বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > বেলেঘাটা আইডির বাথরুম থেকে করোনা রোগীর ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার
বেলেঘাটা আইডির বাথরুম থেকে করোনা রোগীর ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য হিন্দুস্তান টাইমস)
বেলেঘাটা আইডির বাথরুম থেকে করোনা রোগীর ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য হিন্দুস্তান টাইমস)

বেলেঘাটা আইডির বাথরুম থেকে করোনা রোগীর ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার

  • প্রাথমিকভাবে অনুমান করা হচ্ছে যে, রোগে ভোগার কারণেই এই বৃদ্ধ মানসিকভাবে অবসাদগ্রস্ত হয়ে পড়েছিলেন। এমনকী, চিকিৎসকরাও তাই বলছেন যে, অনেক করোনা আক্রান্ত রোগীর মধ্যেই মানসিকভাবে ভেঙে পড়ার প্রবণতা দেখা যায়। সেক্ষেত্রে তাঁদের একাকীত্ব কাটানোর জন্য কাউন্সিলিংয়ের প্রয়োজন রয়েছে বলেও জানান চিকিৎসকরা

এক করোনা আক্রান্ত প্রৌঢ়ের ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার হল বেলেঘাটা আইডির বাথরুম থেকে। সোমবার এই ঘটনা ঘিরে উত্তেজনা ছড়িয়েছে বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালে। করোনা সংক্রমণ নিয়ে কয়েকদিন আগেই হাসপাতালে ভরতি হয়েছিলেন ওই প্রৌঢ়। আর পাঁচটা রোগীর মতোই স্বাভাবিক ছিলেন তিনি। তাঁর আচরণে কোনও অস্বাভাবিকতাও লক্ষ্য করেননি চিকিৎসক বা নার্সরা। কিন্তু সেই রোগীরই ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার হওয়াকে ঘিরে হতবাক চিকিৎসক, নার্সরা।

বেলেঘাটা আইডি সূত্রে জানা গিয়েছে, মৃত ওই রোগীর নাম কালাচাঁদ দাস(‌৭৫)‌। গত ২৪ এপ্রিল শরীরে করোনার উপসর্গ নিয়ে বেলেঘাটা আইডিতে ভরতি হয়েছিলেন তিনি। হাসপাতালের আইবি এইটে ৪২ নম্বর বেডে ভরতি ছিলেন কালাচাঁদবাবু। এরপর চিকিৎসকরা তাঁর কোভিড পরীক্ষা করালে, রিপোর্ট পজিটিভ আসে। চিকিৎসা শুরু হওয়ার পর থেকেই শারীরিক অবস্থারও উন্নতিও হয় তাঁর। সেই সময়ও তাঁর স্বভাবে কোনও পরিবর্তন দেখতে পাননি তাঁর চিকিৎসার দায়িত্বে থাকা নার্সরা।

এদিন সকালে হাসপাতালেরই বাথরুম থেকে তাঁর ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার করা হয়। প্রাথমিকভাবে অনুমান করা হচ্ছে যে, রোগে ভোগার কারণেই এই বৃদ্ধ মানসিকভাবে অবসাদগ্রস্ত হয়ে পড়েছিলেন।

এমনকী, চিকিৎসকরাও তাই বলছেন যে, অনেক করোনা আক্রান্ত রোগীর মধ্যেই মানসিকভাবে ভেঙে পড়ার প্রবণতা দেখা যায়। সেক্ষেত্রে তাঁদের একাকীত্ব কাটানোর জন্য কাউন্সিলিংয়ের প্রয়োজন রয়েছে বলেও জানান চিকিৎসকরা।

এই ঘটনার ক্ষেত্রেও মনে করা হচ্ছে, যে ওই বৃদ্ধ মানসিক অবসাদগ্রস্ত হয়েই আত্মহত্যা করেছেন। খাস কলকাতার বুকেই হাসপাতালে এই ধরনের ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। এই ঘটনার প্রভাব যাতে অন্যান্য রোগীদের মধ্যে না—পড়ে, সেই দিকেও লক্ষ্য রাখছেন চিকিৎসকেরা।

 

বন্ধ করুন