বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > গোটা বিধানসভা অধিবেশনে সোয়াবিন মুখে বিজেপি বিধায়ক, টিপ্পনি তৃণমূলের
রায়গঞ্জের বিজেপি বিধায়ক কৃষ্ণ কল্যাণী। ছবি সৌজন্য–এএনআই।
রায়গঞ্জের বিজেপি বিধায়ক কৃষ্ণ কল্যাণী। ছবি সৌজন্য–এএনআই।

গোটা বিধানসভা অধিবেশনে সোয়াবিন মুখে বিজেপি বিধায়ক, টিপ্পনি তৃণমূলের

  • বিজেপি বিধায়ক কি সোয়াবিন কারখানার মালিক? তৃণমূল কংগ্রেসের পাশাপাশি বিজেপির বেঞ্চেও চলতে থাকে ফিসফাস।

বিধানসভায় এখন অধিবেশন চলছে। সেখানে শাসক–বিরোধী তরজা তুঙ্গে উঠছে প্রত্যেকদিন। এই পরিস্থিতির মধ্যে আজ বিধানসভায় সরগরম হয়ে উঠেছিল সোয়াবিন কাণ্ড নিয়ে। আর তাতে জড়িয়ে পড়েন রায়গঞ্জের বিজেপি বিধায়ক কৃষ্ণ কল্যাণী। আজ রাজ্য বিধানসভায় বাজেট নিয়ে আলোচনা করার কথা ছিল। কিন্তু তা করতে গিয়ে সোয়াবিন নিয়েই গোটা অধিবেশনে ভাষণ দিয়ে কাটিয়ে দিলেন কৃষ্ণ। আর তা নিয়ে হাসির রোল উঠেছিল বিধানসভার অন্দরে।

ঠিক কী ঘটেছে?‌ বাজেটের বিষয় ছেড়ে সোজা সোয়াবিন নিয়ে বক্তব্য রাখায় শুরু হয় গুঞ্জন। প্রশ্ন উঠতে থাকে, বিজেপি বিধায়ক কি সোয়াবিন কারখানার মালিক? তৃণমূল কংগ্রেসের পাশাপাশি বিজেপির বেঞ্চেও চলতে থাকে ফিসফাস। রায়গঞ্জের প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী কৃষ্ণ কল্যাণী। পশ্চিমবঙ্গে সোয়াবিন চাষের জন্য আগেও তিনি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে দরবার করেছেন। সোয়াবিন চাষে উৎসাহ দিতে স্থানীয় চেম্বার অব কমার্সের প্রতিনিধি হিসেবে বক্তব্যও রাখেন কৃষ্ণ। এবার বিধানসভায় বলার সুযোগ পেয়েই তাই তিনি সোয়াবিনকেই আঁকড়ে ধরেন। সওয়াল করেন।

এমনকী রায়গঞ্জে নিজের ফ্যাক্টরির সামনের জমিতে সোয়াবিন চাষ করেন কৃষ্ণ। তাতে সাফল্যও পান। এই রিপোর্ট নিয়ে হাজির হন নবান্নে মুখ্যমন্ত্রীর কৃষি উপদেষ্টা প্রদীপ মজুমদারের কাছে। কৃষ্ণর এই চাষ দেখতে উত্তরবঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের কৃষি বিজ্ঞানীরাও যান রায়গঞ্জে। তারপর একুশের নির্বাচনে বিজেপির টিকিটে প্রার্থী হয়ে কৃষ্ণ জিতে যান। আর জিতে এসে জীবনের প্রথম বিধানসভা অধিবেশনের ভাষণেই সেই সোয়াবিনকেই হাতিয়ার করলেন তিনি। এই বিষয়ে তিনি বলেন, ‘‌সোয়াবিনের থেকে তেল, সস, দুধ কত কিছু হয়। সোয়াবিন চাষে রাজ্যের অগ্রণী ভূমিকা নেওয়া উচিত।’‌ যদি তৃণমূল কংগ্রেসের বিধায়করা মজা করে বলেন, ‘‌মাছে ভাতে বাঙালির এত সোয়াবিন কি সইবে?’‌

বন্ধ করুন