বাড়ি > বাংলার মুখ > কলকাতা > পুলিশের সামনে করোনায় মৃতের দেহ নামাতে তোলাবাজির অভিযোগ হাওড়ায়
প্রতীকি ছবি
প্রতীকি ছবি

পুলিশের সামনে করোনায় মৃতের দেহ নামাতে তোলাবাজির অভিযোগ হাওড়ায়

  • পরিবারের তরফে জানানো হয়েছে, বেলা ২টো নাগাদ পৌঁছয় পুরসভার শবদেহবাহী গাড়ি। সঙ্গে কয়েকজন যুবক। তাঁরা দেহ চার তলা থেকে নামাতে ৪০০০ টাকা দাবি করেন।

করোনা রোগীদের থেকে তোলাবাজি রুখতে রবিবারই রাজ্যগুলিকে অ্যাম্বুল্যান্সের ভাড়া বেঁধে দিতে বলেছে সু্প্রিম কোর্ট। তবে তোলাবাজি যে শুধু অ্যাম্বুল্যান্সে চলছে না তা ভুক্তভোগী মাত্রেই বিলক্ষণ জানেন। বিশেষ করে করোনায় কারও মৃত্যু হলে দেহ সৎকারের জন্য পদে পদে টাকা দিতে হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে বারে বারে। তেমনই এক অভিযোগ উঠেছে বুধবার। অভিযোগ, করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত বৃদ্ধার দেহ চার তলা থেকে নামিয়ে শবদেহবাহী গাড়়িতে তুলে দেওয়ার জন্য ৪,০০০ টাকা দাবি করেছেন পুরসভার পাঠানো কর্মীরা। 

ঘটনা হাওড়ার বটানিক্যাল গার্ডেন এলাকার কলেজ ঘাট রোডের। জানা গিয়েছে, করোনার উপসর্গ থাকায় গত মঙ্গলবার করোনা পরীক্ষা করান ৫৮ বছর বয়সী এক বৃদ্ধা। বুধবার বেলা ১১টা নাগাদ তাঁর মৃত্যু হয়। তবে তখনও তাঁর করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট আসেনি। বেলা ২টো নাগাদ রিপোর্ট এলে জানা যায় তিনি সংক্রমিত। এর পর পুলিশ ও স্বাস্থ্য দফতরে খবর দেন প্রৌঢ়ার ছেলে। 

পরিবারের তরফে জানানো হয়েছে, বেলা ২টো নাগাদ পৌঁছয় পুরসভার শবদেহবাহী গাড়ি। সঙ্গে কয়েকজন যুবক। তাঁরা দেহ চার তলা থেকে নামাতে ৪০০০ টাকা দাবি করেন। টাকা দিতে অস্বীকার করলে দেহ নামাতে অস্বীকার করেন তাঁরা। অভিযোগ, সামনে পুলিশকর্মীরা দাঁড়িয়ে থাকলেও কোনও পদক্ষেপ করেননি। উলটে আপোস করে নেওয়ার পরামর্শ দেন তাঁরা। এর পর প্রৌঢ়ার ২ ছেলেই মার দেহ নীচে নামান। 

ঘটনার কথা জানা নেই বলে দাবি করেছেন হাওড়া সিটি পুলিশের এক আধিকারিক। পুরসভার দাবি, বুধবার যাঁদের পাঠানো হয়েছিল তাঁরা পুরসভার ডোম নন। প্রশ্ন হচ্ছে, তাহলে পুরসভার শবদেহবাহী গাড়ির সঙ্গে গেলেন কারা? 

 

বন্ধ করুন