দিলীপ ঘোষ। ফাইল ছবি
দিলীপ ঘোষ। ফাইল ছবি

'মা-মেয়েকে জীবন্ত পুড়িয়ে মারায় মূল অভিযুক্ত সাদ্দাম শুভেন্দুর ডান হাত'

তৃণমূলের হয়ে ভোট লুঠ করতে গিয়ে ধরা পড়ে। পুলিশ তাদের পরে ছেড়েও দেয়। অভিযুক্ত যুবক আমাদের মাননীয় মন্ত্রী শুভেন্দুবাবুর ডান হাত।

হলদিয়ায় মা ও মেয়েকে জীবন্ত পুড়িয়ে মারার ঘটনায় ধৃত মূল অভিযুক্ত সাদ্দাম হুসেনকে ‘তৃণমূলের একনিষ্ঠ ভক্ত’ বলে দাবি করলেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। সোমবার বিধাননগরে নিজের বাসভবনের সামনে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে এই ঘটনায় রাজ্যে নারীদের নিরাপত্তা ও আইনশৃঙ্খলা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন তিনি।

এদিন দিলীপবাবু বলেন, রাজ্যে এমন ঘটনা ঘটছে যে শুনলে মন খারাপ হয়ে যায়। মনে ভয়ের পরিবেশ তৈরি হয়। মহিলাদের ওপর লাগাতার অত্যাচার চলছে সব জায়গায়। আর সেটা এমন চূড়ান্ত জায়গায় পৌঁছেছে যে আমরা কল্পনাও করতে পারি না। হায়দরাবাদে একজন মহিলা চিকিৎসককে হত্যা করা হয়েছিল। সেই ঘটনায় গোটা দেশ কেঁপে উঠেছিল। সংসদ অচল হয়ে গিয়েছিল। আজ হলদিয়ায় মা ও মেয়েকে জীবন্ত জ্বালিয়ে দেওয়া হয়েছে। মানুষ সেই ছবি দেখে শিউরে উঠছে। এটা নজিরবিহীন। যে করেছে সে তৃণমূলের একজন অনন্য ভক্ত। তৃণমূলের হয়ে ভোট লুঠ করতে গিয়ে ধরা পড়ে। পুলিশ তাদের পরে ছেড়েও দেয়। অভিযুক্ত যুবক আমাদের মাননীয় মন্ত্রী শুভেন্দুবাবুর ডান হাত। আমি জানি না তৃণমূল এই ধরণের লোকেদের সম্পদ বলে মনে করে কি না। যারা যা খুশি তাই করার ছাড়পত্র পেয়ে যায়।

বলে রাখি, গত ১৮ ফেব্রুয়ারি সকালে হলদিয়ার দুর্গাচকে উদ্ধার হয় ২টি জ্বলন্ত দেহ। ময়নাতদন্তের রিপোর্টে জানা যায় দেহ ২টি মহিলার। তদন্তে নেমে পুলিশ জানতে পারে দেহ দুটি রমা দে ও তাঁর মেয়ে রিয়া দের। ফেসবুকে আয়েসা দে নামে প্রোফাইল খুলেছিল রিয়া। তার সঙ্গে পরিচয় হয় হলদিয়ার দুর্গাচকের বাসিন্দা শেখ সাদ্দামের। মায়ের সঙ্গে সাজ্জাদের সঙ্গেই দেখা করতে এসেছিল ১৯ বছরের ওই তরুণী।

পুলিশি জেরায় সাদ্দাম দাবি করেছে, তার নগ্ন ছবি প্রকাশ করে দেওয়ার হুমকি দিয়ে ২০ লক্ষ টাকা দাবি করেছিলেন রিয়া ও রমা। তাই তাদের খুন করেছে সে। সাদ্দামের দাবির সত্যতা খতিয়ে দেখছে পুলিশ।



বন্ধ করুন