বাড়ি > বাংলার মুখ > কলকাতা > জেলা সভাপতিকে অপসারণের দাবিতে সাংসদকে স্মারকলিপি বিজেপি কর্মীদের
বারাসত জেলা বিজেপি সভাপতি শংকর চক্রবর্তী
বারাসত জেলা বিজেপি সভাপতি শংকর চক্রবর্তী

জেলা সভাপতিকে অপসারণের দাবিতে সাংসদকে স্মারকলিপি বিজেপি কর্মীদের

  • বিকেলে বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের সঙ্গে দেখা করেন শংকরবাবু। বেরিয়ে তিনি জানান, ‘তৃণমূলের কিছু দুষ্কৃতী বিজেপিতে ঢুকেছিল। তাদের আমি বেছে বেছে তাড়িয়েছি। তারাই আমার বিরুদ্ধে স্মারকলিপি দিয়েছে।’

এবার জেলা বিজেপি সভাপতির অপসারণের দাবিতে সাংসদকে স্মারকলিপি দিলেন দলীয় কর্মীরা। যা নিয়ে দিনভর শোরগোল চলল বারাসত জেলা বিজেপির অন্দরে। শনিবার বারাসত জেলা বিজেপি সভাপতি শংকর চট্টোপাধ্যায় বিরুদ্ধে সাংসদ শান্তনু ঠাকুরের কাছে স্মারকলিপি দেন দলেরই কিছু কর্মী সমর্থক। শান্তনু ঠাকুর সেই স্মারকলিপি গ্রহণ করেছেন। সন্ধ্যায় বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন শংকরবাবু। তার পর হিন্দুস্তান টাইমসকে জানান, তৃণমূলের মদতে বিজেপিতে বিশৃঙ্খলা তৈরির চেষ্টা করছে কিছু দুষ্কৃতী। 

বিধানসভা ভোট যত এগোচ্ছে ততই জেলায় জেলায় বিজেপিতে দেখা দিচ্ছে বিক্ষোভ। এই পরিস্থিতিতে শনিবার বিজেপির বারাসত জেলা সভাপতি শংকর চট্টোপাধ্যায়ের অপসারণের দাবিতে স্মারকলিপি জমা দেন কিছু দলীয় কর্মী। তাদের দাবি, শংকরবাবুর সঙ্গে তৃণমূলের আঁতাঁত রয়েছে। স্মারকলিপি গ্রহণ করে সাংসদ শান্তনু ঠাকুর বলেন, ‘কর্মীরা তাদের ক্ষোভের কথা আমাকে জানিয়েছেন। আমি তা ঊর্ধতন কর্তৃপক্ষকে জানাবো।’

এরই মধ্যে বিকেলে বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের সঙ্গে দেখা করেন শংকরবাবু। বেরিয়ে তিনি জানান, ‘তৃণমূলের কিছু দুষ্কৃতী বিজেপিতে ঢুকেছিল। তাদের আমি বেছে বেছে তাড়িয়েছি। তারাই আমার বিরুদ্ধে স্মারকলিপি দিয়েছে।’ শংকরবাবুর প্রশ্ন, ‘আমাকে জেলা সভাপতি নিয়োগ করেছেন দিলীপ ঘোষ। আমার বিরুদ্ধে অভিযোগ থাকলে তাঁর কাছে আসতে পারত। সাংসদের কাছে স্মারকলিপি দেওয়ার মানে কী?’

শংকরবাবুর প্রত্যয়ী ঘোষণা, ‘দলের ভিতরে যারা বিশৃঙ্খলা তৈরির চেষ্টা করছে তাদের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ করা শুরু হয়ে গিয়েছে। কয়েকদিনের মধ্যেই তার ফল টের পাবে বিশৃঙ্খলাকারীরা।’

 

বন্ধ করুন