বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > Baguiati Double Murder: বাগুইআটি জোড়া খুন কাণ্ডে গ্রেফতার আরও এক, নয়াদিল্লিতে পাকড়াও করল সিআইডি
বাগুইআটি জোড়া খুন দুই ছাত্র অতনু দে–অভিষেক নস্কর

Baguiati Double Murder: বাগুইআটি জোড়া খুন কাণ্ডে গ্রেফতার আরও এক, নয়াদিল্লিতে পাকড়াও করল সিআইডি

  • গত ৯ সেপ্টেম্বর হাওড়া স্টেশন থেকে মূল অভিযুক্ত সত্যেন্দ্র চৌধুরীকে গ্রেফতার করা হয়েছিল। আর আটদিনের মাথায় হত্যাকারীকে গ্রেফতার করল সিআইডি। এই কানহাইয়া কুমারই সুপারি কিলার বলে মনে করছেন গোয়ান্দারা। পুলিশের জেরায় জানা যায়, অপহরণের দিনই ওই দুই কিশোরকে ‘খুন’ করা হয়েছিল। 

বাগুইআটি জোড়া খুন কাণ্ডে নয়া মোড়। এই হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় আরও একজনকে গ্রেফতার করল সিআডি। শুক্রবার রাতে নয়াদিল্লি থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে ওই ব্যক্তিকে। সিআইডি সূত্রে খবর, ধৃতের নাম কানহাইয়া কুমার। এই হত্যাকাণ্ডে মূলচক্রী সত্যেন্দ্র চৌধুরী গ্রেফতার হওয়ার আটদিনের মাথায় দুই মাধ্যমিক ছাত্রের হত্যাকারীকে গ্রেফতার করল সিআইডি। গ্রেফতার করে তাকে ট্রানজ়িট রিমান্ডে কলকাতায় নিয়ে আসার প্রস্তুতি করছে সিআইডি। আজ, শনিবার নয়াদিল্লির আদালতে ধৃতকে পেশ করবে সিআইডি। রিমান্ডে পেলেই নিয়ে আসা হবে কলকাতায়।

ঠিক কী ঘটেছিল বাগুইআটিতে?‌ বাগুইআটি জোড়া ছাত্র খুনের ঘটনায় আলোড়ন পড়ে গিয়েছিল রাজ্যে। পুলিশের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন ওঠায় আইসি–কে সাসপেন্ড হতে হয়েছিল। আর তদন্তভার দেওয়া হয় সিআইডি’‌র হাতে। খোদ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও পুলিশের ভূমিকা নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেছিলেন। সাসপেন্ড করা হয়েছিল বাগুইআটি থানার আইসি এবং তদন্তকারী আধিকারিককে। সম্প্রতি বিধাননগর পুলিশের কমিশনারকেও সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। পিসতুতো ভাই অভিষেক নস্করকে সঙ্গে নিয়ে প্রতিবেশী জামাইবাবু সত্যেন্দ্র চৌধুরীর সঙ্গে বেরিয়েছিল অতনু দে। এরপরই ১ কোটি টাকা মুক্তিপণ চেয়ে বার্তা যায় অতনুর বাবার কাছে। ৬ সেপ্টেম্বর উদ্ধার হয় দুই কিশোরের দেহ।

ঠিক কী জানতে পেরেছে সিআইডি?‌ বাগুইআটি হত্যাকাণ্ডের ঘটনার তদন্তে নেমে ইতিমধ্যেই কয়েকজনকে গ্রেফতার করেছে সিআইডি। এই ঘটনার শিকড় খুঁজে বের করতে নয়াদিল্লি পর্যন্ত পাড়ি দেন সিআইডির গোয়েন্দারা। সেখানে সতেন্দ্র চৌধুরীর সঙ্গীকে নয়াদিল্লি থেকে গ্রেফতার করেছে সিআইডি। সূত্রের খবর, বাসন্তী হাইওয়েতে গাড়ির মধ্যে বাগুইআটির দুই ছাত্রকে খুন করেছিল ধৃত কানহাইয়া কুমার। ধৃতকে রিমান্ড ট্রানজিশনে কলকাতায় আনার ব্যবস্থা করা হচ্ছে।

উল্লেখ্য, গত ৯ সেপ্টেম্বর হাওড়া স্টেশন থেকে মূল অভিযুক্ত সত্যেন্দ্র চৌধুরীকে গ্রেফতার করা হয়েছিল। আর আটদিনের মাথায় হত্যাকারীকে গ্রেফতার করল সিআইডি। এই কানহাইয়া কুমারই সুপারি কিলার বলে মনে করছেন গোয়ান্দারা। পুলিশের জেরায় জানা যায়, অপহরণের দিনই ওই দুই কিশোরকে ‘খুন’ করা হয়েছিল। পুলিশকে বিভ্রান্ত করতেই মুক্তিপণের দাবি জানানো হয়েছিল।

বন্ধ করুন