বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > Coal Smuggling: ‘‌আসল লোক কোথায়?’‌ কয়লা পাচার মামলায় সিবিআই আইনজীবীকে ভর্ৎসনা বিচারকের

Coal Smuggling: ‘‌আসল লোক কোথায়?’‌ কয়লা পাচার মামলায় সিবিআই আইনজীবীকে ভর্ৎসনা বিচারকের

কয়লা পাচার কাণ্ডে সিবিআই আইনজীবীকে ভর্ৎসনা করলেন বিচারক।

সিবিআই এই ভর্ৎসনার পর আদালতকে জানায়, সুপ্রিম কোর্টে ১৮ জুলাই মামলা রয়েছে। তখন ক্ষুব্ধ বিচারক বলেন, ‘যার জন্য এই কাজে অভিযুক্ত করছেন, তিনি বাইরে থাকবেন আর একজনকে আমরা এতদিন জেলে রাখব? আপনারা সুপ্রিম কোর্টে তাঁর বিরুদ্ধে তথ্য দিচ্ছেন তো?’‌ সিবিআই জানায়, ‘সবই দেওয়া হচ্ছে।’ 

নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় সিবিআই আইনজীবী আদালতে দাঁড়িয়ে বিচারকের ভর্ৎসনা শুনেছেন। কলকাতা হাইকোর্টেও একাধিকবার এই দৃশ্য দেখা গিয়েছিল। এবার কয়লা পাচার কাণ্ডে শুনানির সময় আবার সিবিআই আইনজীবীকে ভর্ৎসনা করলেন বিচারক। আর তদন্ত প্রক্রিয়া নিয়ে তখনই প্রশ্ন উঠে গেল। ভরা এজলাসে শুনানি চলাকালীন বিরক্ত বিচারক সিবিআইয়ের আইনজীবীকে প্রশ্ন করেন, ‘আসল লোক কোথায়? তিনি তো বাইরেই’। এই নিয়ে ভর্ৎসনা শুনতে হয় সিবিআইকে।

এদিকে সিবিআইয়ের হাতে গ্রেফতার হয়ে টানা ৮৭ দিন ধরে বিচারাধীন বন্দি হয়ে রয়েছেন রত্নেশ ভার্মা। আর তা নিয়েই বেজায় বিরক্ত বিচারক। কারণ এই রত্নেশ ভার্মা কয়লা পাচারকাণ্ডের অন্যতম মাথা। এমনকী অভিযুক্ত লালার ঘনিষ্ঠ হিসাবেই পরিচিত। লালাকে যেদিন সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত নিয়ে আইনি নোটিশ দেওয়া হয়েছিল, রত্নেশকেও সেদিনেই নোটিশ দেয় সিবিআই। তবে রত্নেশ আত্মসমর্পণ করেছেন তদন্তকারীদের কাছে। তখন থেকেই তদন্তকারীদের হেফাজতে তিনি। সিবিআই নতুন অভিযোগ তুলেছে, হেফাজতে থেকেই পাঁচজন সাক্ষীকে প্রভাবিত করার চেষ্টা করছেন রত্নেশ। তখনই বিচারক সিবিআইকে ভর্ৎসনা করে বলেন, ‘আসল লোক কোথায়? তিনি তো বাইরেই। তাঁর কী খবর?’ তবে আসল লোক কে?‌ সেটা খোলসা করে কারও নাম বলেননি বিচারক।

আর কী দাবি করেছে সিবিআই?‌ সিবিআই আরও দাবি করেছে, কয়লা পাচারের হিসাব দেখভালের দায়িত্বে থাকা রত্নেশের সঙ্গে নতুন কিছু প্রভাবশালী অফিসারের যোগসাজশ রয়েছে। এমনকী নথিও বিচারকের সামনে তুলে ধরেন তদন্তকারী অফিসার উমেশ সিং। রত্নেশের জামিনের আবেদনের বিরোধিতা করা হয়। তখন তথ্য তুলে ধরেন সিবিআই আইনজীবী রাকেশ কুমার। আর সিবিআই বিচারক রাজেশ চক্রবর্তীর ভর্ৎসনা, ‘সবই তো উনি করছেন একজনের হয়ে। নথিতেও সেটা দেখা যাচ্ছে। আসল লোক কোথায়?‌ তিনি তো বাইরেই। তাঁর কী খবর?’

তখন সিবিআই কী জানাল?‌ সিবিআই এই ভর্ৎসনার পর আদালতকে জানায়, সুপ্রিম কোর্টে ১৮ জুলাই মামলা রয়েছে। তখন ক্ষুব্ধ বিচারক বলেন, ‘যার জন্য এই কাজে অভিযুক্ত করছেন, তিনি বাইরে থাকবেন আর একজনকে আমরা এতদিন জেলে রাখব? আপনারা সুপ্রিম কোর্টে তাঁর বিরুদ্ধে তথ্য দিচ্ছেন তো?’‌ সিবিআই জানায়, ‘সবই দেওয়া হচ্ছে।’ এই মামলায় ৮ মে পরবর্তী শুনানির দিন ধার্য করা হয়েছে। তবে অভিযুক্তর আইনজীবী প্রীতম রায় বলেন, ‘‌কী নতুন তথ্য সিবিআই হাতে পেয়েছে বা কাদের প্রভাবিত করা হয়েছে তা আমাদের জানানো হয়নি।’‌

বন্ধ করুন