বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > ‘কাউকে ধরাধরির দরকার নেই’‌, শিক্ষক–শিক্ষিকাদের বদলি নিয়ে জবাব ব্রাত্যর
ব্রাত্য বসু। ফাইল ছবি
ব্রাত্য বসু। ফাইল ছবি

‘কাউকে ধরাধরির দরকার নেই’‌, শিক্ষক–শিক্ষিকাদের বদলি নিয়ে জবাব ব্রাত্যর

  • কিছুদিন আগে বদলির বিষয় নিয়ে বিকাশ ভবনের সামনে বিষপান করতে দেখা যায় পাঁচ শিক্ষিকাকে।

সরকারি শিক্ষক–শিক্ষিকাদের নিজেদের বাড়ির কাছে বদলি পাওয়ার জন্য রাজ্য সরকার নিয়ে এসেছিল উৎসশ্রী প্রকল্প। এটি একটি পোর্টাল। অর্থাৎ ডিজিটাল মাধ্যম। এখানে আবেদন করলেই মিলবে উপযুক্ত বদলি। তার জন্য কাউকে ধরতে হবে না। এই বিষয়ে শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসু বলেন, ‘কাউকে ধরাধরির দরকার নেই, উৎসশ্রী পোর্টালে আবেদন করুন। সহযোগিতা করুন, সকলের আবেদন খতিয়ে দেখা হবে। বদলি আপনার অধিকার, আমরা সেটা নিশ্চয়ই দেব।’‌

কিছুদিন আগে বদলির বিষয় নিয়ে বিকাশ ভবনের সামনে বিষপান করতে দেখা যায় পাঁচ শিক্ষিকাকে। তা নিয়ে জোর শোরগোল পড়ে গিয়েছিল। এবার শিক্ষামন্ত্রী যাতে আর এমন ঘটনা না ঘটে তার জন্য তিনি বলেন, ‘যাঁরা বদলির আবেদন করছেন, তাঁদের বলব দয়া করে কোনও প্রতিনিধির কাছে যাবেন না। উৎসশ্রী পোর্টালেই আবেদন করুন। একদিনে এক–দু’হাজার করে বদলি হচ্ছে। এটা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকারের একটি স্বচ্ছতার উজ্জ্বল উদাহরণ। এখানে কোনওরকম ধরাধরি করতে হচ্ছে না।’‌

বাম আমল থেকে এই বদলির সমস্যা হয়ে আসছে। শিক্ষক–শিক্ষিকারা নিজের জেলায় বা বাড়ির কাছে বদলি চেয়ে পান না। তৃণমূল কংগ্রেসেরও দুটি টার্ম হয়ে গিয়েছে। এবার তৃতীয়বার ক্ষমতায় এসেছে তারা। এবার এই সমস্যায় হাত দেওয়া হয়েছে। এই বিষয়ে সংবাদমাধ্যমে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘আপস বদলির ক্ষেত্রে আমরা একটা নির্দিষ্ট নীতি নিয়েছি। উৎসশ্রী পোর্টাল করেছি। এখানে আবেদন করতে হচ্ছে। ব্যাপক সাড়া পাওয়া গিয়েছে।’‌

অনেক শিক্ষক–শিক্ষিকারাই অভিযোগ করছেন তাঁদের বদলি প্রক্রিয়া থমকে আছে। এটা কেন? বিষয়টি নিয়ে ব্রাত্য বসু বলেন, ‘কোনও কোনও জায়গায় জেলা পরিদর্শকের কাছে ফাইল আটকে থাকছে। আবার কোভিড হয়েছে বলে ফাইল আটকে রছে। তবে আমি উৎসশ্রীর মাধ্যমেই আবেদন করতে বলব। আপনারা সহযোগিতা করুন। সরকার সহানুভূতিশীল। যাতে আপনাদের কষ্ট না হয় সেটা বিবেচনার মধ্যে আনছে সরকার।’‌

বন্ধ করুন