজেই থালায় সাজিয়ে দিলেন ভাত, ডাল, বাঁধাকপির তরকারি, চাটনি আর পান্তুয়া।

প্রায় একমাস ধরে এই এলাকায় তৃণমূল কংগ্রেসের যুব, ছাত্র পরিষদ পথচলতি মানুষদের খাবার খাওয়াচ্ছেন। আর তাতেই হাত লাগাতেই হাজির হয়েছিলেন মদন মিত্র। এই খাবার বিতরণ অনুষ্ঠানে তিনিও যে সাহায্য করতে চান সোশ্যাল মিডিয়া লাইভে এসে তা জানিয়েছেন মদন মিত্র। তবে লাইভে অল্প সময় ছিলেন কামারহাটির বিধায়ক৷ ছিলেন মাত্র ৪ মিনিট ৩৩ সেকেন্ড৷ আর তাতেই ১ লাখ ১০ হাজার মানুষের কাছে পৌছে গিয়েছেন তিনি।

উল্লেখ্য, গত সোমবার ৭ জুন কামারহাটি পৌরসভাতে সাংসদ অধ্যাপক সৌগত রায়, বরাহনগর বিধানসভা কেন্দ্রের বিধায়ক তাপস রায়, কামারহাটির বিধায়ক মদন মিত্র এবং কামারহাটি পৌরসভার পৌর প্রশাসক গোপাল সাহা সহ ৩৫ জন পুর প্রশাসক পৌরসভার অন্তর্গত ৩৫টি ওয়ার্ডের উন্নয়ন নিয়ে আলোচনা হয়। কামারহাটির পুর প্রশাসক করা হোক তাকে এই বিষয়ে ফেসবুক লাইভ করেন মদন মিত্র। যা নিয়ে চরম বিতর্ক তৈরি হয়।

বন্ধ করুন