বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > পরিষদীয় মন্ত্রীর কক্ষে গিয়ে তৃণমূলে যোগ সব্যসাচীর, মামলার হুঁশিয়ারি শুভেন্দুর
শুভেন্দু অধিকারী। (ফাইল ছবি, সৌজন্য এএনআই)
শুভেন্দু অধিকারী। (ফাইল ছবি, সৌজন্য এএনআই)

পরিষদীয় মন্ত্রীর কক্ষে গিয়ে তৃণমূলে যোগ সব্যসাচীর, মামলার হুঁশিয়ারি শুভেন্দুর

গতকাল পরিষদীয় মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের হাত থেকে দলীয় পতাকা তুলে নেন সব্যসাচী দত্ত।

সদ্য বিজেপি ছেড়ে তৃণমূলে যোগ দেওয়া সব্যসাচী দত্তের বিধানসভায় যোগদান নিয়ে প্রশ্ন তুললেন বিজেপির পরিষদীয় দলের সদস্যরা। শুক্রবার বিধানসভায় বি আর আম্বেদকরের মূর্তির পাদদেশে এই ঘটনার প্রতিবাদে বিক্ষোভ দেখালেন তাঁরা। পুজোর পর বিধানসভার অধ্যক্ষের কাছে নালিশ জানাবেন তাঁরা। পাশাপাশি এই বিষয়ে আদালতে যাওয়ারও চিন্তাভাবনা করছেন বিজেপি বিধায়করা।

শুক্রবার রাজ্য বিধানসভার বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী জানান, ‘‌রাজনীতি নিয়ে আমাদের কোনও প্রশ্ন নেই। পরিষদীয় মন্ত্রী তাঁর সরকারি কক্ষে যে কাজ করেছেন, তা নজিরবিহীন। আমি বিরোধী দলনেতা হিসেবে সব রাজনৈতিক দলকে বলব প্রতিবাদ করতে। পাশাপাশি তৃণমূল কংগ্রেসের মধ্যে যাঁরা নিজেদেরকে কর্মচারী মনে করেন না, তাঁদেরকেও প্রতিবাদ করতে বলব।’‌ একইসঙ্গে তিনি জানান, পুজোর পর সরকারি অফিস খুললে আমরা এই বিষয় অধ্যক্ষের কাছে জানাব। সেইসঙ্গে যিনি 'সংবিধানের রক্ষাকর্তা'. সেই রাজ্যপালের কাছেও যাব। একইসঙ্গে তিনি জানান, '৮ নভেম্বর আদালত খোলার পর আদালতে জনস্বার্থ মামলা দায়ের করা হবে বিজেপি বিধায়কদের তরফ থেকে। আমরা এর শেষ দেখে ছাড়ব।'

এদিন বিজেপি বিধায়করা বিধানসভা ভবন চত্বরে গোটা ঘটনার প্রতিবাদে সংবিধানকে হাতে নিয়ে স্লোগান দিয়ে বিক্ষোভ দেখান। রাজ্যের বিরোধী দলনেতা জানান, সংবিধান বানিয়ে গিয়েছেন সংবিধান প্রণেতারা। সংবিধানকে অপমান করা যায় না। গতকাল তৃণমূলের নেতারা বিধানসভাকে পার্টি অফিস বানিয়ে গিয়েছেন। এর সঙ্গে জনস্বার্থ জড়িত। এর একটা বিহিত হওয়া দরকার। উল্লেখ্য, গতকাল পরিষদীয় মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের হাত থেকে দলীয় পতাকা তুলে নেন সব্যসাচী দত্ত। যোগদানপর্বে ছিলেন রাজ্যের মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিমও।

বন্ধ করুন