বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > ‘‌ব্যক্তিগত স্তরে সম্পর্ক খারাপ হয়নি’‌, মুখ্যমন্ত্রীকে দরাজ শংসাপত্র সব্যসাচীর
বিজেপি নেতা সব্যসাচী দত্ত। (ছবি সৌজন্য ফেসবুক)
বিজেপি নেতা সব্যসাচী দত্ত। (ছবি সৌজন্য ফেসবুক)

‘‌ব্যক্তিগত স্তরে সম্পর্ক খারাপ হয়নি’‌, মুখ্যমন্ত্রীকে দরাজ শংসাপত্র সব্যসাচীর

  • বিরাট হাঁকডাক করলেও সতীর্থ সুজিত বসুর কাছে হেরে যান সব্যসাচী। তারপর থেকেই অন্তরালে চলে যান সব্যসাচী। এবার মুখ খুললেন সব্যসাচী দত্ত।

এবার বেসুরো সব্যসাচী। বিধানসভা নির্বাচনের প্রাক্কালে মুকুল রায়ের হাত ধরে বিজেপিতে যোগদান করেছিলেন। নির্বাচনের ফলপ্রকাশের একমাস কাটেনি আবার তৃণমূল কংগ্রেসের দিকে ঝুঁকলেন প্রাক্তন বিধায়ক সব্যসাচী দত্ত। দলবদল করে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে একাধিকবার সরব হয়েছিলেন রাজারহাট–নিউটাউনের প্রাক্তন বিধায়ক। বিজেপির টিকিটে বিধাননগরে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলেন সব্যসাচী। তবে বিরাট হাঁকডাক করলেও সতীর্থ সুজিত বসুর কাছে হেরে যান সব্যসাচী। তারপর থেকেই অন্তরালে চলে যান সব্যসাচী। এবার মুখ খুললেন সব্যসাচী দত্ত।

কেন্দ্র–রাজ্য সংঘাতে যখন রাজ্য–রাজনীতি তোলপাড় তখন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সম্পর্কে সব্যসাচী দত্ত বলেন, ‘‌উনি বয়সে বড়। ব্যক্তিগত স্তরে সম্পর্ক খারাপ হয়নি। ওনার রাজনৈতিক ম্যাচিওরিটির সঙ্গে আমার কোনও তুলনা চলে না। আমার কোনও প্রতিযোগিতা তাঁর সঙ্গে নেই।’‌ এই মন্তব্য প্রকাশ্যে আসতেই জোর চর্চা শুরু হয়ে গিয়েছে। আপনার অনেক সতীর্থ এখন তৃণমূল কংগ্রেসে ফিরতে চাইছেন। আপনিও কী ফিরবেন?‌ এই বিষয়ে সব্যসাচী বলেন, ‘‌যাঁরা ফিরতে চাইছেন, সেটা তাঁদের ব্যাপার। আমার সঙ্গে কারও কোনও কথা হয়নি। এই জল্পনা তৈরি করা হয়েছে।’‌

উল্লেখ্য, বিজেপিতে যোগ দেওয়ার আগেও এমন কথা বলেছিলেন সব্যসাচী। তাছাড়া মুকুল রায় যখন তাঁর বাড়িতে এসে লুচি–আলুর দম খেয়েছিলেন তখনও তিনি জল্পনা বলেছিলেন। তাই একুশের নির্বাচনের পর মুখ্যমন্ত্রীর প্রশংসা তৃণমূল কংগ্রেসের দিকেই তাঁর পাল্লা ভারী হচ্ছে বলে মনে করছেন রাজনৈতিক কুশীলবরা। আর নির্বাচনে পরাজয় প্রসঙ্গে সব্যসাচী বলেন, ‘‌দলের কোনও পর্যালোচনা হয়নি এখনও।’‌ ইতিমংধ্যেই সোনালি গুহ, সরলা মুর্মু, বাচ্চু হাঁসদারা–সহ আরও অনেকে তৃণমূল কংগ্রেসে ফেরার জন্য পা বাড়িয়েছেন।

বন্ধ করুন