বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > মেডিক্যাল কলেজের ফ্রিজ থেকে উধাও দামী ইনজেকশন, পরে মিলল বাইরে, উঠছে প্রশ্ন
কলকাতা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল। ফাইল ছবি।
কলকাতা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল। ফাইল ছবি।

মেডিক্যাল কলেজের ফ্রিজ থেকে উধাও দামী ইনজেকশন, পরে মিলল বাইরে, উঠছে প্রশ্ন

  • গতকাল শুক্রবার বিষয়টি প্রকাশ্যে আসে। হাসপাতালের হেমাটোলজি এন্ড ট্রান্সফিউশন মেডিসিন বিভাগে এই ঘটনা ঘটেছে। হাসপাতাল সূত্রে খবর, এক নার্স ওই ইনজেকশন নিতে গিয়ে দেখেন সেগুলি ফ্রিজে নেই, উধাও হয়ে গিয়েছে।

মেডিক্যাল কলেজ থেকে উধাও হয়ে গিয়েছিল কয়েক লক্ষ টাকার টসিলিজুমাব ইনজেকশন। এবার মূল্যবান ইনজেকশনের চারটি ভায়াল উধাও হয়ে যাওয়ার অভিযোগ উঠল। ফ্রিজের মধ্যে সেগুলি রাখা ছিল। যদিও পরে সেগুলি ফ্রিজের বাইরে পড়ে থাকতে দেখা যায়। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। কে বা কারা ইনজেকশনগুলি ফ্রিজের বাইরে রাখল? এর পিছনে কী উদ্দেশ্য ছিল তা নিয়ে উঠছে প্রশ্ন। এই অভিযোগ প্রকাশ্যে আসতেই শোরগোল পড়ে গিয়েছে।

গতকাল শুক্রবার বিষয়টি প্রকাশ্যে আসে। হাসপাতালের হেমাটোলজি এন্ড ট্রান্সফিউশন মেডিসিন বিভাগে এই ঘটনা ঘটেছে। হাসপাতাল সূত্রে খবর, এক নার্স ওই ইনজেকশন নিতে গিয়ে দেখেন সেগুলি ফ্রিজে নেই, উধাও হয়ে গিয়েছে। এরপর ওই নার্স কর্তৃপক্ষকে চিঠি লেখেন। পরে অবশ্য ইনজেকশনগুলি খুঁজে পাওয়া যায় ফ্রিজের বাইরে। সাধারণত হিমোফিলিয়া আক্রান্তদের চিকিৎসার জন্য এই ফ্যাক্টর ৮ ইনজেকশন ব্যবহার করা হয়। এই ইনজেকশন রোগীদের রক্ত জমাট বাঁধতে সাহায্য করে। এই চারটি ভায়ালের আনুমানিক দাম ২২ হাজার টাকা। তবে ইনজেকশনগুলি খুঁজে পাওয়া গেলেও দু'টি ভাঙা অবস্থায় পাওয়া গিয়েছে। এ বিষয়ে কলকাতা মেডিক্যাল কলেজের অধ্যক্ষ রঘুনাথ মিশ্র জানিয়েছেন, হাসপাতালে নার্স এবং কর্মীদের সক্রিয়তার জন্য ইনজেকশনগুলি খুঁজে পাওয়া গিয়েছে। কীভাবে এই ঘটনা ঘটলো তা খতিয়ে দেখা হবে।

উল্লেখ্য, করোনা পরিস্থিতিতে লক্ষাধিক টাকার টসিলিজুমাব ইনজেকশন চুরি হয়ে গিয়েছিল। সে ক্ষেত্রে অভিযোগ উঠেছিল চিকিৎসক এবং নার্সের বিরুদ্ধে। পরে শাস্তিমুলক ব্যবস্থা হিসেবে তাদের অন্যত্র বদলি করে দেওয়া হয়। তারপর গতকালের এই ঘটনায় ফের উঠেছে নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্ন।

 

বন্ধ করুন