বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > এখনই শিক্ষকদের বর্ধিত বেতন ফেরত চাওয়া যাবে না, শিক্ষা দফতরের নির্দেশের উপর অন্তর্বতী স্থগিতাদেশ হাই কোর্টের
কলকাতা হাইকোর্ট। (ফাইল ছবি, সৌজন্য সমীর জানা/হিন্দুস্তান টাইমস)
কলকাতা হাইকোর্ট। (ফাইল ছবি, সৌজন্য সমীর জানা/হিন্দুস্তান টাইমস)

এখনই শিক্ষকদের বর্ধিত বেতন ফেরত চাওয়া যাবে না, শিক্ষা দফতরের নির্দেশের উপর অন্তর্বতী স্থগিতাদেশ হাই কোর্টের

  • শিক্ষা দফতরের নির্দেশে হতভম্ব হয়েছিলেন শিক্ষকরা। এরপরই উচ্চ আদালতে দ্বারস্থ হন তাঁরা।

এখনই শিক্ষকদের বাড়তি বেতন ফেরত চাইতে পারবে না শিক্ষা দফতর। এই সংক্রান্ত নির্দেশিকার উফর স্থগিতাদেশ জারি করল হাই কোর্ট। বর্ধিত বেত ফেরত চেয়ে স্কুল শিক্ষকদের উদ্দেশে নির্দেশ পাঠিয়েছিল শিক্ষা দফতর। সেই নির্দেশে হতভম্ব হয়েছিলেন ২০০৪, ২০০৫, ২০০৬ সালে নিয়োগ পাওয়া শিক্ষকরা। এর প্রেক্ষিতে মামলাও হয় কলকাতা হাই কোর্টে। সেই মামলার প্রেক্ষিতেই শুক্রবার উচ্চ আদালত জানিয়ে দেয় যে আপাতত বর্ধিত বেতন ফেরত চাওয়া যাবে না।

সময়ের সাথে বেতন বেড়েছে স্কুল শিক্ষকদের। মূল্যবৃদ্ধির অনুপাতে এই বেতন বেড়েছে তাঁদের। শিক্ষা দফতরের নির্দেশিকায় বলা হয়েছিল, বিগত ১৫ বছর ধরে পেয়ে আসা বর্ধিত অর্থ বা ইনক্রিমেন্ট এখন স্কুল শিক্ষা দফতরকে ফিরিয়ে দিতে হবে। কারণ চুক্তি অনুযায়ী চাকরিতে যোগ দেওয়ার পাঁচ বছরের মধ্যে প্রশিক্ষণ ডিগ্রি নিতে হত শিক্ষকদের। তবে বিভিন্ন আইনি জটিলতায় সেই প্রশিক্ষণ নেওয়া সম্ভব হয়নি শিক্ষকদের পক্ষে। এই কারণে এখন বর্ধিত বেতনের টাকা ফেরত চাইছে শিক্ষা দফতর।

এদিকে শিক্ষা দফতরের নির্দেশের পরই প্রশ্ন ওঠে এভাবে টাকা ফেরত চাইতে পারে কি না শিক্ষা দফতর। তাছাড়া বিগত ১৫ বছরের বর্ধিত বেতন হিসেব করে ফেরত দেওয়া প্রায় অসম্ভব। এই আবহে আদালতের দ্বারস্থ হন শিক্ষকরা। বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়ের এজলাসে এই মামলার শুনানি হয় শুক্রবার। দুই পক্ষের সওয়াল-জবাবের পর শিক্ষা দতরের নির্দেশিকার উপর অন্তর্বতী স্থগিতাদেশ দেন বিচারপতি।

বন্ধ করুন