বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > Bratya Basu: ভিডিয়ো পোস্ট করে শিক্ষক নিয়োগে বিতর্ক নিয়ে ব্রাত্যকে নিশানা বিজেপির
ব্রাত্য বসু। ছবি: পিটিআই

Bratya Basu: ভিডিয়ো পোস্ট করে শিক্ষক নিয়োগে বিতর্ক নিয়ে ব্রাত্যকে নিশানা বিজেপির

  • বুধবার বঙ্গ বিজেপির মিডিয়া ইনচার্জ তুষারকান্তি ঘোষ নিজের ফেসবুক পেজে একটি ভিডিয়ো পোস্ট করেন। যেখানে দক্ষিণ দমদম পুরসভার ১৪ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর রাজু সেন শর্মাকে বক্তব্য রাখতে দেখা যায়। কী রয়েছে ভিডিয়োতে?

এসএসসি নিয়োগ বিতর্কে রাজ্যের প্রাক্তন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়কে ইডি গ্রেফতার করার পরেই অস্বস্তিতে রয়েছে রাজ্যের শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেস। এবার রাজ্যের বর্তমান শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসুর দিকে অভিযোগের আঙুল তুলল বিজেপি। গত বুধবার ফেসবুক পেজে দমদম পুরসভা এলাকায় তৃণমূল কংগ্রেসের একটি পুরনো ভিডিয়ো প্রকাশ করে চাকরি দেওয়া নিয়ে ব্রাত্য বসুর বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলেছে বিজেপি। যদিও একটি পুরনো ভিডিয়ো দিয়ে বিজেপি জলখোলা করার চেষ্টা করছে বলে পাল্টা দাবি করেছেন শিক্ষামন্ত্রী।

বুধবার বঙ্গ বিজেপির মিডিয়া ইনচার্জ তুষারকান্তি ঘোষ নিজের ফেসবুক পেজে একটি ভিডিয়ো পোস্ট করেন। যেখানে দক্ষিণ দমদম পুরসভার ১৪ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর রাজু সেন শর্মাকে বক্তব্য রাখতে দেখা যায়।

কী রয়েছে ভিডিয়োতে?

ওই ভিডিয়োতে রাজু সেন শর্মাকে বলতে শোনা যায়, ‘আমরা যখন ১০০ জনের প্রাইমারি শিক্ষকের জন্য রিকমেন্ডেশন দিয়েছিলাম তার চেয়েও ১০ গুন বেশি লোক চাকরি পেয়েছিলেন। মাথার উপর মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, ব্রাত্য বসুদের আশীর্বাদ ছিল বলেই তারা চাকরি পেয়েছিলেন।’ এরপরে ব্রাত্য বসুকে বলতে শোনা যায়, ‘শুধুমাত্র তৃণমূলীরাই চাকরি পাবে। কীভাবে চাকরি পাবে? কোথায় পাবে? কেন পাবে সেসব আমি বলব না তবে তৃণমূলের লোকেরাই চাকরি পাবে।’ যদিও এই ভিডিয়োর সত্যতা যাচাই করেন হিন্দুস্তান টাইমস বাংলা।

তবে এই ভিডিয়ো নিয়ে অনর্থক জলঘোলা করা হচ্ছে বলেই দাবি করেছেন ব্রাত্য বসু। তিনি বলেন, ‘যে সময়কার ভিডিয়ো সেই সময় আমি শিক্ষামন্ত্রী ছিলাম না। এ বিষয়টি আদালতে বিচারাধীন। সুতরাং এ নিয়ে আমি কিছু বলবো না। যিনি এই কথাগুলি বলেছেন তিনিই ব্যাখ্যা দিতে পারবেন কাকে? কোথায়? কবে? কীভাবে? চাকরি দেওয়া হয়েছে। অন্যদিকে, রাজু সেন শর্মা দাবি করেছেন, ‘প্রবীর পাল নামে একজন বিজেপিতে গিয়েছিলেন। সেই সময় রাজনৈতিক স্বার্থের জন্য আমি এসব কথা বলেছিলাম। আমাদের মতো রাজনৈতিক নেতাদের অনেক কথাই বলতে হয়।’ আর এই ভিডিয়ো প্রকাশ্যে আসতেই শুরু হয়েছে জোর রাজনৈতিক তরজা।

বন্ধ করুন