ফাইল ছবি
ফাইল ছবি

'সরকার চাইলে যে কোনও জায়গায় কোয়ারেন্টাই সেন্টার, COVID হাসপাতাল করতে পারে'

  • মমতা বলেন, 'সরকার চাইলে যে কোনও জায়গায় কোয়ারেন্টাইন সেন্টার বা করোনা হাসপাতাল করতে পারে। এক সেকেন্ড লাগবে অধিগ্রহণ করতে।'

কোয়ারেনটাইন সেন্টার গড়তে বাধা দিলে আইনি ক্ষমতা প্রয়োগ করবে রাজ্য সরকার। জেলায় জেলায় বিক্ষোভের মধ্যে বুধবার নবান্নে বসে এভাবেই হুমকি দিলেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন, সরকার চাইলে যে কোনও জায়গা অধিগ্রহণ করে কোয়ারেন্টাইন সেন্টার গড়তে পারে।

গত কয়েক সপ্তাহ ধরে পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন জেলায় করোনার কোয়ারেন্টাইন সেন্টার তৈরি নিরেয় বিক্ষোভ চলছে। গ্রামবাসীদের দাবি, করোনার কোয়ারেন্টাইন সেন্টার হলে এলাকায় সংক্রমণ ছড়াবে। তাই কোনও পরিস্থিতিতেই কোয়ারেন্টাইন সেন্টার হতে দেবেন না তাঁরা। উত্তরে আলিপুরদুয়ার থেকে দক্ষিণে বাসন্তী। প্রায় সর্বত্র কোয়ারেন্টাইন সেন্টার করতে গিয়ে গ্রামবাসীদের বাধার মুখে পড়তে হচ্ছে।

মঙ্গলবার আসানসোলের চুরুলিয়ায় পরিস্থিতি চরমে পৌঁছয়। মুসলিম অধ্যুষিত ওই এলাকায় যুব আবাসে কোয়ারেন্টাইন সেন্টার তৈরি করেছে স্থানীয় প্রশাসন। গ্রামে কোয়ারেন্টাইন সেন্টার করায় কয়েকদিন ধরেই বিক্ষোভ দেখাচ্ছিলেন স্থানীয়রা। সোমবার রাতে সেখানে কোয়ারেন্টাইনে কয়েকজনকে রাখা হয়। তার পরই মঙ্গলবার অগ্নিগর্ভ হয়ে ওঠে এলাকা। পুলিশের ওপর রড নিয়ে চড়াও হয় গ্রামবাসীরা। রডের আঘাতে পা ভাঙে জামুড়িয়া থানার ওসির।

সোমবার রাতে আসানসোলের সালানপুরেও একই রকম ঘটনা ঘটে। সেখানে জেলাপরিষদের গেস্ট হাউজে কোয়ারেন্টাইন সেন্টার তৈরি করা হয়েছে। তা মানতে নারাজ স্থানীয় আদিবাসীরা। তির – ধনুক নিয়ে প্রশাসনের আধিকারিকদের তাড়া করে তারা। রণে ভঙ্গ দিতে হয় প্রশাসনকে।

এপ্রসঙ্গে এদিনের সাংবাদিক বৈঠকে মমতা বলেন, 'সরকার চাইলে যে কোনও জায়গায় কোয়ারেন্টাইন সেন্টার বা করোনা হাসপাতাল করতে পারে। এক সেকেন্ড লাগবে অধিগ্রহণ করতে।' সঙ্গে এসব বিক্ষোভের পিছনে বিরোধীদের মদত রয়েছে বলে অভিযোগ করেন তিনি।



বন্ধ করুন