বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > ভোটপ্রচারে প্ররোচনা দেওয়ার অভিযোগ, মিঠুনের বিরুদ্ধে তদন্ত কতদূর? প্রশ্ন আদালতের
মিঠুন চক্রবর্তী
মিঠুন চক্রবর্তী

ভোটপ্রচারে প্ররোচনা দেওয়ার অভিযোগ, মিঠুনের বিরুদ্ধে তদন্ত কতদূর? প্রশ্ন আদালতের

  • তাঁদের অভিযোগ, মিঠুন যে বক্তব্যগুলি করেছেন সেগুলি নিরীহ সংলাপ নয়। প্রচ্ছন্ন শাসানি। তাঁর ওই সব সংলাপের জেরেই বিজেপি যে সব আসনে জিতেছে সেখানে আক্রান্ত হয়েছে তৃণমূল।

বিজেপি নেতা মিঠুন চক্রবর্তীর বিরুদ্ধে দায়ের উসকানিমূলক মন্তব্য করার মামলায় পুলিশের কাছে রিপোর্ট চাইল আদালত। মানিকতলা থানায় দায়ের ওই মামলার তদন্তের অগ্রগতি নিয়ে রিপোর্ট তলব করেছেন শিয়ালদা আদালত। আগামী ১ জুনের মধ্যে জমা দিতে হবে ওই রিপোর্ট। 

গত ৯ মার্চ মোদীর সভায় বিজেপিতে যোগদান করেন মিঠুন। এর পর জল্পনা ছড়ায়, তবে কি বিজেপির মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী তিনিই। তার জবাব অবশ্য কোনও দিন দেয়নি বিজেপি। ঝোড়ো ভোটপ্রচারে একের পর এক রোড শো ও সভা করেন মিঠুন। করোনার পরোয়া না করে সর্বশক্তি দিয়ে প্রচার করেন রাজ্যের প্রতিটি প্রান্তে। আর প্রতিটি সভাতেই জনপ্রিয় অভিনেতার কাছ থেকে তাঁর জনপ্রিয় সংলাপগুলি শুনতে চাইতেন উপস্থিত নেতাকর্মীরা। নিরাশ করতেন না মিঠুনও। সেই সংলাপগুলিকে হাতিয়ার করে গত ৬ মে মানিকতলায় মামলা করে তৃণমূল প্রভাবিত সংগঠন সিটিজেনস ফোরাম। 

তাঁদের অভিযোগ, মিঠুন যে বক্তব্যগুলি করেছেন সেগুলি নিরীহ সংলাপ নয়। প্রচ্ছন্ন শাসানি। তাঁর ওই সব সংলাপের জেরেই বিজেপি যে সব আসনে জিতেছে সেখানে আক্রান্ত হয়েছে তৃণমূল। জনসভায় মিঠুনকে বারবার বলতে শোনা গিয়েছে, ‘মারবো এখানে, লাশ পড়বে শ্মশানে।’, ‘আমি জলঢোড়াও নই বালিবোড়াও নই, আমি জাত গোখরো। এক ছোবলেই ছবি’। যা রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত। 

গত ৬ মে মিঠুন ছাড়াও দিলীপ ঘোষের বিরুদ্ধে প্ররোচনা দেওয়ার অভিযোগ দায়ের করে তৃণমূল। সেই মামলায় শুক্রবার শিয়ালদহ সিজেএম কোর্টের বিচারক মামলার অগ্রগতি সংক্রান্ত রিপোর্ট চেয়েছেন। মিঠুনের বিরুদ্ধে FIR ঙয়েছে কি না? তা জানতে চেয়েছেন বিচারক। ১ জুন ফের শুনানি হবে এই মামলার। 

 

বন্ধ করুন