HT বাংলা থেকে সেরা খবর পড়ার জন্য ‘অনুমতি’ বিকল্প বেছে নিন
বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > Manik Bhattacharya: দেশে বিদেশে মানিকের সব সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করার নির্দেশ

Manik Bhattacharya: দেশে বিদেশে মানিকের সব সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করার নির্দেশ

এক আইনজীবী জানিয়েছেন,মানিক ভট্টাচার্যকে ৫ লক্ষ টাকা জরিমানা করেছিল আদালত। কিন্তু তিনি সেই জরিমানার অঙ্ক জমা করেননি। গত ২৫ জানুয়ারি এই নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। এবার সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করার নির্দেশ।

মানিক ভট্টাচার্য, ফাইল ছবি

এবার প্রাথমিক শিক্ষা পর্যদের প্রাক্তন সভাপতি মানিক ভট্টাচার্যের সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করার নির্দেশ কলকাতা হাইকোর্টের। বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায় এবার নিয়োগ দুর্নীতিতে ধৃত মানিক ভট্টাচার্যের দেশে বিদেশে যেখান যত সম্পত্তি আছে তা অ্যাটাচ করার জন্য ইডিকে নির্দেশ দিয়েছেন। সূত্রের খবর, আলাদতের নির্দেশ মেনে  ৫ লক্ষ টাকা জরিমানা তিনি দেননি। এরপরই মানিকের সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করার নির্দেশ। 

আদালত সূত্রে খবর, ১ মাসের মধ্যে ইডিকে এই সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। যতদিন না তিনি জরিমানা জমা না দিচ্ছেন ততদিন পর্যন্ত এই সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করা থাকবে। শুধু দেশে নয়, বিদেশেও মানিক ভট্টাচার্যের কোনও সম্পত্তি থাকলে সব বাজেয়াপ্ত করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে ইডিকে। 

এক আইনজীবী জানিয়েছেন,মানিক ভট্টাচার্যকে ৫ লক্ষ টাকা জরিমানা করেছিল আদালত। কিন্তু তিনি সেই জরিমানার অঙ্ক জমা করেননি। এদিকে গত ২৫ জানুয়ারি এই নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। তবে আপাতত মামলাটি পেন্ডিং করা হয়েছে। আগামী ৩১ মার্চ ফের শুনানি হয়েছে। তাঁর বাড়ির ঠিকানায় ও জেল সুপারকেও বিষয়টি জানানো হয়েছিল। 

বর্তমানে মানিক ভট্টাচার্য, তার স্ত্রী ও পুত্র জেলবন্দি রয়েছেন। তার মধ্য়েই এবার সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত হওয়ার নির্দেশ। 

নিয়োগ দুর্নীতিতে গ্রেফতার করা হয়েছে মানিক ভট্টাচার্যকে। তার স্ত্রী, পুত্রও জেলবন্দি। ওএমআর সিটে অসঙ্গতি সংক্রান্ত ব্যাপারে এক ব্যক্তি মামলা করেছিলেন। এদিকে সেই মামলার জেরেই মানিককে ৫ লক্ষ টাকা জরিমানা করেছিল আদালত। কিন্তু তিনি সেই জরিমানার টাকা দেননি বলে অভিযোগ।এবার সেই নিরিখেই কঠোরতম পদক্ষেপ নিল আদালত।

এদিকে মানিক ভট্টাচার্যের সম্পত্তি বিদেশে রয়েছে কি না তা নিয়ে নানা জল্পনা রয়েছে। সম্প্রতি মানিক ভট্টাচার্য আদালত চত্বরে সংবাদমাধ্যমের সামনে জানিয়েছিলেন তার বিদেশে বাড়ি নেই, বাড়ি নেই, বাড়ি নেই। তবে পরবর্তীতে মানিকের ছেলের একটি নথিতে ইঙ্গিত মেলে বিদেশের রেডিডেন্সের কথা উল্লেখ করেছেন তিনি। এরপরই প্রশ্নটা জোরালো হয়ে ওঠে তবে কি বিদেশেও সম্পত্তি করে ফেলেছিলেন মানিক ভট্টাচার্য? দুর্নীতির টাকায় কতটা ফুলে ফেঁপে উঠেছিলেন মানিক ভট্টাচার্য তা নিয়ে আগ্রহ রয়েছে বঙ্গবাসীর। তবে বিদেশে সম্পত্তি রয়েছে কি না সেটা জানতে ইতিমধ্যেই ইডি কেন্দ্রীয় সরকারের সংশ্লিষ্ট দফতরে যোগাযোগ করেছে। 

তবে এবার কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা ইডি তার সম্পত্তির কোন তালিকা তৈরি করে সেটাই দেখার। সেখানে আদৌ কি মিলবে বিদেশের বাড়ির ঠিকানা? 

বাংলার মুখ খবর