বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > ‘বেইমানের সাথে এমনই হওয়া উচিত’,দলেরই সংসদের বিরুদ্ধে বিস্ফোরক ‘মাতৃভক্ত’ দেবাংশু
দেবাংশুর প্রতিক্রিয়া
দেবাংশুর প্রতিক্রিয়া

‘বেইমানের সাথে এমনই হওয়া উচিত’,দলেরই সংসদের বিরুদ্ধে বিস্ফোরক ‘মাতৃভক্ত’ দেবাংশু

  • দলবদল করে তৃণমূলে ফেরা নেতাদের প্রসঙ্গে দেবাংশু লেখেন, ‘এরা আজ আছে, কিন্তু আগামীতে আবার টালমাটাল পরিস্থিতির সৃষ্টি হলে আবার পালাবে।’

ফরোয়ার্ড ব্লক ছেড়ে তৃণমূলে যোগ দিয়েছিলেন। পরে তৃণমূল ছেড়ে যোগ দিয়েছিলেন বিজেপিতে। এরপর ফের একবার তৃণমূল কংগ্রেসে ফিরে আসেন। এহেন সুনীল মণ্ডলকে এবার খোঁচা মারলেন তৃণমূল কংগ্রেসের যুবনেতা দেবাংশু ভট্টাচার্য। সুনীল মণ্ডল বিজেপি ছেড়ে তৃণমূলে যোগ দিয়ে বলেছিলেন যে তিনি কোনওদিন দলবদল করেননি। লোকসভার অধ্যক্ষের শোকজ নোটিশেও সুনীলবাবু জানিয়েছিলেন তিনি তৃণমূলেই আছেন। বর্ধমান পূর্বের এই সাংসদকে নিয়েই সোশ্যাল মিডিয়া পোস্টে বিস্ফোরক দেবাংশু। তিনি লেখেন, ‘সুনীলবাবু কোন দলে রয়েছেন আমার জানা নেই।’

দেবাংশু এদিন লেখেন, ‘এখন উনি (সুনীল মণ্ডল) কোন দলে আছেন জানিনা। দল গ্রহণ করবে কিনা তাও জানিনা। তবে একুশের লড়াইতে বেইমানি করা প্রতি বেইমান এবং গাদ্দারদের সঙ্গে প্রতিটি বুথে ঠিক এমনটাই হওয়া উচিত। এরা আজ আছে, কিন্তু আগামীতে আবার টালমাটাল পরিস্থিতির সৃষ্টি হলে আবার পালাবে।’

দেবাংশু লেখেন, ‘সুনীলবাবু কোন দলে রয়েছেন আমার জানা নেই।’
দেবাংশু লেখেন, ‘সুনীলবাবু কোন দলে রয়েছেন আমার জানা নেই।’

দেবাংশু এদিন দলবদলুদের তৃণমূলে ফেরা নিয়ে আপত্তি স্পষ্ট করে দেন। এর আগেও বিধানসভা নির্বাচনের সময় দেবাংশু দাবি করেছিলেন, দলবদল করা নেতারা ভোটের পরে দলে ফিরতে চাইলে কালীঘাটে মমতার ঘরের সামনে তিনি নিজে শুয়ে থেকে তাঁদের আটকাবেন। এই আবহে দেবাংশু আজ লেখেন, ‘খুনের হুমকির মুখে দাঁড়ান, দিলীপ ঘোষেদের অনাথ করে দেওয়ার থ্রেট শোনেন, সায়ন্তন বসুদের বুকে গুলি চালানোর থ্রেট শোনেন, তার পরেও লড়াই থামান না তৃণমূল কর্মীরা। তাই যে জঞ্জাল হাওয়ায় উড়ে নিজে থেকে বাড়ির বাইরে বেরিয়ে গেছে, সেটা আবার উল্টো হওয়ায় ঘরে ঢুকতে চাইলে ঘরের সদস্যরা ঝাঁটা হাতে তুলে দাঁড়াবেন না কেন বলুন তো?’

দেবাংশু এদিন আরও লেখেন, ‘মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সেদিনের পায়ের চোট আমরা কেউ ভুলিনি। আর সেই সময়ে কারা তার বিপরীতে দাঁড়িয়ে ব্যঙ্গ করেছিল, সেটাও ভুলিনি। মা ক্ষমাশীল হতে পারেন, এটা মায়ের ধর্ম। কিন্তু মাতৃভক্ত সন্তানদেরও সমান ক্ষমাশীল হতে হবে, এমন নিদান কোথাও দেওয়া নেই।’

বন্ধ করুন