বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > ‘ভাইপো’ নিয়ে আপত্তির জের, কুণালের পুরনো ভিডিয়ো পোস্ট করে পালটা চাল বিজেপি-র
বিজেপি-র টুইট করা পুরনো ভিডিয়োয় স্বয়ং মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে মন্তব্য করতে দেখা গিয়েছে কুণাল ঘোষকে।

‘ভাইপো’ নিয়ে আপত্তির জের, কুণালের পুরনো ভিডিয়ো পোস্ট করে পালটা চাল বিজেপি-র

  • পুরনো ভিডিয়োয় স্বয়ং তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে মন্তব্য করতে দেখা গিয়েছে কুণাল ঘোষকে।

‘ভাইপো’ শব্দ উচ্চারণ নিয়ে বিজেপি-র বিরুদ্ধে তোপ দাগা তৃণমূল নেতাকে আক্রমণের উদ্দেশে পুরনো ভিডিয়োর সাহায্য নিল পদ্ম শিবির। সেই ভিডিয়োয় স্বয়ং তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে মন্তব্য করতে দেখা গিয়েছে কুণাল ঘোষকে।

গত শনিবার পূর্ব মেদিনীপুরের রামনগরে জনৈক সাংসদ ‘ভাইপো’-র বিরুদ্ধে একগুচ্ছ অভিযোগ করেন বিজেপির পর্যবেক্ষক কৈলাস বিজয়বর্গীয়। নামোচ্চারণ এড়িয়ে সর্বনাম ব্যবহারের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানিয়ে পাল্টা আঘাত হানে ঘাসফুল শিবির। এবার সেই আক্রমণের জবাব দিতে কুণাল ঘোষের একটি পুরনো ভিডিয়ো সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রকাশ করেছেন বিজেপি নেতা অমিত মালব্য।

রবিবার রাতে মালব্য এবং পশ্চিমবঙ্গ বিজেপি-র তরফে কুণাল ঘোষকে নিশানা করে একাধিক ভিডিয়ো টুইট করা হয়। সেই সব ভিডিয়োতে মমতার বিরুদ্ধে কুণালের কটুক্তি শোনা গিয়েছে। বোঝাগিয়েছে, সারদা চিটফান্ড কাণ্ডে বিচারবিভাগীয় হেফাজতে কারাবাসের সময় ওই মন্তব্য করেছিলেন প্রাক্তন তৃণমূল সাংসদ। 

একটি ভিডিয়োতে কুণাল সাংবাদিকদের বলেছিলেন, ‘সারদা মিডিয়া সূত্রে যদি কেউ সবচেয়ে লাভবান হয়ে থাকেন, তিনি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।’

টুইটারের ভিডিয়ো পোস্ট করার সময় মালব্য লিখেছেন, ‘তৃণমূলের চিটফান্ড কেলেঙ্কারিতে অভিযুক্ত মুখপাত্র কুণাল ঘোষ, যাঁর উপর ভাইপোকে রক্ষা করার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে, তিনি ২০১৪ সালের সেপ্টেম্বর মাসে এই কথা বলেছিলেন। তিনি বলেছিলেন, সারদা কেলেঙ্কারি থেকে যদি কেউ সবচেয়ে লাভবান হয়ে থাকেন, তিনি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। অভিযোগ সত্যি কি না, তা পিসিই বলতে পারেন।’

পাশাপাশি বঙ্গ বিজেপি-র তরফে টুইট করা হয়, ‘তৃণমূলের পরবর্তী সাংবাদিক সম্মেলনে সারদা কেলেঙ্কারি নিয়ে তাঁর অবস্থান সম্পর্কে ফের বলা উচিত কুণাল ঘোষের। অথবা সারদা সূত্রে সবচেয়ে বড় উপকৃত সম্পর্কেও তিনি আলোকপাত করতে পারেন। বা তাঁকে কেন জেলে যেতে হয়েছিল, তা-ও তিনি ব্যাখ্যা করতে পারেন। ভাইপো ছেড়ে বরং পিসিকে এবার বাঁচান।’

বিজেপি শিবিরের এই আক্রমণের পালটা হিসেবে এবার মুকুল রায়ের পুরনো কিছু ভিডিয়ো টুইট করেছেন কুণাল ঘোষ। সেই সব ভিডিয়োতে তৃণমূলের জনসভায় বিজেপি-র বিরুদ্ধে আক্রমণাত্মক বিবৃতি দিতে দেখা গিয়েছে প্রাক্তন তৃণমূল সংগঠক অধুনা বিজেপি নেতা মুকুল রায়কে। 

তৃণমূলের অভিযোগর জবাবে গতকাল বঙ্গ বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেন, ‘নাম নেব কেন? নাম ঠিক সময়ই নেবে যারা নেওয়ার। নাম প্রকাশ্যে আসবে। সেটা বেশি দেরি নেই। যাদেরকে সবাই চেনে তাদের নাম নেওয়ার দরকার নেই। যেমন আমরা যদি বলি ‘দিদি’। সবাই বুঝে যান কোন দিদি। ভাইপো বললে বুঝে যান কোন ভাইপো, কার ভাইপো। আমাদের কাজ লোককে বুঝিয়ে দেওয়া, কাকে বলছি।’

বন্ধ করুন