বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > বড়সড় ভাঙন দেখা দিল বিজেপিতে, তৃণমূল কংগ্রেসে যোগ দিলেন বিষ্ণুপুরের বিধায়ক
বিজেপি ত্যাগ করলেন বিষ্ণুপুরের বিধায়ক তন্ময় ঘোষ।
বিজেপি ত্যাগ করলেন বিষ্ণুপুরের বিধায়ক তন্ময় ঘোষ।

বড়সড় ভাঙন দেখা দিল বিজেপিতে, তৃণমূল কংগ্রেসে যোগ দিলেন বিষ্ণুপুরের বিধায়ক

  • সোমবার জন্মাষ্ঠমীর দিন বিজেপি ত্যাগ করলেন বিষ্ণুপুরের বিধায়ক তন্ময় ঘোষ।

একুশের নির্বাচনের পর থেকেই ভাঙন শুরু হয়েছিল গেরুয়া শিবিরে। তবে নেতা–কর্মীই বেশি আসছিলেন। বড় ভাঙন বলতে মুকুল রায়। এবার বিধায়ক শিবিরে ভাঙন ধরল। মুকুল রায়ের পর দল ছাড়লেন আরও এক বিজেপি বিধায়ক। সোমবার জন্মাষ্ঠমীর দিন বিজেপি ত্যাগ করলেন বিষ্ণুপুরের বিধায়ক তন্ময় ঘোষ। তৃণমূল ভবনে এসে শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসুর থেকে তৃণমূল কংগ্রেসের পতাকা হাতে তুলে নেন।

এটা বিজেপির কাছে অবশ্যই বড় সেটব্যাক বলে মনে করা হচ্ছে। কারণ তাঁদের বিধায়ক সংখ্যা আরও কমে গেল। একুশের বিধানসভা নির্বাচনে ২০০ আসন নিয়ে বাংলায় সরকার গড়ার হুঙ্কার দিয়েছিল বিজেপি। সেখানে দেখা গিয়েছে তাঁরা ১০০ আসন অতিক্রম করতে পারেননি। তারপর থেকে সাংগঠনিকভাবে সর্বত্র ভাঙন ধরতে শুরু করে। এবার বিধায়ক সংখ্যায়ও ভাঙন ধরল।

একুশের নির্বাচনের ফলাফলে দেখা যায়, ডলব ইঞ্জিন সরকারের স্বপ্ন বিভোর হননি বাংলার মানুষ। তবে বরং বাংলার মেয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উপর ভরসা রাখেন রাজ্যবাসী। নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে তৃতীয়বারের জন্য ক্ষমতায় আসে তৃণমূল কংগ্রেস। বিধানসভা ৭৭ আসন পায় বিজেপি।

উল্লেখ্য, এরপর বিধায়ক পদ ছাড়েন দু’‌জন। পদত্যাগ করেন নিশীথ প্রামাণিক এবং জগন্নাথ সরকার। সাংসদ পদেই বহাল থাকেন তাঁরা। সুতরাং অঙ্ক দাঁড়ায় ৭৫–এ। তারপর মুকুল রায় ছেড়ে দেওয়ায় তা ৭৪–এ নেমে যায়। এবার তন্ময় ঘোষ ছেড়ে দেওয়ায় সংখ্যাটা নেমে দাঁড়াল ৭৩–এ। পুজোর পর আরও ভাঙবে বিজেপি বলে সূত্রের খবর।

বন্ধ করুন