বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > ‌পেট্রল–ডিজেলে কী শুল্ক কমাচ্ছে রাজ্য?‌ নবান্ন থেকে যা বললেন মুখ্যমন্ত্রী
মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। (PTI)

‌পেট্রল–ডিজেলে কী শুল্ক কমাচ্ছে রাজ্য?‌ নবান্ন থেকে যা বললেন মুখ্যমন্ত্রী

  • পেট্রল–ডিজেলে ভ্যাট ছাড়ের জন্য ৬৪১.৪৫ কোটি লোকসান হতে চলেছে রাজ্যের৷ চলতি বছরে গুজরাত এবং হিমাচল প্রদেশে বিধানসভা নির্বাচন রয়েছে। ২০২৩ সালে মেঘালয়, নাগাল্যান্ড, ত্রিপুরা, কর্ণাটক, ছত্তিশগড়, মধ্যপ্রদেশ, মিজোরাম, রাজস্থান এবং তেলঙ্গনায় নির্বাচন আছে। আর ২০২৪ সালে লোকসভা নির্বাচন।

কেন্দ্রীয় সরকার পেট্রল–ডিজেলের দাম কমাতেই পাল্টা মাস্টারস্ট্রোক দিলেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আজ, সোমবার নবান্নে মন্ত্রিসভার বৈঠক ডেকে রাজ্য সরকারও ভ্যাট কমিয়ে দিল পেট্রল– ডিজেলের। পেট্রলে ২ টাকা ৮০ পয়সা এবং ডিজেলে ২ টাকা ৩ পয়সা ভ্যাট কমানোর কথা ঘোষণা করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

পেট্রোপণ্যের দাম কমাতে লাগাতার আন্দোলন থেকে প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি লেখা সবই করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এবার পেট্রল–ডিজেলে ভ্যাট কমিয়ে দেওয়ায় আমজনতা স্বস্তি পাবে। এবার রাজ্যে আরও সস্তা হতে চলেছে পেট্রল–ডিজেল। তবে লাগাতার আন্দোলনের পর চাপে পড়ে যায় কেন্দ্রীয় সরকার। তারপরই দেখা যায়, শনিবার অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন ঘোষণা করেন, পেট্রলের উপর লিটারে ৮ টাকা এবং ডিজেলের উপর লিটারে ৬ টাকা শুল্ক ছাড় দেবে কেন্দ্রীয় সরকার। ফলে পেট্রলের দাম কমবে লিটারে সাড়ে ৯ টাকা এবং ডিজেলের ৭ টাকা।

ঠিক কী বলেছেন মুখ্যমন্ত্রী?‌ এদিন নবান্ন থেকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ঘোষণা করেন, ‘‌পেট্রলের উপর থেকে ২.৮০ টাকা ও ডিজেলের উপর থেকে ২.০৩ টাকা শুল্ক কম করা হচ্ছে। রাজস্থান পেট্রলে ২.৪৮ পয়সা ছাড় দিচ্ছে। সেখানে বাংলায় ২.৮০ পয়সা ছাড় দিচ্ছে। কেরলে পেট্রলে ২ টাকা ৪১ পয়সা ছাড় দিচ্ছে এবং মহারাষ্ট্র ২ টাকা ৮ পয়সা ছাড়। সেখানে বাংলা সেসের টাকা পায় না। কেন্দ্র আমাদের পাওনা টাকা দেয় না। বিজেপি শাসিত রাজ্য যে পরিমাণ টাকা পায়, বাংলা সেই পরিমাণে টাকা পায় না।’‌

উল্লেখ্য, পেট্রল–ডিজেলে ভ্যাট ছাড়ের জন্য ৬৪১.৪৫ কোটি লোকসান হতে চলেছে রাজ্যের৷ চলতি বছরে গুজরাত এবং হিমাচল প্রদেশে বিধানসভা নির্বাচন রয়েছে। ২০২৩ সালে মেঘালয়, নাগাল্যান্ড, ত্রিপুরা, কর্ণাটক, ছত্তিশগড়, মধ্যপ্রদেশ, মিজোরাম, রাজস্থান এবং তেলঙ্গনায় নির্বাচন আছে। আর ২০২৪ সালে লোকসভা নির্বাচন। তার আগে জ্বালানির দামে নাভিশ্বাস উঠেছে সাধারণ মানুষের। তাই কেন্দ্রের এই ঘোষণার পিছনে যথেষ্ট রাজনৈতিক গুরুত্ব আছে বলে মনে করা হচ্ছে।

বন্ধ করুন