রবিবার রাজাবাজারে আগুন লাগলে ২ ঘণ্টা নিরলস চেষ্টার পরে নেভাতে সফল হন দমকলকর্মীরা।
রবিবার রাজাবাজারে আগুন লাগলে ২ ঘণ্টা নিরলস চেষ্টার পরে নেভাতে সফল হন দমকলকর্মীরা।

রাজাবাজারে কারখানা থেকে ছড়াল ভয়াবহ আগুন, দমকলের চেষ্টায় শেষরক্ষা

কারখানার আগুন ক্রমে সংলগ্ন বাজার অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়ে। রবিবার বেশির ভাগ দোকান বন্ধ থাকার কারণে দুর্ঘটনায় কোনও হতাহতের আশঙ্কা দেখা দেয়নি।

রবিবার দুপুরে মধ্য কলকাতার রাজাবাজারের চাউলপট্টি অঞ্চলে একটি কারখানায় ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড কেন্দ্র করে আতঙ্ক ছড়াল। দমকলের ১২টি ইঞ্জিন প্রায় দুই ঘণ্টার চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে সফল হয়েছে।

এ দিন দুপুর ২.১০ মিনিট নাগাদ রাজাবাজারের ওই কারখানা থেকে আচমকা ধোঁয়া বের হতে দেখা যায়। ওই কারখানায় ল্যামিনেশনের কাজ হত বলে জানিয়েছে দমকল।

দমকলের এক শীর্ষস্থানীয় আধিকারিক জানিয়েছেন, কারখানার আগুন ক্রমে সংলগ্ন বাজার অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়ে। রবিবার বেশির ভাগ দোকান বন্ধ থাকার কারণে দুর্ঘটনায় কোনও হতাহতের আশঙ্কা দেখা দেয়নি। কিন্তু দ্রুত গতিতে একের পর এক দোকানে আগুন ছড়িয়ে পড়তে দেখে এলাকাজুড়ে তীব্র আতঙ্ক দেখা দেয়।

দমকলে খবর দেন স্থানীয় অধিবাসীরাই। কিন্তু দমকল পৌঁছনোর আগে তাঁরাই বালতিতে জল বয়ে নিয়ে গিয়ে আগুন নেভানোর চেষ্টা শুরু করেন।

দমকল সূত্রে জানা গিয়েছে, বাজারে মজুত করে রাখা কয়েকটি এলপিজি সিলিন্ডারে কারখানা থেকে ছড়িয়ে পড়া আগুন ধরে যাওয়ায় আরও ভয়াবহ হয়ে ওঠে পরিস্থিতি। তবে অধিকাংশ দোকান বন্ধ থাকায় বিপদের মাত্রা বাড়েনি।

এর মধ্যে ঘটনাস্থলে এসে পৌঁছয় দমকলের ১২টি ইঞ্জিন। প্রায় দুই ঘণ্টার নিরন্তর চেষ্টায় বিকেল ৪টে নাগাদ আগুন নেভাতে সফল হয় দমকল।

দমকল ও আপত্কালীন পরিষেবা মন্ত্রী সুজিত বসু জানিয়েছেন, ‘আগুন নিয়ন্ত্রণে আনা গিয়েছে। দুর্ঘটনায় কেউ আহত হননি। আশপাশে প্রচুর ঝুপড়ি থাকায় আগুন আরও বড় আকার ধারণ করতে পারত। তবে তার আগেই আমরা তা নিয়ন্ত্রণ করতে সক্ষম হয়েছি।’

বন্ধ করুন