বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > Medical College suicide: কীভাবে কার্নিশে পৌঁছালেন আছিয়া? ন্যাশনাল মেডিক্যাল কলেজে মৃত্যুতে উঠছে প্রশ্ন

Medical College suicide: কীভাবে কার্নিশে পৌঁছালেন আছিয়া? ন্যাশনাল মেডিক্যাল কলেজে মৃত্যুতে উঠছে প্রশ্ন

মৃত আছিয়া বিবি।

মঙ্গলবার প্রসূতি বিভাগ ঘুরে দেখার পাশাপাশি যেখানে আছিয়ার মৃতদেহ পাওয়া গিয়েছিল সেই জায়গাটিও ঘুরে দেখেন কমিটির সদস্যরা। পুলিশের সঙ্গেও তারা কথা বলেন। পুলিশ জানিয়েছে আছিয়ার পায়ের তলা থেকে কার্নিশের ধুলোর নমুনা পাওয়া গিয়েছে।

কলকাতা ন্যাশনাল মেডিক্যাল কলেজে প্রসূতির মৃত্যুর ঘটনায় ইতিমধ্যেই সামনে এসেছে ময়নাতদন্তের রিপোর্ট। তাতে উল্লেখ রয়েছে উপর থেকে পড়ে মৃত্যু হয়েছে প্রসূতি আছিয়া বিবির। কিন্তু, তারপরেও তার মৃত্যু নিয়ে নানা প্রশ্ন উঠেছে। আছিয়ার মৃত্যুর ঘটনায় পাঁচ সদস্যের কমিটি গঠন করেছে স্বাস্থ্য ভবন। কীভাবে ওই প্রসূতি কার্নিশে পৌঁছালেন তা নিয়ে ধোঁয়াশার মধ্যে রয়েছেন কমিটির সদস্যরা।

মঙ্গলবার প্রসূতি বিভাগ ঘুরে দেখার পাশাপাশি যেখানে আছিয়ার মৃতদেহ পাওয়া গিয়েছিল সেই জায়গাটিও ঘুরে দেখেন কমিটির সদস্যরা। পুলিশের সঙ্গেও তারা কথা বলেন। পুলিশ জানিয়েছে আছিয়ার পায়ের তলা থেকে কার্নিশের ধুলোর নমুনা পাওয়া গিয়েছে। যদিও পুলিশের বক্তব্য শৌচাগারের ভেন্টিলেটর ধরে কার্নিশে পৌঁছে গিয়েছিলেন আছিয়া বিবি। তারপরে তিনি সেখান থেকে ঝাঁপ দিয়ে আত্মহত্যা করেন। তবে পুলিশের বক্তব্যের সঙ্গে কমিটির সদস্যরা একমত হতে পারছেন না। কারণ ভেন্টিলেটরটি লম্বা এবং চওড়ায় ৯/১৪ ইঞ্চি। ফলে এইটুকু ফাঁক দিয়ে একজন রোগী কীভাবে যেতে পারে তাই নিয়ে উঠছে প্রশ্ন।

তাছাড়া যেহেতু তিন দিন আগেই তিনি সন্তানের জন্ম দিয়েছিলেন। ফলে শারীরিক ভাবে কিছুটা দুর্বলতা ছিলেন ছিলেন তিনি। সেই দুর্বলতাতেও কীভাবে তিনি শৌচাগারে পৌঁছালেন তা নিয়েও থাকছে প্রশ্ন। যদিও সিসিটিভির ফুটেজে শৌচাগারের দিকে আছিয়াকে যেতে দেখা গিয়েছে। পাশাপাশি দেহ পড়ে থাকার পরেও কেন সঙ্গে সঙ্গে তা রক্ষীদের নজরে এল না তা নিয়েও উঠছে প্রশ্ন। মঙ্গলবার স্বাস্থ্য ভবনে রিপোর্ট জমা দিয়ে কমিটি অসন্তোষ প্রকাশ করেছে। একইসঙ্গে হাসপাতালে ছিদ্র গুলি বন্ধ করার অনুরোধ জানিয়েছে। পাশাপাশি সিসিটিভির সংখ্যা বাড়ানোরও অনুরোধ জানিয়েছে।

বন্ধ করুন