প্রতীকি ছবি (AFP)
প্রতীকি ছবি (AFP)

তালিকায় একাধিক বস্তি ও হাসপাতাল, দেখে নিন কোথায় কোথায় যেতে চায় কেন্দ্রীয় দল

  • কেন্দ্রীয় প্রতিনিধিদলের তরফে জানানো হয়েছে, কলকাতায় বেলগাছিয়া বস্তি, বউবাজার, ট্যাংরা, বড়বাজার, গার্ডেনরিচ এলাকা পরিদর্শন করতে চান তাঁরা।

আড়াই দিন টানাপোড়েনের পর তারা কোথায় কোথায় পরিদর্শনে যেতে চান তা রাজ্য সরকারকে জানাল  কলকাতায় থাকা কেন্দ্রের প্রতিনিধিদল। বুধবার সেই তথ্য জানিয়ে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যসচিব রাজীব সিনহাকে চিঠি দিয়েছেন প্রতিনিধিদলের প্রধান অপূর্ব চন্দ্র। তালিকায় রয়েছে কলকাতা ও একাধিক জেলার হটস্পটগুলি। 

মঙ্গলবার চিঠি চালাচালির পর কলকাতায় ঝটিকা সফরে বেরোলেও বুধবার দিনভর বিএসএফএর অতিথিশালাতে গৃহবন্দিই ছিলেন কেন্দ্রীয় প্রতিনিধিদলের সদস্যরা। অতিথিশালাতেই দফায় দফায় বৈঠক করেন তাঁরা। এদিন মুখ্যসচিবকে ২টি চিঠি দেওয়া হয়েছে তার মধ্যে একটিতে জানতে চাওয়া হয়েছে রাজ্যে করোনা পরিস্থিতি সম্পর্কে নানা তথ্য। আরেকটিতে জানানো হয়েছে কোন কোন জায়গা পরিদর্শন করতে চান তাঁরা। 

তালিকায় রয়েছে কলকাতা ও হাওড়ার একাধিক জায়গা ও বাজার। এছাড়া উত্তর ২৪ পরগনা ও পূর্ব মেদিনীপুরের বিভিন্ন এলাকাতেও যেতে চান তাঁরা। বলে রাখি, দক্ষিণবঙ্গের এই চার জেলাকেই করোনাকবলিত বলে ঘোষণা করেছে কেন্দ্র। 

কেন্দ্রীয় প্রতিনিধিদলের তরফে জানানো হয়েছে, কলকাতায় বেলগাছিয়া বস্তি, বউবাজার, ট্যাংরা, বড়বাজার, গার্ডেনরিচ এলাকা পরিদর্শন করতে চান তাঁরা। এছাড়া, তিলজলার কোহিনুর মার্কেট, হাতিবাগান বাজার, গার্ডেনরিচের ধানক্ষেতি মার্কেট পরিদর্শনের ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন তাঁরা। যেতে চান কলকাতায় ২ করোনা চিকিৎসা কেন্দ্র বেলেঘাটা আইডি ও এমআর বাঙুরে।

হাওড়া জেলায় চিহ্নিত হটস্পট এলাকাগুলি পরিদর্শনের ইচ্ছা প্রকাশ করেছে প্রতিনিধিদল। এছাড়া সালকিয়া ও পিলখানা বস্তি পরিদর্শন করতে চান তাঁরা। যেতে চান জেলার একমাত্র ID হাসপাতাল সত্যবালায়। এছাড়া গোলাবাড়ির ILS হাসপাতাল যেখানে একাধিক ব্যক্তির করোনা সংক্রমণ হয়েছে, যেতে চান সেখানেও। 

উত্তর ২৪ পরগনার দমদমের বিস্তীর্ণ এলাকা ঘুরে দেখার ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন কেন্দ্রীয় প্রতিনিধিরা। এর মধ্যে রয়েছে, বিরাটির বেশ কয়েকটি ওয়ার্ড। রয়েছে ভিআইপি রোডের পাশে দক্ষিণদাঁড়ি। এছাড়া নিউ টাউন কোয়ারেন্টাইন সেন্টার, বিধাননগর আমরি হাসপাতাল ও বারাসতের জেএনআরসি হাসপাতালে যেতে চেয়েছেন তাঁরা। যেতে চেয়েছেন হজ হাউজের কোয়ারেন্টাইন সেন্টারেও।

পূর্ব মেদিনীপুরের এগরা, শহিদ মাতঙ্গিনী গ্রাম পঞ্চায়েত ও হলদিয়ায় যাওয়ার পরিকল্পনা রয়েছে কেন্দ্রীয় প্রতিনিধিদলের। সেই সঙ্গে পরিকল্পনা রয়েছে একাধিক হাসপাতাল পরিদর্শনেরও। 

সোমবার রাজ্যে এসে পৌঁছয় ২টি কেন্দ্রীয় প্রতিনিধিদল। প্রতিটি দলে রয়েছেন ৬ জন করে সদস্য। কেন্দ্রের দাবি, রাজ্য সরকারকে সহায়তা করতে পাঠানো হয়েছে বিশেষজ্ঞদের দল। রাজ্যের দাবি, না জানিয়ে প্রতিনিধি পাঠিয়ে যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামোর নীতি ভাঙছে কেন্দ্র। 

আড়াই দিন টানাপোড়েনের পর তারা কোথায় কোথায় পরিদর্শনে যেতে চান তা রাজ্য সরকারকে জানাল  কলকাতায় থাকা কেন্দ্রের প্রতিনিধিদল। বুধবার সেই তথ্য জানিয়ে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যসচিব রাজীব সিনহাকে চিঠি দিয়েছেন প্রতিনিধিদলের প্রধান অপূর্ব চন্দ্র। তালিকায় রয়েছে কলকাতা ও একাধিক জেলার হটস্পটগুলি। 

মঙ্গলবার চিঠি চালাচালির পর কলকাতায় ঝটিকা সফরে বেরোলেও বুধবার দিনভর বিএসএফএর অতিথিশালাতে গৃহবন্দিই ছিলেন কেন্দ্রীয় প্রতিনিধিদলের সদস্যরা। অতিথিশালাতেই দফায় দফায় বৈঠক করেন তাঁরা। এদিন মুখ্যসচিবকে ২টি চিঠি দেওয়া হয়েছে তার মধ্যে একটিতে জানতে চাওয়া হয়েছে রাজ্যে করোনা পরিস্থিতি সম্পর্কে নানা তথ্য। আরেকটিতে জানানো হয়েছে কোন কোন জায়গা পরিদর্শন করতে চান তাঁরা। 

তালিকায় রয়েছে কলকাতা ও হাওড়ার একাধিক জায়গা ও বাজার। এছাড়া উত্তর ২৪ পরগনা ও পূর্ব মেদিনীপুরের বিভিন্ন এলাকাতেও যেতে চান তাঁরা। বলে রাখি, দক্ষিণবঙ্গের এই চার জেলাকেই করোনাকবলিত বলে ঘোষণা করেছে কেন্দ্র। 

কেন্দ্রীয় প্রতিনিধিদলের তরফে জানানো হয়েছে, কলকাতায় বেলগাছিয়া বস্তি, বউবাজার, ট্যাংরা, বড়বাজার, গার্ডেনরিচ এলাকা পরিদর্শন করতে চান তাঁরা। এছাড়া, তিলজলার কোহিনুর মার্কেট, হাতিবাগান বাজার, গার্ডেনরিচের ধানক্ষেতি মার্কেট পরিদর্শনের ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন তাঁরা। যেতে চান কলকাতায় ২ করোনা চিকিৎসা কেন্দ্র বেলেঘাটা আইডি ও এমআর বাঙুরে।

হাওড়া জেলায় চিহ্নিত হটস্পট এলাকাগুলি পরিদর্শনের ইচ্ছা প্রকাশ করেছে প্রতিনিধিদল। এছাড়া সালকিয়া ও পিলখানা বস্তি পরিদর্শন করতে চান তাঁরা। যেতে চান জেলার একমাত্র ID হাসপাতাল সত্যবালায়। এছাড়া গোলাবাড়ির ILS হাসপাতাল যেখানে একাধিক ব্যক্তির করোনা সংক্রমণ হয়েছে, যেতে চান সেখানেও। 

উত্তর ২৪ পরগনার দমদমের বিস্তীর্ণ এলাকা ঘুরে দেখার ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন কেন্দ্রীয় প্রতিনিধিরা। এর মধ্যে রয়েছে, বিরাটির বেশ কয়েকটি ওয়ার্ড। রয়েছে ভিআইপি রোডের পাশে দক্ষিণদাঁড়ি। এছাড়া নিউ টাউন কোয়ারেন্টাইন সেন্টার, বিধাননগর আমরি হাসপাতাল ও বারাসতের জেএনআরসি হাসপাতালে যেতে চেয়েছেন তাঁরা। যেতে চেয়েছেন হজ হাউজের কোয়ারেন্টাইন সেন্টারেও।

পূর্ব মেদিনীপুরের এগরা, শহিদ মাতঙ্গিনী গ্রাম পঞ্চায়েত ও হলদিয়ায় যাওয়ার পরিকল্পনা রয়েছে কেন্দ্রীয় প্রতিনিধিদলের। সেই সঙ্গে পরিকল্পনা রয়েছে একাধিক হাসপাতাল পরিদর্শনেরও। 

সোমবার রাজ্যে এসে পৌঁছয় ২টি কেন্দ্রীয় প্রতিনিধিদল। প্রতিটি দলে রয়েছেন ৬ জন করে সদস্য। কেন্দ্রের দাবি, রাজ্য সরকারকে সহায়তা করতে পাঠানো হয়েছে বিশেষজ্ঞদের দল। রাজ্যের দাবি, না জানিয়ে প্রতিনিধি পাঠিয়ে যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামোর নীতি ভাঙছে কেন্দ্র। 

 

বন্ধ করুন