বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > অনলাইনে কেনা ওষুধের বিলও জমা দিতে পারবেন সরকারি কর্মীরা, বাধ্যতামূলক হচ্ছে GST
অনলাইনে কেন ওষুধের বিলও জমা দেওয়া যাবে সরকারি প্রকল্পে। প্রতীকী ছবি

অনলাইনে কেনা ওষুধের বিলও জমা দিতে পারবেন সরকারি কর্মীরা, বাধ্যতামূলক হচ্ছে GST

  • অনেকের পক্ষেই কাউন্টার থেকে গিয়ে ওষুধ কেনা সম্ভব হয় না। তাঁদের কাছে একমাত্র ভরসার জায়গা অনলাইন ওষুধের ব্যবস্থা। কিন্তু এতদিন সেখান থেকে ওষুধ কিনলে সেই বিল সরকারি স্তরে জমা দেওয়া যেত না। তবে এবার সেই সমস্যা মিটছে।

অনলাইনে ওষুধ কিনলেও রাজ্য স্বাস্থ্য প্রকল্পে সেই বিল জমা দেওয়া যাবে। নয়া সরকারি নির্দেশে একথা বলা হয়েছে। স্বাভাবিকভাবেই এতে খুশি রাজ্য সরকারি কর্মচারীরা। এর সঙ্গেই উল্লেখ করা হয়েছে রাজ্য সরকারি কর্মীরা যখন রাজ্য স্বাস্থ্য প্রকল্পের বিলের জন্য ক্যাশমেমো দাখিল করবেন তখন সেখানে জিএসটির নম্বর উল্লেখ করতে হবে। সিজিএসটি ও এসজিএসটি দুটি পর্যায়ই বিলে লিখতে হবে। ওষুধের বিলে জিএসটির নম্বর উল্লেখ করা বাধ্যতামূলক করা হচ্ছে। এর জেরে কিছুটা হলেও আয় বাড়বে সরকারের। 

রাজ্য দফতরের এই বিজ্ঞপ্তিকে ঘিরে ইতিমধ্য়ে চর্চা শুরু হয়ে গিয়েছে সরকারি কর্মচারীদের অন্দরে। সরকারি কর্মীদের একাংশের মতে, ওষুধের দোকান থেকে ওষুধ কেনার পাশাপাশি অনেকেই এখন অনলাইনেও ওষুধ কেনেন। কিন্তু এতদিন অনলাইনে ওষুধ কিনতে গিয়ে দুবার ভাবতেন সরকারি কর্মীরা। কারণ তাঁরা এতদিন অনলাইনে ওষুধ কেনার পরে তার বিল সরকারি স্বাস্থ্য প্রকল্পে জমা দিতে পারতেন না। তবে এবার সেই বিলও জমা দেওয়ার ক্ষেত্রে ছাড়পত্র দিল সরকারি অর্থ দফতর।

পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকারি কর্মচারী ফেডারেশন সরকারের এই উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছে। সরকারি কর্মচারীরাও এতে স্বস্তি পেয়েছেন। তাঁদের দাবি, অনেকের পক্ষেই কাউন্টার থেকে গিয়ে ওষুধ কেনা সম্ভব হয় না। তাঁদের কাছে একমাত্র ভরসার জায়গা অনলাইন ওষুধের ব্যবস্থা। কিন্তু এতদিন সেখান থেকে ওষুধ কিনলে সেই বিল সরকারি স্তরে জমা দেওয়া যেত না। তবে এবার সেই সমস্যা মিটছে।  সেক্ষেত্রে এবার থেকে সরকারি কর্মীরা নির্ভাবনায় অনলাইনে ওষুধ কিনে তার বিল সাবমিট করতে পারবেন। 

বন্ধ করুন