বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > Narendrapur: বাইকে করে মহিলাকে অপহরণের চেষ্টা, সিআইডি তদন্তের নির্দেশ আদালতের
মহিলাকে অপহরণের চেষ্টার অভিযোগ। প্রতীকী ছবি।
মহিলাকে অপহরণের চেষ্টার অভিযোগ। প্রতীকী ছবি।

Narendrapur: বাইকে করে মহিলাকে অপহরণের চেষ্টা, সিআইডি তদন্তের নির্দেশ আদালতের

  • ঘটনার পরই তিনি নরেন্দ্রপুর থানায় দুষ্কৃতীদের বিরুদ্ধে অপহরণের চেষ্টা, মারধর এবং হুমকির অভিযোগ জানিয়েছিলেন। তা সত্ত্বেও পুলিশ দুষ্কৃতীদের বিরুদ্ধে উপযুক্ত ব্যবস্থা করেনি বলেই অভিযোগ মহিলা। তার আইনজীবী আদালতে পুলিশি নিষ্ক্রিয়তার অভিযোগ করেন।

নরেন্দ্রপুরের এক মহিলাকে বারবার অপহরণের চেষ্টা এবং হুমকি দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। ইতিমধ্যেই এ নিয়ে নরেন্দ্রপুর থানায় লিখিত অভিযোগ জানিয়েছেন ওই মহিলা। কিন্তু তারপরে পুলিশ অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে কোনও ব্যবস্থা না নেওয়ায় কলকাতা হাইকোর্টের দ্বারস্থ হয়েছিলেন ওই মহিলা। সেই মামলায় ঘটনার সিআইডিকে তদন্তের দায়িত্ব দিয়েছেন কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি রাজশেখর মান্থা। এছাড়াও, নরেন্দ্রপুর থানার তদন্তকারী অফিসারের বিরুদ্ধে বিভাগীয় পদক্ষেপ করার নির্দেশ দিয়েছেন।

মামলার বয়ান অনুযায়ী, ঘটনাটি গত ৩ মার্চের। মহিলার অভিযোগ, তিনি পাটুলি থেকে কাজ সেরে নরেন্দ্রপুরের বাড়িতে ফিরছিলেন। সেই সময় কয়েক জন দুষ্কৃতী তার বাড়ি ফেরার পথে প্রায় ৩ থেকে ৪ কিলোমিটার পথ পর্যন্ত পিছু ধাওয়া করেছিল। মহিলারা আরও অভিযোগ, শুধু তাই নয়, এর পরেও তাকে বেশ কয়েকবার অপহরণের চেষ্টা করেছে দুষ্কৃতীরা। জোর করে তাকে বাইকে তুলে নিয়ে যাওয়ারও চেষ্টা করা হয়েছে এমনকি তাকে হুমকিও দিয়েছে দুষ্কৃতীরা। ঘটনার পরই তিনি নরেন্দ্রপুর থানায় দুষ্কৃতীদের বিরুদ্ধে অপহরণের চেষ্টা, মারধর এবং হুমকির অভিযোগ জানিয়েছিলেন। তা সত্ত্বেও পুলিশ দুষ্কৃতীদের বিরুদ্ধে উপযুক্ত ব্যবস্থা করেনি বলেই অভিযোগ মহিলা। তার আইনজীবী আদালতে পুলিশি নিষ্ক্রিয়তার অভিযোগ করেন। এছাড়া, পুলিশের বিরুদ্ধে অপরাধীদের আড়াল করার অভিযোগও তোলা হয়।

বেশ কয়েকদিন ধরেই মামলাটি চলছিল কলকাতা হাই কোর্টে । আদালত আগেই পুলিশের কাছে থেকে তদন্তের রিপোর্ট চেয়ে পাঠিয়েছিল। কিন্তু সেই রিপোর্ট দেখে অসন্তোষ প্রকাশ করেন বিচারপতি। পুলিশের তদন্তে একাধিক গাফিলতি খুঁজে পাওয়ায় কার্যত হাইকোর্টের ভর্ৎসনার মুখে পড়তে হয় তদন্তকারী অফিসারকে। গতকাল এই ঘটনায় সিআইডিকে তদন্তভার দেওয়ার পাশাপাশি রাজ্য পুলিশের ডিজির কাছে রিপোর্ট চেয়ে পাঠিয়েছে হাইকোর্ট।

বন্ধ করুন