বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > Bangkok-Kolkata Flight Fight Incident: পুলিশের তলবে সাড়া দিলেন না কলকাতাগামী বিমানে যাত্রী পেটানো দু'জন, কী হবে এবার?

Bangkok-Kolkata Flight Fight Incident: পুলিশের তলবে সাড়া দিলেন না কলকাতাগামী বিমানে যাত্রী পেটানো দু'জন, কী হবে এবার?

কলকাতাগামী ব্যাংককের উড়ানে মাঝ আকাশেই মারামারি যাত্রীদের

বিমানবন্দর থানার পুলিশ দুই অভিযুক্তকে তলব করেছিল সিআরপিসির ৪১এ ধারার অধীনে। অভিযুক্ত যাত্রীদের একজন থাকেন অসম অপরজন খিদিরপুরেই। তবে তলবে সাড়া দেননি কেউই। এই আবহে এবার আদালতের দ্বারস্থ হয়ে দুই যাত্রীর নামে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করা হবে কি না, তা নিয়ে জল্পনা শুরু হয়েছে।

এক যাত্রী টেকঅফের আগে নিজের আসন সোজা করতে অস্বীকার করেন। এর জেরে বিমানের টেকঅফে বিলম্ব ঘটে। আর এর জেরেই ব্যাংকক থেকে কলকাতাগামী এক আন্তর্জাতিক উড়ান সংস্থার বিমানে তুমুল হট্টোগোল, মারামারির ঘটনা ঘটেছিল কয়েকদিন আগেই। এই ঘটনায় বিমানবন্দর থানার পুলিশ দুই অভিযুক্তকে তলব করেছিল সিআরপিসির ৪১এ ধারার অধীনে। অভিযুক্ত যাত্রীদের একজন থাকেন অসম অপরজন খিদিরপুরেই। তবে তলবে সাড়া দেননি কেউই। এই আবহে এবার আদালতের দ্বারস্থ হয়ে দুই যাত্রীর নামে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করা হবে কি না, তা নিয়ে জল্পনা শুরু হয়েছে। (আরও পড়ুন: 'আমরা যেন সবাই মরে যাই', টেক-অফের আগে যাত্রীদের পাঠানো হল 'প্লেন ক্র্যাশ'-এর ছবি)

জানা গিয়েছে, থাই স্মাইল এয়ারের বিমানে যাত্রীদের মধ্যে মারামারির এই ঘটনাটি ঘটেছিল গত ডিসেম্বরের শেষ সপ্তাহে। সেই ঘটনার ভিডিয়ো ভাইরাল হয়েছিল সোশ্যাল মিডিয়ায়। ভাইরাল ভিডিয়োতে দেখা গিয়েছে একজন বিমান সেবিকা দুই জনকে হাতাহাতি থেকে বিরত থাকতে অনুরোধ করছেন। পাবলিক অ্যানাউন্সমেন্ট সিস্টেম থেকেও 'প্লিজ স্টপ' বলতে শোনা যায়। তবে অন্যান্য যাত্রী এবং বিমানকর্মীদের উদ্বেগ বাড়িয়ে দুই ব্যক্তির মারামারি অব্যাহত থাকে।

জানা গিয়েছে, ৩৭সি আসনের যাত্রী নিজের আসন সোজা না করায় বিমান ছাড়তে দেরি হচ্ছিল। এরপর ৪১সি আসনের যাত্রী উঠে এসে ৩৭সি-র যাত্রীর সঙ্গে বচসায় জড়ান। সেটাই মারামারিতে পরিণত হয়। ভাইরাল ভিডিয়োতে দেখা যায়, দুই ব্যক্তি বচসায় জড়িয়েছেন। একজন বিমানসেবিকা এসে তাঁদের শান্ত করার চেষ্টা করছেন। দুই ব্যক্তির মধ্যে একজনকে বলতে শোনা যায়, 'হাত নীচে কর'। মৌখিক ঝামেলা মুহূর্তের মধ্যে হাতাহাতিতে পরিণত হয়। দেখা যায়, ঝামেলায় জড়ানো এক ব্যক্তি নিজের চশমা খুললেন। এরপরই তিনি অপর ব্যক্তিকে চড় মারতে শুরু করেন। এদিকে অপর ব্যক্তিকে পালটা মার দিতে দেখা যায়নি। তিনি শুধু নিজের মুখ রক্ষা করছিলেন সেই চড়ের থেকে। বিমানের অন্যান্য যাত্রী এবং বিমানকর্মীরা সেই ব্যক্তিকে শান্ত হওয়ার জন্য অনুরোধ করেন। শেষ পর্যন্ত এক বিমানসেবিকা দুই জনকে আলাদা করতে সমর্থ হন।

এই আবহে বিধাননগর পুলিশ কমিশনারেটের এক ঊর্ধ্বতন কর্তা সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন, ঘটনায় যুক্ত দুই অভিযুক্তকে নোটিশ পাঠিয়ে হাজিরা দিতে বলে হয়েছিল। তবে তলবে সাড়া দেননি কেউই। তাঁরা নোটিশের কোনও জবাবও পাঠাননি। এই আবহে আইন মেনে আরও দুটি নোটিশ পাঠানো হবে অভিযুক্তদের। পুলিশ কর্তা জানান, পরবর্তী দুই নোটিশেও যদি অভিযুক্তরা সাড়া না দেন, তাহলে আইন মেনে আদালতে যেতে বাধ্য হবেন তাঁরা।

বন্ধ করুন