বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > Dilip Ghosh: ‘‌কত দিন চালাবে দেখা যাক’‌, সরাসরি সরকার ফেলার হুঁশিয়ারি দিলীপের গলায়
বিজেপির সর্বভারতীয় সহ–সভাপতি তথা সাংসদ দিলীপ ঘোষ

Dilip Ghosh: ‘‌কত দিন চালাবে দেখা যাক’‌, সরাসরি সরকার ফেলার হুঁশিয়ারি দিলীপের গলায়

  • আজ, রবিবারও তার অন্যথা হল না। এদিনও নানা বিষয়ে মুখ খোলেন দিলীপ ঘোষ। ইকোপার্কে প্রাতঃভ্রমণে এসে বিজেপির সর্বভারতীয় সহ–সভাপতি তথা সাংসদ দিলীপ ঘোষ সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে এবার সরকার বেশিদিন চলবে না বলেই চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিলেন তিনি।

প্রত্যেকদিনই সাতসকালে প্রাতঃভ্রমণ করতে আসেন বিজেপির সর্বভারতীয় সহ–সভাপতি দিলীপ ঘোষ। আর সেখানে রাজ্য–রাজনীতি থেকে শুরু করে কটাক্ষ, চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দেন তিনি। আজ, রবিবারও তার অন্যথা হল না। এদিনও নানা বিষয়ে মুখ খোলেন দিলীপ ঘোষ। ইকোপার্কে প্রাতঃভ্রমণে এসে বিজেপির সর্বভারতীয় সহ–সভাপতি তথা সাংসদ দিলীপ ঘোষ সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে এবার সরকার বেশিদিন চলবে না বলেই চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিলেন তিনি।

ঠিক কী বলেছেন দিলীপ ঘোষ?‌ বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী হুঁশিয়ারি দিয়েছে ডিসেম্বর মাস থেকে সরকার চালাতে দেবেন না। এই প্রসঙ্গে দিলীপ ঘোষ বলেন, ‘‌উনি ওনার অভিজ্ঞতা থেকে বলেছেন। যেভাবে ধরা পড়ছে নতুন নতুন চুরি, তাতে কেউ গায়েব হয়ে যাচ্ছেন, কেউ চলে যাচ্ছেন। তাতে কত দিন চালাবে দেখা যাক!’‌ অর্থাৎ একটা পরিকল্পনা হয়েছে সেটা পরিষ্কার বোঝা যাচ্ছে বলে মনে করা হচ্ছে।

রাজ্যে এসেছে বিজেপির পর্যবেক্ষকের দল। পঞ্চায়েত নির্বাচন এবং দলের সংগঠন নিয়ে বৈঠক করবেন তাঁরা। এই বিষয়ে দিলীপ ঘোষ বলেন, ‘‌যাদের নতুনভাবে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে, তারা সকলে থাকছেন। মিটিং হবে, এত বড় আন্দোলন হয়ে গেল, গত কয়েক মাস ধরে আন্দোলন করছি। নতুন রণকৌশল কী হবে? দুর্গাপুজোয় পার্টি কীভাবে এগোবে সব বিষয় নিয়ে আলোচনা হবে। নতুন–পুরনো সকলে আছেন পার্টিতে। মাঝে একটু খানি ডামাডোল চলছিল। নতুন লোক দায়িত্ব নিয়েছেন সবাইকে গুছিয়ে উঠতে সময় লাগছে। আবার পার্টি লাইনে এসে গিয়েছে। পুরনো নতুন সকলে একসঙ্গে ঝাঁপাবে।’‌

ভরতপুর থানা ঘেরাও হয়েছে। আপনি কী বলবেন বিষয়টি নিয়ে?‌ মেদিনীপুরের সাংসদ বলেন, ‘‌পুলিশ পার্টির হয়ে এসব কাজ করত। গরু পাচারের টাকা, কয়লা, বালি পাচারের টাকা পুলিশ তুলে দিত। পুলিশের যেটা কাজ, সেটা করছে না। অন্য রাজ্য থেকে এসে পুলিশ ড্রাগ পাচারকারীদের ধরে নিয়ে যাচ্ছে। এখানের পুলিশ খোঁজও রাখে না। পার্টিকে টাকা দিতে গিয়ে পুলিশও ওই ধরণের ব্যবসাতে নেমে গিয়েছে। পুলিশের বিরুদ্ধে মানুষের ক্ষোভ অবিশ্বাস তৈরি হয়েছে। এগুলি এখন পার্টির লোকও বুঝতে পারছেন। তাই সংঘাত বাড়ছে। কে লুঠবে, কে খাবে এই নিয়েই পার্টির মধ্যে ঝামেলা। প্রশাসন বলে কিছু নেই।’‌

টিটাগড়ে বিস্ফোরণ হয়েছে স্কুলে। এটা নিয়ে আপনার প্রতিক্রিয়া কী?‌ রবিবার সকালে এই বিষয়ে দিলীপ ঘোষ বলেন, ‘‌এটা নতুন কিছু নয়। ওখানে রাজনীতি এইরকম। ক্রিমিনালরা রাজনীতি কন্ট্রোল করছে। আর কাজকর্ম নেই। বহু ছেলে ঘুরে বেড়াচ্ছে। তাদের হাতে বোম–বন্দুক ধরিয়ে দেওয়া হচ্ছে।’‌ যদিও এই গটনায় ২৪ ঘন্টার আগে চারজনকে গ্রেফতার করেছে টিটাগড় থানার পুলিশ।

বন্ধ করুন