বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > বাঁধ নির্মাণে দুর্নীতি আর দিঘায় টাকা কামাতে গিয়ে ঝাউবন ধ্বংসের পরিণাম: দিলীপ
দিলীপ ঘোষ। (ফাইল ছবি, সৌজন্য পিটিআই)
দিলীপ ঘোষ। (ফাইল ছবি, সৌজন্য পিটিআই)

বাঁধ নির্মাণে দুর্নীতি আর দিঘায় টাকা কামাতে গিয়ে ঝাউবন ধ্বংসের পরিণাম: দিলীপ

  • দিঘার জলোচ্ছ্বাস নিয়েও প্রশ্ন তোলেন তিনি। বলেন, ‘দিঘায় সমস্ত ঝাউবন ভেঙে দিয়ে, সমস্ত বালিয়াড়ি দখল করে হোটেল, বাড়ি তৈরি হয়েছে। হোটেল একেবারে সমুদ্র পর্যন্ত চলে যাচ্ছে। টাকা কামাতে গিয়ে পরিবেশকে নষ্ট করা হচ্ছে।

ঘূর্ণিঝড় ইয়াসে বিধ্বস্ত এলাকার পুনর্গঠনে সরকারের চেষ্টার সমালোচনা করলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। শনিবার সংবাদমাধ্যমকে তিনি বলেন, ‘প্রতি বছর বাঁধ নির্মাণে দুর্নীতি হয় কী করে? তার আগে তদন্ত হওয়া উচিত।’

দিলীপবাবু এদিন বলেন, ‘প্রত্যেক বছর বাঁধ ভেঙে যাচ্ছে কেন? বাঁধ নেই কেন? ভাঙা বাঁধের কাঁচা মাটি দিয়ে আবার বাঁধ তৈরি হচ্ছে, আবার পরের বছর ভেঙে যাচ্ছে। এটা উনি স্বীকার করেছেন। এর স্থায়ী সমাধান খুঁজতে হবে’। 

দিঘার জলোচ্ছ্বাস নিয়েও প্রশ্ন তোলেন তিনি। বলেন, ‘দিঘায় সমস্ত ঝাউবন ভেঙে দিয়ে, সমস্ত বালিয়াড়ি দখল করে হোটেল, বাড়ি তৈরি হয়েছে। হোটেল একেবারে সমুদ্র পর্যন্ত চলে যাচ্ছে। টাকা কামাতে গিয়ে পরিবেশকে নষ্ট করা হচ্ছে। তার পরিনাম দিঘায় এত বড় জলোচ্ছ্বাস’। 

সুন্দরবনে ভেড়ি তৈরির পুরনো অভিযোগ ফের করেন দিলীপবাবু। বলেন, ‘সুন্দরবনেও সুন্দরী গাছের ম্যানগ্রোভ কেটে ভেড়ি তৈরি করা হচ্ছে। তাই সবাইকে প্রকৃতির রোষে পড়তে হচ্ছে। কংক্রিটের বাঁধ তৈরি করার জন্য আয়লার সময় ৫.৫ হাজার কোটি টাকা এসেছিল। কতটুকু বাঁধ তৈরি হয়েছে তার তদন্ত হওয়া উচিত। কেন হয়নি? দুর্নীতি কেন প্রতি বছর হচ্ছে? এটা না হলে যতই টাকা ঢালা হোক কোনও সমাধান হবে না’।

ঘূর্ণিঝড় ও কটালের জলোচ্ছ্বাসে উপকূলের নদী ও সমুদ্রবাঁধের আসল চেহারা প্রকাশ্যে চলে এসেছে। বাঁধ ভেঙে প্লাবিত হয়েছে দক্ষিণ ২৪ পরগনার বিস্তীর্ণ এলাকা। যে জন্য তৃণমূল সরকারকেই দায়ী করেছে বিজেপি।

 

বন্ধ করুন