বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > 'ইদে ছাড় থাকলেও পুজোয় কড়া বিধিনিষেধ', তোষণ নিয়ে ফের মমতাকে খোঁচা অমিতের
মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (ছবি সৌজন্যে এএনআই) (Utpal Sarkar)
মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (ছবি সৌজন্যে এএনআই) (Utpal Sarkar)

'ইদে ছাড় থাকলেও পুজোয় কড়া বিধিনিষেধ', তোষণ নিয়ে ফের মমতাকে খোঁচা অমিতের

  • ইদের উদাহরণ টেনে এনে অমিত মালব্যর দাবি করেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বাংলার পুজোর আনন্দ মাটি করে দিতে চাইছেন।

সাম্প্রতিককালে কেরলে ওনাম পালিত হওয়ার পরই করোনা সংক্রমণের গ্রাফ রকেট গতিতে ঊর্ধ্বমুখী হয়েছিল সেই রাজ্যে। সেখান থেকে শিক্ষা নিয়েই দুর্গা পুজোয় ১১ দফা বিধিনিষেধ জারি করেছিল রাজ্য সরকার। তবে সেই বিধিনিষেধ নিয়ে আত্তি রয়েছে বিজেপির আইটি সেলের প্রধান অমিত মালব্যর। এই প্রসঙ্গে ইদের উদাহরণ টেনে এনে তিনি খোঁচা দিয়ে দাবি করেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় পুজোর আনন্দ মাটি করে দিতে চাইছেন বাংলার।

এক টুইট বার্তায় অমিত মালব্য লেখেন, 'মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সিদ্ধান্ত নেবেন যে বাংলার হিন্দুরা কীভাবে তাঁদের সবথেকে বড় উত্সব দুর্গা পুজো পালন করবেন। এই বিধিনিষেধ উত্সবের আনন্দকে শেষ করে দেবে। কিন্তু যখন ইদের সময় ছিল তখন এই বিষয়গুলি মুসলিম মৌলবিদের উপর ছেড়ে দেওয়া হয়েছিল। ইদ কিন্তু করোনার দ্বিতীয় ঢেউ চলকালীন পালিত হয়েছিল।'

উল্লেখ্য, হাই কোর্টের নির্দেশিকা মেনে পুজো কার্নিভাল বাতিল করেছে রাজ্য সরকার। একই সঙ্গে করোনাকালে পুজো সুষ্ঠুভাবে সম্পাদন করতে ১১ দফা নির্দেশিকা জারি করে নবান্ন। নির্দেশিকায় স্পষ্ট বলা হয়, মণ্ডপে প্রবেশ এবং প্রস্থানের পথ খোলামেলা রাখতে হবে। মণ্ডপে আগত দর্শনার্থীদের অবশ্যই মাস্ক পরতে হবে। পুজো কমিটিগুলিকেও মাস্ক এবং স্যানিটাইজারের ব্যবস্থা করতে হবে। মণ্ডপে ঠিক মতো সামাজিক দুরত্ব ও করোনাবিধি মানা হচ্ছে কি না, তা নজর রাখতে পর্যাপ্ত সংখ্যক স্বেচ্ছাসেবকের ব্যবস্থা করতে হবে পুজো কমিটিকে। এছাড়া বলা হয়েছে, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, পুজোর উদ্বোধন এবং বিসর্জনের অনুষ্ঠানে জাঁকজমক করা যাবে না। তবে এই বিধিনিষেধ নিয়েই প্রশ্ন তুললেন অমিত মালব্য।

বন্ধ করুন