বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > ঘূর্ণিঝড়ের পর সবজির বাজারে দাম নিয়ন্ত্রণে রাখতে অভিযানে ইবি
ঘূর্ণিঝড়ের পর সবজির বাজারে দাম নিয়ন্ত্রণে রাখতে অভিযানে ইবি। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)
ঘূর্ণিঝড়ের পর সবজির বাজারে দাম নিয়ন্ত্রণে রাখতে অভিযানে ইবি। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)

ঘূর্ণিঝড়ের পর সবজির বাজারে দাম নিয়ন্ত্রণে রাখতে অভিযানে ইবি

এদিন বিক্রেতাদের সঙ্গে কথা বলে এনফোর্সমেন্ট ব্রাঞ্চের আধিকারিকরা বোঝার চেষ্টা করেন, পাইকারি বাজারের সঙ্গে খুচরা বাজারের দাম কতটা বেড়েছে।

‌ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের প্রভাব যাতে সবজির বাজারের ওপর না পড়ে সে ব্যাপারে তৎপর এনফোর্সমেন্ট ব্রাঞ্চের আধিকারিকরা।ঘূর্ণিঝড়ের পর সবজির বাজারে দাম ক্রমশ বাড়ছে। এই পরিস্থিতিতে সাধারণ মানুষকে যাতে নাজেহালের শিকার না হতে হয়, সেজন্য এবার বাজারে অভিযান চালালেন ইবির আধিকারিকরা।তাঁরা জিনিসপত্রের দাম খতিয়ে দেখেন।বোঝার চেষ্টা করেন, পাইকারি বাজারের সঙ্গে খুচরো বাজারের দাম কতটা বেড়েছে।

এদিন মানিকতলা বাজারে শাক সবজির দামের ব্যাপারটি খতিয়ে দেখেন ইবির আধিকারিকরা।এদিন ইবির এক আধিকারিক জানিয়েছেন, ‘দাম সামান্য একটু বেড়েছে।আনার খরচও বেড়েছে।তাই পেঁয়াজের দাম বেড়েছে।তবে এর সঙ্গে ঝড়ের কোনও প্রভাব আছে কিনা, বলতে পারব না।’

তবে বিক্রেতারা অবশ্য এই দাম বাড়ার পিছনে ঘূর্ণিঝড় ইয়াসকেই দায়ী করেছেন।তাঁদের মতে, ইয়াসের ধাক্কায় চাষের ক্ষতি হওয়ায় কাঁচা আনাচের দাম হু হু করে বাড়ছে।এদিন বিক্রেতাদের সঙ্গে কথা বলে এনফোর্সমেন্ট ব্রাঞ্চের আধিকারিকরা বোঝার চেষ্টা করেন, পাইকারি বাজারের সঙ্গে খুচরা বাজারের দাম কতটা বেড়েছে।তবে এই দাম বৃদ্ধি যে ঝড়ের কারণেই তা এখনই নিশ্চিতভাবে বলতে পারেননি ইবির আধিকারিকরা।

উল্লেখ্য, মানিকতলা বাজারে গত এক সপ্তাহ আগে কেজি প্রতি পটলের দাম ছিল ৩০ টাকা।এখন তা বেড়ে ৪০ থেকে ৫০ টাকা হয়েছে।পেঁয়াজের দাম কেজি পিছু ২৫ টাকা থেকে বেড়ে হয়ে গিয়েছে ৩০ থেকে ৪০ টাকা।এমনিতেই করোনা পরিস্থিতিতে রাজ্যে বিধি নিষেধ চলছে।এই বিধি নিষেধ জারি থাকার ফলে অনেকেই কাজ হারিয়েছেন।রুটি রুজির সংস্থানও হারিয়েছেন।এই পরিস্থিতিতে বাজারে শাক সবজির দাম ক্রমশ আকাশ ছোঁয়া হচ্ছে।ফলে সাধারণ মানুষকে আরও দুর্বিসহ পরিস্থিতির মধ্যে পড়তে হচ্ছে।

তবে ইবি আধিকারিকদের এই অভিযানের পরও দাম যে কমবে, সে ব্যাপারে আশাবাদী নন ক্রেতারা।তাঁদের অভিযোগ, শাক-সবজির দাম বাড়লে অভিযান চলে। কিন্তু তাতেও পরিস্থিতি বদলায় না।শুধু মানিকতলা বাজারেই নয়, ইবি–র পাশাপাশি পুলিশের তরফেও রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় বাজারে হানা দেওয়া শুরু হয়েছে।পরিস্থিতির সুযোগ নিয়ে কেউ চড়া দামে জিনিসপত্র বিক্রি করছে কিনা, সেবিষয়ে নজর রাখা হচ্ছে।

বন্ধ করুন