বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > নস্টালজিক নবমীতে শহরের রাস্তায় দোতলা বাস, সফর শেষে হাউসবোটে ভোজন, ভাড়া কত জানেন?
নবান্নের সামনে নতুন দোতলা বাস। ছবি সৌজন্য : পিটিআই (PTI)
নবান্নের সামনে নতুন দোতলা বাস। ছবি সৌজন্য : পিটিআই (PTI)

নস্টালজিক নবমীতে শহরের রাস্তায় দোতলা বাস, সফর শেষে হাউসবোটে ভোজন, ভাড়া কত জানেন?

  • ৫১ সিটের এই বাসের ওপরতলায় থাকবে ১৬টি সিট। প্রথম বাস ছাড়বে সকাল সাড়ে ১০ টায়। সফর শেষ হবে বেলা দেড়টায়। সাড়ে ১১টায় ছাড়বে দ্বিতীয় বাস। সেটি ফিরবে বেলা আড়াইটে নাগাদ।

অজানা কলকাতাকে নতুন করে চেনাতে শহরে প্রমোদভ্রমণের জন্য আজ, নবমী থেকেই রাস্তায় নামল ছাদ–খোলা দোতলা বাস। শনিবারই বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে ‘‌কলকাতা কানেক্ট’‌ নামে এই প্রকল্পের সূচনার কথা জানানো হয়েছে রাজ্যের তরফ থেকে। পশ্চিমবঙ্গ তথা কলকাতায় পর্যটনে প্রসার ঘটানোর লক্ষ্যে ১৩ অক্টোবর নবান্ন থেকে দুটি নীল–সাদা রঙের ডবল ডেকার বাস উদ্বোধন করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাতেই রবিবার থেকে চড়তে পারবেন সাধারণ মানুষ।

পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী শহরের হেরিটেজগুলিকে ঘুরিয়ে দেখাবে এই দোতলা বাস। ওল্ড কারেন্সি বিল্ডিং থেকে যাত্রা শুরুর পর বাস যাবে রাজভবন, কার্জন পার্ক, বিধানসভা, নেতাজি ইন্ডোর স্টেডিয়াম, কলকাতা হাইকোর্ট, ভিক্টোরিয়া, প্রিন্সেপ ঘাট, ট্রেসারি বিল্ডিং, গ্রেট ইস্টার্ন, আকাশবাণী ভবন, ফোর্ট উইলিয়াম প্রভৃতি ঐতিহ্যবাহী স্থানে। প্রতিটি জায়গায় ২০ থেকে ২৫ মিনিট দাঁড়াবে ওই পর্যটন–বাস। মধ্যাহ্নে থাকছে খাওয়াদাওয়ারও ব্যবস্থা। তাও হাউসবোটে করে গঙ্গাবক্ষে।

ওয়েস্ট বেঙ্গল ট্যুরিজম ইন্ডাস্ট্রি ডেভলপমেন্ট কর্পোরেশনের তরফ থেকে জানানো হয়েছে, প্যাকেজে মিলবে এই পরিষেবা। বাসের নীচের তলার জন্য ভাড়া ১২৫০ টাকা আর ওপরের ডেকের জন্য ২৫০০ টাকায় বিকোচ্ছে টিকিটি। তবে ছাদহীন এই ডবল ডেকার বাসে ওপরের তলায় থাকতে গেলে যাত্রীদের ছাতা ও সানস্ক্রিন লোশন নিয়ে যাওয়ার পরমার্শ দেওয়া হয়েছে। উল্লেখ্য, ৫১ সিটের এই বাসের ওপরতলায় থাকবে ১৬টি সিট। প্রথম বাস ছাড়বে সকাল সাড়ে ১০ টায়। সফর শেষ হবে বেলা দেড়টায়। সাড়ে ১১টায় ছাড়বে দ্বিতীয় বাস। সেটি ফিরবে বেলা আড়াইটে নাগাদ।

জানা গিয়েছে, পশ্চিমবঙ্গ পরিবহণ নিগম ৯০ লক্ষ টাকা খরচ করে জামশেদপুরের সংস্থা ‘বেবকো’ এই বাস দুটি তৈরি করিয়েছে। ধাপে ধাপে এরকম আরও ১০টি দোতলা বাস নিতে আগ্রহ প্রকাশ করেছে পরিবহণ দফতর। ছাদ–খোলা এই দুটি বাসই বিএস–৪ গোত্রের। অত্যাধুনিক এই বাসে রয়েছে স্বয়ংক্রিয় দরজা, চওড়া সিঁড়ি, মেট্রোর মতো গন্তব্য–চিহ্নিত বোর্ড, প্যানিক বটন, সিসি টিভি ইত্যাদি। পুরনো ডবল ডেকার বাসগুলিতে দুটি দরজা থাকলেও এটিতে থাকছে কেবল একটি।

বন্ধ করুন