বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > Calcutta University: কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের পুনর্বহালের বিজ্ঞপ্তি খারিজ করল হাইকোর্ট
কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য সোনালী চক্রবর্তী বন্দ্যোপাধ্যায়।

Calcutta University: কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের পুনর্বহালের বিজ্ঞপ্তি খারিজ করল হাইকোর্ট

  • কলকাতা হাইকোর্টে নির্দেশ দেওয়ার পর আজ মামলাকারীর পক্ষে আইনজীবী জানান, যিনি কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য রয়েছেন এই রায় ঘোষণা পর আর তিনি উপাচার্য পদে বসে থাকতে পারবেন না। যদিও সরকারি সূত্রের খবর, কলকাতা হাইকোর্টের এই নির্দেশকে চ্যালেঞ্জ করে সুপ্রিম কোর্টে যাবে রাজ্য সরকার।

কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের পুনর্বহালের সিদ্ধান্ত খারিজ করে দিল কলকাতা হাইকোর্ট। ২০২১ সালের ২৭ অগস্ট সোনালি চক্রবর্তী বন্দ্যোপাধ্যায়কে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের পদে পুনর্বহালের বিজ্ঞপ্তি জারি করেছিল রাজ্য সরকার। সেই বিজ্ঞপ্তিই খারিজ করে দিল কলকাতা হাইকোর্ট। একটি জনস্বার্থ মামলার পরিপ্রেক্ষিতে কলকাতা হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি প্রকাশ শ্রীবাস্তবের ডিভিশন বেঞ্চ এই নির্দেশ দিয়েছে।

আরও পড়ুন: দেশের সেরার তালিকায় কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়! কেন্দ্রের র‌্যাঙ্কিংয়ে হল অষ্টম

কলকাতা হাইকোর্টে নির্দেশ দেওয়ার পর আজ মামলাকারীর পক্ষে আইনজীবী জানান, যিনি কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য রয়েছেন এই রায় ঘোষণা পর আর তিনি উপাচার্য পদে বসে থাকতে পারবেন না। যদিও সরকারি সূত্রের খবর, কলকাতা হাইকোর্টের এই নির্দেশকে চ্যালেঞ্জ করে সুপ্রিম কোর্টে যাবে রাজ্য সরকার। শিক্ষা দফতর সূত্রের খবর, রাজ্যের বিশ্ববিদ্যালয়গুলিতে সার্চ কমিটির সুপারিশ মেনে উপাচার্য নিয়োগ করা হয়। 

প্রথমবার সোনালিকে যখন উপাচার্য হিসেবে নিয়োগ করা হয়েছিল তখন সার্চ কমিটির সুপারিশের ভিত্তিতে তাঁকে নিয়োগ করা হয়েছিল। তবে উপাচার্য হিসেবে কাউকে পুনর্বহালের ক্ষেত্রে সার্চ কমিটির সুপারিশ লাগে না। সে ক্ষেত্রে রাজ্য সরকার নিজেই রাজ্যপালের কাছে ফাইল পাঠাতে পারে। সেই মতোই কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য নিয়োগ নিয়ে রাজ্য সরকার রাজ্যপালের কাছে ফাইল পাঠিয়েছিল কিন্তু তৎকালীন রাজ্যপাল ফাইল নিয়ে প্রশ্ন তুলে সেটি রাজ্যের কাছে ফেরত পাঠান।

এদিকে, সোনালির পূর্বতম মেয়াদের শেষ দিন বিকেলে রাজ্য সোনালিকে পুনর্নিয়োগ করার নির্দেশ দেয়। এরই মধ্যে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে উপাচার্য পুনর্নিয়োগে অনিয়মের অভিযোগ তুলে কলকাতা হাইকোর্টে মামলা করেছিলেন আইনজীবী অনিন্দ্যসুন্দর দাস। হাইকোর্ট জানিয়েছে নিয়োগ,পুনর্নিয়োগের ক্ষেত্রে আচার্যের সাক্ষর না থাকলে বিষয়টি অসম্পূর্ণ থেকে যাচ্ছে।

 

বন্ধ করুন