বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > Suvendu Adhikari: ভালো হলে নিজেদের ক্রেডিট দেন, খারাপ হলে আমার ঘাড়ে চাপান, রাজ্য নেতৃত্বকে কটাক্ষ শুভেন্দুর

Suvendu Adhikari: ভালো হলে নিজেদের ক্রেডিট দেন, খারাপ হলে আমার ঘাড়ে চাপান, রাজ্য নেতৃত্বকে কটাক্ষ শুভেন্দুর

ভালো হলে নিজেদের ক্রেডিট দেন, খারাপ হলে আমার ঘাড়ে চাপান: শুভেন্দু

শুভেন্দু অধিকারী বলেন, ‘চারটি বিধানসভা উপনির্বাচনে প্রার্থী ঘোষণার পরে দলের রাজ্য দফতর থেকে যদি প্রচারের জন্য যদি আমাকে বলে আমি আমার নিজের গাড়িতে, নিজের পয়সায় তেল ভরে আমি যাব। আর রায়গঞ্জে প্রচারে যেতে বললে তো সেদিন ফিরতে পারব না। রাতে মালদায় হোটেল খরচটাও আমি দেব।

লোকসভা নির্বাচনের ফল প্রকাশের পর প্রথমবার সাংগঠনিক বৈঠক করে দলীয় নেতৃত্বকে সুকৌশলে কটাক্ষ করলেন বিজেপি নেতা শুভেন্দু অধিকারী। বুঝিয়ে দিলেন, যে ভাবে তাঁকে আক্রমণ করা হচ্ছে তার জবাব দিতেও পিছ পা হবেন না তিনি। বুধবার সন্ধ্যায় শুভেন্দুবাবু সাংবাদিকদের নানান প্রশ্নের জবাব দিতে গিয়ে প্রচ্ছন্নে দলের রাজ্য নেতৃত্বকে কাঠগড়ায় তোলেন। বলেন, ‘ভালো হলে নিজেদের ক্রেডিট দেন, খারাপ হলে আমার ঘাড়ে চাপান’।

আরও পড়ুন - মূল সুবিধাভোগীর হয়ে চাকরি বিক্রির টাকা তুলেছে আরেকজন, আদালতে জানাল CBI

পড়তে থাকুন - চিঠির হাতের লেখা কি জ্যোতিপ্রিয় মল্লিকেরই, ফরেন্সিক পরীক্ষা করাতে চায় ইডি

এদিন বিধাননগরে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে শুভেন্দুবাবু বলেন, ‘দলের সবাই আমাকে পুরস্কার দেয় না। কেউ কেউ তিরস্কারও দিতে পারে। অনেকে অনেক কিছু পোস্টও করতে পারে। তীর্যক মন্তব্যও করতে পারে। ভালো হলে নিজেদের ক্রেডিট দেন, খারাপ হলে আমার ঘাড়ে চাপান। কিন্তু আমি কখনওই দলের অভ্যন্তরীণ বিষয় বাইরে বলতে চাই না।’

দলের ব্যর্থতার দায় সামগ্রিকভাবে রাজ্য নেতৃত্বের ঘাড়ে ঠেলে শুভেন্দু অধিকারী বলেন, ‘দলীয় সংগঠনে রদবদল নিয়ে আমি কোনও মন্তব্য করব না। প্রার্থী নির্বাচন, প্রচার কৌশল, সবটাই সংগঠন তৈরি করে। ভারতীয় জনতা পার্টিতে সংগঠনের একটা সিস্টেম রয়েছে। আমি রাজ্যের কোর কমিটির সদস্য। সেই কোর কমিটির মিটিংয়ে যদি ডাকে। সেখানে আমাকে কিছু বলতে বলা হয়। বা আমি মনে করি যে বলব বা নীরব থাকব, সেখানেই বলব। আমি সামগ্রিকভাবে এ ব্যাপারে পার্টির প্রতিনিধিত্ব করি না। সংগঠন করি। এব্যাপারে শমীকদা বলতে পারবেন।’

আরও পড়ুন - আগ্নেয়াস্ত্র সরাতেই আধিকারিকদের ওপর হামলা চালায় শাহজাহান, চার্জশিটে দাবি EDর

এমনকী তিনি যে দলের কাছ থেকে কোনও খরচ নেন না তাও কৌশলে মনে করিয়ে দেন শুভেন্দু অধিকারী। তিনি বলেন, ‘চারটি বিধানসভা উপনির্বাচনে প্রার্থী ঘোষণার পরে দলের রাজ্য দফতর থেকে যদি প্রচারের জন্য যদি আমাকে বলে আমি আমার নিজের গাড়িতে, নিজের পয়সায় তেল ভরে আমি যাব। আর রায়গঞ্জে প্রচারে যেতে বললে তো সেদিন ফিরতে পারব না। রাতে মালদায় হোটেল খরচটাও আমি দেব। আমাকে যেখানে যেখানে প্রচারে যেতে বলা হয় আমি যাই। সংগঠিত করার কাজটা আমার নয়। কেবল আমার জেলায় পার্টির সংগঠকরা রাজ্য নেতৃত্বের নির্দেশিকাও যেমন মেনে চলেন, তেমন আমার পরামর্শও শোনেন। এর বাইরে সাংগঠনিক ব্যাপারে আমি কোনও দিন হস্তক্ষেপ করি না। ভবিষ্যতেও করার কোনও ইচ্ছা নেই।’

 

 

বাংলার মুখ খবর

Latest News

মুখ্যমন্ত্রীর আবেদনে সাড়া দিল মেট্রো রেল, একুশে জুলাই বিশেষ ব্যবস্থা লাইফ লাইনে 'সূর্য'র প্রিমিয়ারে ছোট পর্দায় ফেরার আভাস মধুমিতার? ৫বছরের প্রেম ভাঙে, সুস্মিতা বলছেন, ‘বিশ্বাসঘাতকদের জীবনে কোনও ঠাঁই নেই, আমি একা' জোসেফের লম্বা ছয়, ভাঙল ট্রেন্ট ব্রিজের ছাদ, অল্পের জন্য বাঁচলেন দর্শকরা- ভিডিয়ো 'অমর সঙ্গী নামটার সঙ্গে যেন সুবিচার করতে পারি', বুম্বাদার টিপসের অপেক্ষায় নীল! স্কুটার দিয়ে বাজাজকে কটাক্ষ মোহনবাগানের? আনোয়ারের ‘টাকা মেরে দেওয়ায়’ বলল ‘চোর’? স্বামী, শাশুড়ি, ননদ সকলেই প্রাক্তন, তবু চারু বলছেন, তাঁদেরকেই ভালোবাসেন... 'লোকে আমায় এখনো মেয়েবাজ, চিটিংবাজ বলে', অকপট রণবীর, মেয়ের বাবা হয়েও স্বভাব… একঝলকে টেস্ট ফরম্যাটে উইন্ডিজের গত পাঁচটি বড় ইনিংসের তথ্য... সীমান্তে বন্ধ বাণিজ্য, উত্তাল বাংলাদেশের প্রভাব পড়ল আমদানি–রফতানিতে

Copyright © 2024 HT Digital Streams Limited. All RightsReserved.