বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > ‘‌দ্রুত মন্দির তৈরি করুন, আমি পুজো দিতে যাব’‌, ইচ্ছাপ্রকাশ করলেন মুখ্যমন্ত্রী
মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। (ফাইল ছবি, সৌজন্য এএনআই)

‘‌দ্রুত মন্দির তৈরি করুন, আমি পুজো দিতে যাব’‌, ইচ্ছাপ্রকাশ করলেন মুখ্যমন্ত্রী

  • আজ, বৃহস্পতিবার নেতাজি ইন্ডোর স্টেডিয়ামের প্রশাসনিক বৈঠক থেকে সেখানে যাবার ইচ্ছাপ্রকাশ করলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

দিঘায় পুরীর আদলে জগন্নাথ মন্দির তৈরির নির্দেশ আগেই দিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সমুদ্র সৈকতের পাশাপাশি যদি জগন্নাথ মন্দির থাকে তাহলে বাংলায় পুরীর স্বাদ মিলবে বলে মনে করেন তিনি। এমনকী এটা আরও জনপ্রিয় পর্যটনকেন্দ্র হয়ে উঠবে। সেই মতো জায়গা নির্দিষ্ট করে দেওয়া থেকে অর্থ বরাদ্দ করা হয়েছে। আজ, বৃহস্পতিবার নেতাজি ইন্ডোর স্টেডিয়ামের প্রশাসনিক বৈঠক থেকে সেখানে যাবার ইচ্ছাপ্রকাশ করলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

ঠিক কী ইচ্ছাপ্রকাশ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী?‌ এদিন তিনি বলেন, ‘‌দ্রুত দিঘায় জগন্নাথ মন্দির তৈরি হোক। আর আমি সেখানে প্রথম পুজো দিতে যাবো। দ্রুত মন্দির তৈরির কাজ শেষ করুন।’‌ মুখ্যমন্ত্রীর এই কথা শুনে খানিকটা হালকা বোধ করেন অফিসার থেকে আমলারা। কারণ আজ তিনি প্রশাসনিক বৈঠকে আক্রমণাত্মক ভূমিকায় দেখা দেন। তাঁর ক্ষোভ থেকে কেউ বাঁচতে পারেননি।

সম্প্রতি সবরকমের ধর্মীয় স্থান নিয়ে আলাদা করে ট্যুরিজম সার্কিট গড়ে তোলার কথা ঘোষণা করেন মুখ্যমন্ত্রী। আর তিনি দিঘাকে বেছে নিয়েছেন। সেখানে ধর্মীয় পর্যটনকেন্দ্র গড়ে তোলার কথা বলেছিলেন তিনি। দিঘার কনভেনশন সেন্টারের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানেই জানিয়েছিলেন সেই কথা৷ তারপর এই প্রকল্পে ১২৮ কোটি টাকা বরাদ্দ করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

বৃহস্পতিবার আবার মনে করিয়ে দিলেন সেই কথা। এই জগন্নাথ মন্দির গিয়ে তিনি জানতে চান, দিঘায় পরিকল্পিত জগন্নাথ মন্দিরের কাজ কতদূর? তাঁকে সঙ্গে সঙ্গে জানানো হয়, কাজ এখনও চলছে। অবিকল পুরীর জগন্নাথ মন্দিরের আদলেই তা গড়ে তোলা হচ্ছে। তখনই মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘‌তাড়াতাড়ি মন্দির তৈরি করে ফেলুন। হলেই আমি পুজো দিতে যাব।’‌

বন্ধ করুন