বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > KMDA: উড়ালপুলে ফাটল দেখলে KMDA-র সঙ্গে সরাসরি ফোনে যোগাযোগ করতে পারবেন নাগরিকরা
উড়ালপুল বা সেতুতে ফাটল নিয়ে কেএএমডিএ-র সঙ্গে যোগাযোগ করা যাবে। প্রতীকী ছবি

KMDA: উড়ালপুলে ফাটল দেখলে KMDA-র সঙ্গে সরাসরি ফোনে যোগাযোগ করতে পারবেন নাগরিকরা

  • সেতু এবং উড়ালপুলে দায়িত্বপ্রাপ্ত এক্সিকিউটিভ ইঞ্জিনিয়ারের নাম এবং ফোন নম্বর দিয়ে ডিসপ্লে বোর্ড লাগানোর কাজ শুরু করে দিয়েছে কেএমডিএ। ইতিমধ্যেই বেশ কিছু সেতু এবং উড়ালপুলে সেই বোর্ড লাগানো হয়েছে। তার সঙ্গে ওই উড়ালপুলটি কবে শেষ পরিদর্শন করা হয়েছে তার তথ্য দেওয়া থাকছে ডিসপ্লে বোর্ডে।

সেতু বা উড়ালপুল কোনও ফাটল রয়েছে কিনা তা আগে সরাসরি কেএমডিকে জানানোর কোনও সুযোগ ছিল না। সে ক্ষেত্রে আধিকারিকরা পরিদর্শন করে বা পুলিশ মারফত ফাটলের খবর পেতেন। কিন্তু এবার থেকে সাধারণ নাগরিকরা সরাসরি এ বিষয়ে কেএমডির সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারবেন। তার জন্য সংস্থার অধীনস্থ সমস্ত সেতু বা উড়ালপুলের দায়িত্বপ্রাপ্ত এক্সিকিউটিভ ইঞ্জিনিয়ারের ফোন নম্বর দেওয়া থাকবে। দুর্ঘটনা রুখতে কেএমডি তরফে এমনই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

সেতু এবং উড়ালপুলে দায়িত্বপ্রাপ্ত এক্সিকিউটিভ ইঞ্জিনিয়ারের নাম এবং ফোন নম্বর দিয়ে ডিসপ্লে বোর্ড লাগানোর কাজ শুরু করে দিয়েছে কেএমডিএ। ইতিমধ্যেই বেশ কিছু সেতু এবং উড়ালপুলে সেই বোর্ড লাগানো হয়েছে। তার সঙ্গে ওই উড়ালপুলটি কবে শেষ পরিদর্শন করা হয়েছে তার তথ্য দেওয়া থাকছে ডিসপ্লে বোর্ডে। এর ফলে সাধারণ নাগরিকরা ওই নম্বরে ফোন করে সরাসরি দায়িত্বপ্রাপ্ত এক্সিকিউটিভ ইঞ্জিনিয়ারের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারবেন।

কেএমডিএর এক আধিকারিক জানিয়েছেন, পরিদর্শনের পরেও অনেক সময় সেতু বা উড়ালপুলে ফাটল লক্ষ্য করা যায়। ফলে ফোন নম্বর দেওয়া থাকলে নাগরিকরা সে সম্পর্কে সরাসরি জানাতে পারবেন এক্সিকিউটিভ ইঞ্জিনিয়ারকে। এতে দুর্ঘটনা এড়ানো সম্ভব হবে। পাশাপাশি অনেক সময় সেতুর পরিদর্শন এবং রক্ষণাবেক্ষণ নিয়ে সাধারণ মানুষের মনে প্রশ্ন থেকে যায়। সে ক্ষেত্রে উড়ালপুল পরিদর্শনের তথ্য দেওয়া থাকলে স্বচ্ছতা বজায় থাকবে বলে মনে করছেন আধিকারিকরা।

যদিও উড়ালপুল বা সেতুতে ফাটল রয়েছে কিনা তা অনেক সময় সাধারণ মানুষের পক্ষে বোঝা সম্ভব হয় না। বিশেষ করে দুটো জয়েন্টের মধ্যে ফাঁক থাকলে সেটিকে অনেককেই ফাটল বলে মনে করতে পারেন। ফলস্বরূপ সেতু বা উড়ালপুল বন্ধ রেখে তা পরিদর্শন করতে হয় ইঞ্জিনিয়ারদের। তবে যারা নিয়মিত সেতু বা উড়ালপুল দিয়ে যাতায়াত করেন তাদের পক্ষে কোনটা ফাটল আর কোনটা জয়েন্ট তা বুঝতে বিশেষ অসুবিধা হবে না বলেই মনে করছেন আধিকারিকরা। এর ফলে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া সম্ভব হবে বলে মনে করছে কেএমডিএ।

বন্ধ করুন