ফাইল ছবি
ফাইল ছবি

পশ্চিমবঙ্গে করোনা পরীক্ষা পরিমাণ জনসংখ্যার তুলনায় নগন্য: NICED-এর ডিরেক্টর

  • শান্তাদেবী জানিয়েছেন, কার টেস্ট করা হবে তা ঠিক করার এক্তিয়া ICMR-এর নেই। প্রথমে দিনে ৮০-৯০টি করে নমুনা পাচ্ছিলাম। গত ৩ দিনে সেই সংখ্যা তলানিতে ঠেকেছে।

করোনা রোগীর সংখ্যা কম করে দেখাতে পরীক্ষাই করাচ্ছে না মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার। বিরোধীদের এই অভিযোগেরই প্রতিধ্বনী শোনা গেল কেন্দ্রীয় সংস্থা NICED-এর ডিরেক্টরের মুখে। একটি সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাতকারে তিনি বলেছেন, পশ্চিমবঙ্গে বর্তমানে টেস্ট কিটের অভাব নেই। তাও পরীক্ষার জন্য খুব কম সংখ্যায় নমুনা পাঠাচ্ছে রাজ্য সরকার।

করোনা মোকাবিলায় ব্যাপক হারে পরীক্ষা প্রয়োজন বলে জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। কিন্তু সেই নির্দেশিকা পশ্চিমবঙ্গে মানা হচ্ছে না বলে অভিযোগ উঠেছে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের বিরুদ্ধে। ICMR-NICED-এর নির্দেশক শান্তা দত্ত জানিয়েছেন, গত ৩ দিনে পশ্চিমবঙ্গে যথাক্রমে ১৮টি, ৯টি ও ২০টি নমুনা পরীক্ষা হয়েছে। যা পশ্চিমবঙ্গের মতো ঘনজনবসতিপূর্ণ রাজ্যের জন্য নগন্য।

সঙ্গে তিনি এও জানিয়েছেন, পশ্চিমবঙ্গে করোনাভাইরাস পরীক্ষার কিটের কোনও অভাব নেই। রাজ্যে অন্তত ২৭,৫০০টি কিট মজুত রয়েছে। অথচ আজ পর্যন্ত পশ্চিমবঙ্গে করোনা পরীক্ষা হয়েছে মাত্র ২,৫২৩টি। যা দেশের মধ্যে প্রতি ১০ লক্ষ জনসংখ্যা পিছু সব থেকে কম।

শান্তাদেবী জানিয়েছেন, কার টেস্ট করা হবে তা ঠিক করার এক্তিয়া ICMR-এর নেই। প্রথমে দিনে ৮০-৯০টি করে নমুনা পাচ্ছিলাম। গত ৩ দিনে সেই সংখ্যা তলানিতে ঠেকেছে। ৩ দিনে পরীক্ষার জন্য নমুনা এসেছে যথাক্রমে ১৮টি, ৯টি ও ২০টি। পশ্চিমবঙ্গের মতো ঘনজনবসতিপূর্ণ রাজ্যের ক্ষেত্রে যা নিতান্তই কম।

শান্তাদেবী জানিয়েছেন, রাজ্যগুলিকে আরও বেশি করে করোনা পরীক্ষা করানোর নির্দেশিকা পাঠিয়েছে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রক। তাতে যে কোনও জ্বরেই করোনা পরীক্ষার নিদান দেওয়া হয়েছে। কিন্তু কোনও অজ্ঞাত কারণে তা মানছে না পশ্চিমবঙ্গ সরকার।রকার।

বন্ধ করুন