বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > বাঁশদ্রোণীর পশ এলাকায় মুণ্ডহীন পচাগলা দেহ, রহস্য উন্মোচনে তদন্তে পুলিশ
বাঁশদ্রোণী এলাকাতে উদ্ধার হল মুণ্ডহীন পচাগলা দেহ। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য হিন্দুস্তান টাইমস)
বাঁশদ্রোণী এলাকাতে উদ্ধার হল মুণ্ডহীন পচাগলা দেহ। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য হিন্দুস্তান টাইমস)

বাঁশদ্রোণীর পশ এলাকায় মুণ্ডহীন পচাগলা দেহ, রহস্য উন্মোচনে তদন্তে পুলিশ

  • আর এই ঘটনাকে ঘিরেই তীব্র চাঞ্চল্য ছড়াল গোটা এলাকায়। এই ঘটনা খুন হিসাবেই দেখছেন স্থানীয় বাসিন্দারা।

খাস কলকাতায় মুণ্ডহীন দেহ উদ্ধারকে কেন্দ্র করে চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ল। করোনাভাইরাস সংক্রমণের জেরে রাজ্যজুড়ে চলছে কার্যত লকডাউন। গণপরিবহণ বন্ধ থাকায় বহু রাস্তাই এখন শুনশানের আকার নিয়েছে। এই পরিস্থিতিতে এবার কলকাতার বাঁশদ্রোণী এলাকাতে উদ্ধার হল মুণ্ডহীন পচাগলা দেহ। আর এই ঘটনাকে ঘিরেই তীব্র চাঞ্চল্য ছড়াল গোটা এলাকায়। এই ঘটনা খুন হিসাবেই দেখছেন স্থানীয় বাসিন্দারা। তার জেরে চাপা আতঙ্ক তৈরি হয়েছে।

ঠিক কী ঘটেছে? স্থানীয় সূত্রে খবর, বৃহস্পতিবার রাতে বাঁশদ্রোণী থানা এলাকার ব্রহ্মপুরের পার্লামেন্ট এবং সবুজ সোনালী সংঘ ক্লাবের মাঝে অবস্থিত অশ্বত্থপুকুরের পাশে একটি মৃতদেহ পড়ে থাকতে দেখা যায়। তখন কতিপয় উৎসাহী জনগণ কাছে গিয়ে ভয়ানক দৃশ্য দেখতে পান। তাঁরা দেখতে পান, মৃতদেহটির মুণ্ড আর ধর আলাদা। তার মধ্যে কোথাও মুণ্ডটি নেই। মৃতদেহের পরনে কালো হাফপ্যান্ট। আর দেহে পচনও ধরে গিয়েছে। তখনই পুলিশে খবর দেন তাঁরা। আর খবরটি আজ চাউর হয়েছে।

পুলিশ সূত্রে খবর, বাঁশদ্রোণী থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে মৃতদেহটি উদ্ধার করে। আর সেটি ময়নাতদন্তের জন্যও পাঠানো হয়। তবে এই ঘটনা নিয়ে রয়েছে ধোঁয়াশা। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট হাতে পেলেই সামনে আসবে ঘটনার সত্যতা। মৃতের পরিচয়ও জানা যায়নি। প্রাথমিক তদন্তে পুলিশের অনুমান, অন্য কোথাও খুন করে মৃতদেহটি ওই পরিত্যক্ত পুকুরের পাড়ে ফেলে যাওয়া হয়েছে। এই মৃতদেহ উদ্ধারের ঘটনায় গোটা এলাকায় তীব্র চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে।

বন্ধ করুন