বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > করোনার সংক্রমণ বৃদ্ধি নিয়ে নাম না করে সুজিতকে খোঁচা দিলীপের

করোনার সংক্রমণ বৃদ্ধি নিয়ে নাম না করে সুজিতকে খোঁচা দিলীপের

দিলীপ ঘোষ। 

এর আগেও তৃণমূলের মধ্যেও রাজ্যের মন্ত্রীর এই পুজোকে নিয়ে সমালোচনা হয়।

নাম না করে রাজ্যে করোনা সংক্রমণ বাড়া নিয়ে রাজ্যের মন্ত্রী সুজিত বসুকে নিশানা করলেন বিজেপির সর্বভারতীয় সহ সভাপতি দিলীপ ঘোষ। এর আগে দলের মধ্যেই সমালোচিত হতে হয়েছিল রাজ্যের মন্ত্রীকে। এবার বিজেপির তরফেও কটাক্ষের সুর রাজ্যের মন্ত্রীর প্রতি।

সম্প্রতি উপনির্বাচনের প্রচারে দিনহাটা গিয়েছিলেন দিলীপবাবু। কোচবিহারের সাগরদীঘি পার এলাকায় প্রাতঃভ্রমণে বেরিয়ে রাজ্যের করোনা পরিস্থিতি নিয়ে মুখ খোলেন তিনি। বিজেপির সর্বভারতীয় সহ সভাপতি জানান, ‘‌একজন নেতার পুজোতে নাকি লাখ লাখ লোকের ভিড় হয়েছে। স্বাভাবিকভাবেই সংক্রমণ বেড়েছে। রাজ্য সরকারের তরফে অবিলম্বে পদক্ষেপ নেওয়া উচিত যাতে আর সংক্রমণ না বাড়ে। পদক্ষেপ যদি না নেওয়া হয় তাহলে ভয়াবহ পরিস্থিতি তৈরি হতে পারে।’‌ উল্লেখ্য, দিলীপবাবু যে নেতার পুজোর বিষয়ে ইঙ্গিত করতে চাইছেন তা হল সুজিত বসুর পৃষ্টপোষকতায় আয়োজিত শ্রীভূমি স্পোর্টিং ক্লাবের পুজো। এবারে এই পুজোর থিম ছিল দুবাইয়ের ‘‌বুর্জ খালিফা’‌। 

দুবাইয়ের এই বহুতলের স্থাপত্যকলা দেখতে কাতারে কাতারে মানুষের ভিড় হয়েছিল এখানে। ভিড় এতটাই জমেছিল যে শেষ পর্যন্ত নবমীর দিন প্রতিমা দর্শন বন্ধ করে দেওয়া হয়। করোনা পরিস্থিতি যখন রাজ্যে উর্ধমুখী তখন রাজ্যের মন্ত্রীর এই পুজোকে নিয়ে বিতর্ক দানা বাধে।

 

এর আগেও তৃণমূলের মধ্যেও রাজ্যের মন্ত্রীর এই পুজোকে নিয়ে সমালোচনা হয়। এই প্রসঙ্গে শ্রীরামপুরের সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছিলেন, সুজিত ভালো ছেলে। তবে ওর আরো বেশি সতর্ক হওয়া উচিত ছিল। বিমানবন্দর এলাকায় নির্দিষ্ট স্থানের মধ্যে আলোর জন্য আলাদাভাবে অনুমতি নিতে হয়। পাশাপাশি রাজ্য সরকার খোলামেলা প্যান্ডেলের কথা বলেছিল। ভিড় এড়িয়ে পুজো করার কথা বলেছিল। কিন্ত তারপরেও কেন ভিড় ডেকে আনা হল। আসলে সবকিছু করোনাবিধি মেনে করা উচিত ছিল।

 

বন্ধ করুন