বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > প্রাথমিক টেট মামলায় পর্ষদ সভাপতিকে সশরীরে হাজিরার নির্দেশ
কলকাতা হাইকোর্ট। (ফাইল ছবি, সৌজন্য কলকাতা হাইকোর্ট)
কলকাতা হাইকোর্ট। (ফাইল ছবি, সৌজন্য কলকাতা হাইকোর্ট)

প্রাথমিক টেট মামলায় পর্ষদ সভাপতিকে সশরীরে হাজিরার নির্দেশ

  • ১৯জন মামলাকারীর প্রত্যেককে ২০ হাজার টাকা করে মোট ৩ লক্ষ ৮০ হাজার টাকা পর্ষদ সভাপতির নিজস্ব রোজগারের টাকা থেকে দেওয়ার নির্দেশও দেওয়া হয়েছিল।

এবার একেবারে প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের সভাপতিকে সশরীরে হাজির হওয়ার নির্দেশ দিল কলকাতা হাইকোর্ট। আগামী সোমবার সকাল ১১টায় পর্ষদ সভাপতি মানিক ভট্টাচার্যকে আদালতে হাজিরার নির্দেশ দিয়েছেন বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়। ২০১৪ সালে প্রাথমিক টেট পরীক্ষায় ভুল প্রশ্ন এসেছিল বলে অভিযোগ উঠেছিল। এদিকে তার জেরে তীরে এসে তরী ডোবে অনেকের। সেকারণে অনেকে চাকরি পাননি বলে অভিযোগ তোলা হয়। এবার সেই মামলাতেই পর্ষদ সভাপতিকে কার্যত তলব করেছে আদালত। 

এদিকে আদালত সূত্রে খবর, ২০১৪ সালের প্রাথমিকের টেট পরীক্ষাটি ২০১৫ সালে অক্টোবর মাসে হয়েছিল। এদিকে সেই পরীক্ষায় ৬টি প্রশ্নে ভুল থাকার কথা উল্লেখ করে মামলা হয়। এরপর ২০১৮ সালে হাইকোর্টের বিচারপতি সমাপ্তি চট্টোপাধ্যায়ের নির্দেশ, ভুল থাকা ৬টি প্রশ্নের উত্তর দিলেই পরিক্ষার্থীকে পুরো নম্বর দিতে হবে। এদিকে ২০২০ সালে অনেককেই পর্ষদ নিয়োগপত্র দিয়েছিল। প্রসঙ্গত সুপ্রিম কোর্টের সিঙ্গল বেঞ্চের রায়কে হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চ ও সুপ্রিম কোর্ট বহাল রাখে।

এদিকে ২০১৮ সালে বিচারপতি সমাপ্তি চট্টোপাধ্যায় যে রায় দিয়েছিলেন তা কীভাবে কার্যকরী হবে তার রূপরেখা না মেলার জেরেই প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের সভাপতিকে সশরীরে হাজির থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এদিকে গত ৩রা সেপ্টেম্বর কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায় নির্দেশ দিয়েছিলেন, ৭ দিনের মধ্যে মামলাকারীদের পুরো নম্বর দিতে হবে। বাড়তি নম্বর দেওয়ার পর টেট উত্তীর্ণ হওয়ার যোগ্যতামানে গেলে তাদের নাম চাকরির জন্য বিবেচনা করতে হবে। অন্য়দিকে ১৯জন মামলাকারীর প্রত্যেককে ২০ হাজার টাকা করে মোট ৩ লক্ষ ৮০ হাজার টাকা পর্ষদ সভাপতির নিজস্ব রোজগারের টাকা থেকে দেওয়ার নির্দেশও দেওয়া হয়েছিল। 

 

 

বন্ধ করুন