বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > Dilip Ghosh: কোনও বিচ্ছিন্নতাবাদী আন্দোলন বিজেপি প্রশ্রয় দেয় না :‌ দিলীপ
বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি দিলীপ ঘোষ

Dilip Ghosh: কোনও বিচ্ছিন্নতাবাদী আন্দোলন বিজেপি প্রশ্রয় দেয় না :‌ দিলীপ

  • বিজেপি নেতা দিলীপ ঘোষ না চাইলেও কিছুদিন আগে কেএলও নেতা জীবন সিংহের যে ভিডিও টেপ প্রকাশ্যে এসেছে, সেখানে বিজেপির তিন সাংসদ জন বার্লা, নিশীথ প্রামাণিক ও জয়ন্ত রায়ের নাম উল্লেখ রয়েছে।

কোনও বিচ্ছিন্নতাবাদী আন্দোলন বিজেপি প্রশ্রয় দেয় না। বাংলাকে ভাগ করে পৃথক রাজ্য গঠন নিয়ে এই বার্তাই দিলেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি দিলীপ ঘোষ। তবে এই প্রসঙ্গে নাম না করে তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কেও কটাক্ষ করতে ছাড়েননি তিনি।

সম্প্রতি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উত্তরবঙ্গ সফরের আগে কেএলও প্রধান জীবন সিংহের একটি ভিডিও প্রকাশ্যে আসে। সেই ভিডিওতে বাংলা ভাগের কথা পরিষ্কার জানিয়েছিলেন জীবন সিংহ। এরপর মুখ্যমন্ত্রী পাহাড় সফরে গিয়ে এর প্রেক্ষিতে জানিয়েছিলেন, বাংলা ভাগ রক্ত দিয়ে হলেও রুখব। কিন্তু বাংলাকে ভাগ হতে দেব না। মুখ্যমন্ত্রীর এই কথার পরিপ্রেক্ষিতে বিজেপি নেতা দিলীপ ঘোষকে প্রশ্ন করা হলে তিনি জানান, ‘‌কামতাপুরী আন্দোলনের নেতা বংশীবদনের সঙ্গে কে জোট করেছিল। তিনি এখন কোন পার্টিতে আছেন। গুরুঙের সঙ্গে জিটিএ–এর যে চুক্তি কে করেছিল। গুরুঙ গোর্খাল্যান্ডের দাবি তুলেছিলেন। মমতা ব্যানার্জি তাঁর সঙ্গে চুক্তি করেছিল। বিজেপি কোনও বিচ্ছিন্নতাবাদী আন্দোলনকে প্রশ্রয় দেয় না। বিজেপি বাংলাকে ভাগাভাগির পক্ষেও নেই।’‌ পাশাপাশি জাতীয় সড়ককে আটকে রেখে আন্দোলন করার বিষয়েও প্রতিবাদ করেন দিলীপবাবু। সেখানে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকারকে কাঠগড়ায় তোলেন তিনি। এই প্রসঙ্গে তিনি জানান, ‘‌সরকার আইন কানুনকে সুরক্ষিত করুক। সকলের প্রতিবাদ করার অধিকার রয়েছে। কিন্তু জাতীয় সড়ককে অবরোধ করে?‌ আর সরকার দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে দেখবে এটা হয় না। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কিছু করার হিম্মত নেই।’‌

বিজেপি নেতা দিলীপ ঘোষ না চাইলেও কিছুদিন আগে কেএলও নেতা জীবন সিংহের যে ভিডিও টেপ প্রকাশ্যে এসেছে, সেখানে বিজেপির তিন সাংসদ জন বার্লা, নিশীথ প্রামাণিক ও জয়ন্ত রায়ের নাম উল্লেখ রয়েছে। জীবন সিংহের বক্তব্য অনুযায়ী, এই তিন সাংসদই উত্তরবঙ্গ নিয়ে পৃথক রাজ্য গঠনের পক্ষে বলে দাবি করা হয়েছে। তাহলে প্রশ্ন উঠছে, উত্তরবঙ্গ নিয়ে বিজেপির মধ্যে কী মতপার্থক্য রয়েছে। মতপার্থক্য যে রয়েছে, তা অনেক আগেই প্রকাশ্যে এসেছিল। আলিপুরদুয়ারের সাংসদ জন বার্লা যখন পৃথক উত্তরবঙ্গ রাজ্য গঠনের কথা বলেছিলেন, তখন দিলীপ ঘোষ এর প্রতিবাদ করেছিলেন ও সাংসদকে তাঁর বক্তব্য থেকে বিরত থাকতে বলেছিলেন।

বন্ধ করুন