বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > BJP Training Camp: অমিতাভ চক্রবর্তীর ডানা ছাঁটল বিজেপি, বৈভবের প্রশিক্ষণ শিবিরে কড়া বার্তা‌

BJP Training Camp: অমিতাভ চক্রবর্তীর ডানা ছাঁটল বিজেপি, বৈভবের প্রশিক্ষণ শিবিরে কড়া বার্তা‌

অমিতাভ চক্রবর্তী।

এই বৈভবের প্রশিক্ষণ শিবির থেকে কেন্দ্রীয় পার্টির সাংগঠনিক নেতা বিজেপির রাজ্য সাধারণ সম্পাদক (সংগঠন) অমিতাভ চক্রবর্তীর ক্ষমতাও খর্ব করে দিয়েছেন। কারণ, তাঁর নামে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী শান্তনু ঠাকুর থেকে শুরু করে একাধিক সাংসদ–বিধায়ক এবং রাজ্য নেতারা তাঁর বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে মুখ খুলেছিলেন।

তাঁর বিরুদ্ধে বিস্তর অভিযোগ। তাও সেই অভিযোগ তুলেছেন খোদ বিজেপির বিধায়ক–সাংসদ থেকে শুরু করে নেতারা। কেন্দ্রীয় নেতৃত্বকে তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ জানানো হয়েছিল। এবার তাতে কড়া পদক্ষেপ করলেন বিএল সন্তোষ। হ্যাঁ, তিনি সাধারণ সম্পাদক (‌সংগঠন) অমিতাভ চক্রবর্তী।‌ এমনকী রাজ্য বিজেপি সভাপতি বনাম বিরোধী দলনেতার ‘সাপে–নেউলে’ সম্পর্ক নিয়ে দলের অন্দরে যে জোর চর্চা ছিল তা নিয়ে হাটে হাঁড়ি ভাঙলেন সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক (সংগঠন) বিএল সন্তোষ। আর ডানা ছাঁটলেন অমিতাভ চক্রবর্তীর।

ঠিক কী বার্তা দিয়েছেন বিএল সন্তোষ?‌ বৈভবের প্রশিক্ষণ শিবিরের শেষদিনে সন্তোষের ‘বিস্ফোরক’ মূল্যায়ণে তোলপাড় হয়ে গিয়েছে। এদিন বিএল সন্তোষ দলের নেতাদের উদ্দেশে বলেন, ‘রাজ্য সভাপতি এবং বিরোধী দলনেতাকে একসঙ্গে মিটিংয়ে বসাতে গেলে যদি অমিত শাহকে আসতে হয়, তাহলে বলব এভাবে পার্টি চলে না। আমি রোজ বাংলা থেকে দিনে ১০ থেকে ১২টা ইমেল পাই। যেখানে বিভিন্ন নেতানেত্রী তাঁরই সতীর্থ সম্পর্কে রোজ লিখিত নালিশ করেন’। সুতরাং দলের মধ্যে গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব একেবারে প্রকাশ্যে এনে দেন তিনি বলে সূত্রের খবর। এমনকী রাজ্যের দুই শীর্ষ বিজেপি নেতার সামনেই সন্তোষ ক্ষোভ উগরে দেন।

অমিতাভ চক্রবর্তীর ঠিক কী হয়েছে?‌ এই বৈভবের প্রশিক্ষণ শিবির থেকে কেন্দ্রীয় পার্টির সাংগঠনিক নেতা বিজেপির রাজ্য সাধারণ সম্পাদক (সংগঠন) অমিতাভ চক্রবর্তীর ক্ষমতাও খর্ব করে দিয়েছেন। কারণ, তাঁর নামে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী শান্তনু ঠাকুর থেকে শুরু করে একাধিক সাংসদ–বিধায়ক এবং রাজ্য নেতারা তাঁর বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে মুখ খুলেছিলেন। নালিশ করেছেন কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের কাছে। তার শাস্তিস্বরূপ রাজ্য বিজেপির দু’টি গুরুত্বপূর্ণ সাংগঠনিক জোন, রা‌‌‌‌‌ঢ় বঙ্গ ও হাওড়া, হুগলি ও মেদিনীপুরের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক (সংগঠন) সতীশ ধোন্দকে। সরিয়ে দেওয়া হয়েছে অমিতাভকে। এই জোনের মধ্যে রাজ্য বিজেপির ১৮টি সাংগঠনিক জেলা রয়েছে বলে সূত্রের খবর।

আর কী জানা যাচ্ছে?‌ সূত্রের দাবি, আগামী দিনে আরও একজন যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক (সংগঠন) নিয়োগ হবে বাংলায়। তাঁর হাতেও এক ডজনের বেশি জেলার সাংগঠনিক ক্ষমতা দেওয়া হবে। তখন অমিতাভবাবুর স্থায়ী ডানা ছাঁটা হবে। এখন আংশিক হল। এদিন সন্তোষ বিজেপি নেতাদের সহকারীদের (পিএ) ভূমিকা নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন। তিনি ক্ষোভ উগড়ে দিয়ে বলেন, ‘‌পিএ’রা নেতাদের মধ্যে বিবাদ লাগিয়ে দিতে পারেন। ফোন করলে কেন নেতারা সেটা না ধরে পিএ’রা ধরবেন!’‌

বাংলার মুখ খবর
বন্ধ করুন

Latest News

অলিম্পিক্সে যোগ্যতা অর্জন করেনি ভারতীয় সিনিয়র মহিলা হকি দল, ইস্তফা কোচের বাইজুর সিইও রবীন্দ্রনকে সরিয়ে দিলেন ৬০ শতাংশ শেয়ারহোল্ডার, কী বলছে সংস্থা? বিমানের ফুড এরিয়ায় একটি নয়, একাধিক আরশোলা! এবার খবরে ইন্ডিগো একটু কথা বলব! ও খেয়েছে? বান্ধবীর জন্য কাঁদছেন কোন্নগরে শিশু খুনে অভিযুক্ত মা ভেজা শরীরে কাঞ্চনের ক্যামেরায় বন্দি শ্রীময়ী! হানিমুনের ছবিতে যৌনগন্ধী কটাক্ষ IND vs ENG: সেঞ্চুরির পর জো রুটের ‘পিঙ্কি সেলিব্রেশনের’ আসল কারণটা জানেন কি? মেনোপজের সময় অকারণে কান্না পেত, কষ্টের দিনের কথা মনে করলেন সুধা মূর্তি পপকর্ন ফুসফুস কী? কতটা ক্ষতিকর এই বিরল অবস্থা, এর লক্ষণ ও উপসর্গ কী কী শীর্ষস্থানীয় ম্যানেজমেন্ট-ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ থেকেও হচ্ছে না পুরো প্লেসমেন্ট AI-র কাছে ফেল Amazon! ৮ মাসে ৮৩ লাখ কোটি কামিয়ে বিশ্বে চতুর্থ বড় সংস্থা Nvidia

Copyright © 2024 HT Digital Streams Limited. All RightsReserved.