বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > বিজেপির কর্মসূচি ঘিরে ধুন্ধুমার শহরে, গ্রেফতার শুভেন্দু, দিলীপ, দেবশ্রী
বিজেপির কর্মসূচি ঘিরে ধুন্ধুমার শহরে, গ্রেফতার শুভেন্দু, দিলীপ, দেবশ্রী: ছবি (‌সৌজন্য ফেসবুক)‌
বিজেপির কর্মসূচি ঘিরে ধুন্ধুমার শহরে, গ্রেফতার শুভেন্দু, দিলীপ, দেবশ্রী: ছবি (‌সৌজন্য ফেসবুক)‌

বিজেপির কর্মসূচি ঘিরে ধুন্ধুমার শহরে, গ্রেফতার শুভেন্দু, দিলীপ, দেবশ্রী

  • পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, বিজেপি নেতাদের মহামারী আইনে গ্রেফতার করা হয়েছে

বিজেপির ‘‌পশ্চিমবঙ্গ বাঁচাও’‌ কর্মসূচি ঘিরে ধুন্ধুমার কাণ্ড ঘটে গেল রানী রাসমণি রোডে। গ্রেফতার করা হলে বিজেপির প্রথম সারির এক ঝাঁক নেতাদের। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে,মহামারী আইনে গ্রেফতার করা হয়েছে শুভেন্দু অধিকারী, দিলীপ ঘোষ ছাড়াও প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী দেবশ্রী চৌধুরীকেও। ঘটনা ঘিরে বিক্ষোভ ফেটে পড়েছে বিজেপি নেতৃত্ব।

সোমবার সকালেই এই কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করেছিলেন বিজেপি সাংসদ সৌমিত্র খাঁ ও প্রাক্তন বিধায়ক শীলভদ্র দত্ত। ধর্মতলা চত্বর থেকে তাঁদের গ্রেফতার করে নিয়ে যায় পুলিশ। পরে শুভেন্দু অধিকারী ও দিলীপ ঘোষকে বাসে করে লালবাজারে নিয়ে যাওয়া হয়।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, বিজেপি নেতাদের মহামারী আইনে গ্রেফতার করা হয়েছে। ঘটনায় উত্তপ্ত হয়ে ওঠে রানী রাসমণি রোড। ঘটনাস্থলে বিশাল পুলিশবাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে।পুলিশের দাবি, এই কর্মসূচি অনুষ্ঠিত করতে বিজেপিকে কোনও অনুমতি দেওয়া হয়নি।

জানা গিয়েছে, খেলা দিবসের পাল্টা পশ্চিমবঙ্গ বাঁচাও কর্মসূচি পালনের ডাক দেয় বিজেপি নেতৃত্ব। সেই মতো এদিন সকাল থেকেই কর্মসূচি পালন করতে তোড়জোড় শুরু হয়ে যায়।রানী রাসমণি রোডে বিজেপির এই কর্মসূচির জন্য জমায়েত শুরু হতেই, গোটা এলাকা ঘিরে ফেলে পুলিশ।বিজেপির অভিযোগ, তাঁদের একাধিক নেতাকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

অন্য দিকে, পুলিশের চোখে ধুলো দিয়ে গান্ধী মূর্তির পাদদেশে অবস্থান বিক্ষোভে সামিল হন বিজেপি নেতারা। সেখানে যোগদান করেন দিলীপ ঘোষ, শুভেন্দু অধিকারী ও জয়প্রকাশ মজুমদার-‌সহ একাধিক গেরুয়া শিবিরের প্রথম সারির নেতারা। সেখানেই ছিলেন বিজেপি নেত্রী দেবশ্রী চৌধুরীও।

অবস্থান বিক্ষোভের খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে এসে পৌঁছায় বিশাল পুলিশ বাহিনী। তার পরে ঘটনাস্থল থেকে ধরপাকড় শুরু করে পুলিশ। উত্তপ্ত পরিস্থিতির মধ্যে দিলীপ ঘোষ ও শুভেন্দু অধিকারীকে বাসে তোলার সময় বাধা দেন তাঁদের সঙ্গে থাকা কেন্দ্রীয় নিরাপত্তা বাহিনী। তাঁদের সঙ্গে ধস্তাধস্তি শুরু হয় পুলিশের। ঘটনার আগের শুভেন্দু অধিকারী ও দিলীপ ঘোষকে ঘিরে রেখেছিল কেন্দ্রীয় নিরাপত্তা বাহিনী। অবশেষে পুলিশের চাপে বাসে উঠতে বাধ্য হন বিজেপি নেতারা।

জানা গিয়েছে, বিজেপি নেতাদের লালবাজারের নিয়ে যাওয়া হয়েছে। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, মহামারী আইনে তাঁদের বিরুদ্ধে মামলা রুজু করা হচ্ছে। গ্রেফতার হওয়ার আগে দিলীপ ঘোষ বলেন, ‘‌এরাজ্যে হাজার হাজার লোক নিয়ে ফুটবল ম্যাচ খেলা হতে পারে, কিন্তু শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভের অনুমতি দেওয়া হয় না। গণতান্ত্রিক অধিকার পশ্চিমবঙ্গে দেওয়া হয় না।’‌

প্রসঙ্গত, এদিন খেলা হবে দিবস পালন করছে তৃণমূল। সকাল থেকেই রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে ফুটবল খেলা চলছে। তবে অভিযোগ, অনেক জায়গায় করোনা বিধি মানা হচ্ছে না। যদিও প্রথম দিন থেকেই খেলা হবে দিবসের তীব্র বিরোধিতা করছিল বিজেপি। এর পাল্টা দিতে রাজ্যপালের সঙ্গে দেখাও করেছিলেন বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী। তৃণমূলের খেলা হবে’‌র পাল্টা হিসেবে রানী রাসমণি রোডে পশ্চিমবঙ্গ বাঁচাও কর্মসূচি পালনের ডাক দেয় পদ্ম শিবির।

 

বন্ধ করুন